১১:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪

হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানি বাড়ছে, 200 কোটি টাকা আয় করছে

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:৩৭:২৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ জুন ২০২২
  • / ১১২৮ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দেশে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড উৎপাদনকারী কারখানা রয়েছে অন্তত ৬টি। এসব কারখানায় উৎপাদিত পণ্য দেশেই ব্যবহৃত হয়। এছাড়া রপ্তানিও হয়। সরকার রপ্তানির জন্য নগদ সহায়তাও দেয়।

বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ২৩.৩ মিলিয়ন কোটি, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২০৬ কোটি টাকার সমতুল্য।

রপ্তানি আয় দ্রুত বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে রপ্তানির পরিমাণ আগের অর্থবছরের পুরো সময়ের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি। 2014-15 সালের পুরো সময়ের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম 10 মাসে রপ্তানি আয় তিনগুণ বেড়েছে।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড একটি রাসায়নিক যা টেক্সটাইল সহ অনেক শিল্পে ব্যবহৃত হয়। বাংলাদেশের রপ্তানিকারকরা মূলত যেসব দেশে বেশি টেক্সটাইল কারখানা রয়েছে সেখানে রপ্তানি করেন। ইপিবির তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে ভারত, পাকিস্তান ও ভিয়েতনামে সবচেয়ে বেশি হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। রাসায়নিকটি মোট 14টি দেশে রপ্তানি করা হয়।

অন্যান্য দেশের মধ্যে রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং দক্ষিণ আফ্রিকা।

শিল্প সংশ্লিষ্টদের মতে, বাংলাদেশে হাইড্রোজেন পারক্সাইড উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো হলো সমুদা কেমিক্যাল কমপ্লেক্স, তাসনিম কেমিক্যাল কমপ্লেক্স, এসএম কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ, এইচপি কেমিক্যালস লিমিটেড, ইনফেনিয়া কেমিক্যাল এবং আল-রাজি কেমিক্যাল কমপ্লেক্স।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানান, বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের পর চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়িতে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে হাইড্রোজেন পারক্সাইড ছিল। বিএম কন্টেইনার ডিপো স্মার্ট গ্রুপের মালিকানাধীন। আল-রাজি কেমিক্যাল কমপ্লেক্স গ্রুপের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড একটি রাসায়নিক যৌগ। যদি এটি উত্তপ্ত হয়, হাইড্রোজেন পারক্সাইড তাপ পচনে বিস্ফোরক হিসেবে কাজ করে।

ভারত ও পাকিস্তান বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা হাইড্রোজেন পারক্সাইডের ওপর অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করেছে। মার্চ 2016 সালে, পাকিস্তান ট্যারিফ কমিশন বাংলাদেশী হাইড্রোজেন পারক্সাইডের উপর 12 শতাংশ অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে। তারপর 2016 সালে, ভারতও বাংলাদেশী হাইড্রোজেন পারক্সাইড আমদানিতে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে।

কোনো কোম্পানি তার নিজের দেশে বিক্রয়মূল্যের চেয়ে কম দামে রপ্তানি করলে আমদানিকারক দেশ সেটিকে ডাম্পিং হিসেবে বিবেচনা করতে পারে। বিপরীতে, অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করা যেতে পারে।

সমুদা কেমিক্যালসের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আকরামুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, ভারত ও পাকিস্তান অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপের পর রপ্তানিকারকরা নতুন বাজার খুঁজতে শুরু করেছে। এখন নতুন বাজারে পণ্য রপ্তানি হচ্ছে।

সরকার হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানিতে ১০ শতাংশ ভর্তুকি দেয়। মানে ১০০ টাকা রপ্তানি করলে সরকারের কাছ থেকে ১০ টাকা পাবেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানি বাড়ছে, 200 কোটি টাকা আয় করছে

আপডেট সময় ০৪:৩৭:২৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ জুন ২০২২

দেশে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড উৎপাদনকারী কারখানা রয়েছে অন্তত ৬টি। এসব কারখানায় উৎপাদিত পণ্য দেশেই ব্যবহৃত হয়। এছাড়া রপ্তানিও হয়। সরকার রপ্তানির জন্য নগদ সহায়তাও দেয়।

বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১০ মাসে হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ২৩.৩ মিলিয়ন কোটি, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ২০৬ কোটি টাকার সমতুল্য।

রপ্তানি আয় দ্রুত বাড়ছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে রপ্তানির পরিমাণ আগের অর্থবছরের পুরো সময়ের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি। 2014-15 সালের পুরো সময়ের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম 10 মাসে রপ্তানি আয় তিনগুণ বেড়েছে।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড একটি রাসায়নিক যা টেক্সটাইল সহ অনেক শিল্পে ব্যবহৃত হয়। বাংলাদেশের রপ্তানিকারকরা মূলত যেসব দেশে বেশি টেক্সটাইল কারখানা রয়েছে সেখানে রপ্তানি করেন। ইপিবির তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরে ভারত, পাকিস্তান ও ভিয়েতনামে সবচেয়ে বেশি হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ। রাসায়নিকটি মোট 14টি দেশে রপ্তানি করা হয়।

অন্যান্য দেশের মধ্যে রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, মালয়েশিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং দক্ষিণ আফ্রিকা।

শিল্প সংশ্লিষ্টদের মতে, বাংলাদেশে হাইড্রোজেন পারক্সাইড উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো হলো সমুদা কেমিক্যাল কমপ্লেক্স, তাসনিম কেমিক্যাল কমপ্লেক্স, এসএম কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ, এইচপি কেমিক্যালস লিমিটেড, ইনফেনিয়া কেমিক্যাল এবং আল-রাজি কেমিক্যাল কমপ্লেক্স।

ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জানান, বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডের পর চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়িতে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে হাইড্রোজেন পারক্সাইড ছিল। বিএম কন্টেইনার ডিপো স্মার্ট গ্রুপের মালিকানাধীন। আল-রাজি কেমিক্যাল কমপ্লেক্স গ্রুপের একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড একটি রাসায়নিক যৌগ। যদি এটি উত্তপ্ত হয়, হাইড্রোজেন পারক্সাইড তাপ পচনে বিস্ফোরক হিসেবে কাজ করে।

ভারত ও পাকিস্তান বাংলাদেশ থেকে আমদানি করা হাইড্রোজেন পারক্সাইডের ওপর অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করেছে। মার্চ 2016 সালে, পাকিস্তান ট্যারিফ কমিশন বাংলাদেশী হাইড্রোজেন পারক্সাইডের উপর 12 শতাংশ অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে। তারপর 2016 সালে, ভারতও বাংলাদেশী হাইড্রোজেন পারক্সাইড আমদানিতে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে।

কোনো কোম্পানি তার নিজের দেশে বিক্রয়মূল্যের চেয়ে কম দামে রপ্তানি করলে আমদানিকারক দেশ সেটিকে ডাম্পিং হিসেবে বিবেচনা করতে পারে। বিপরীতে, অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করা যেতে পারে।

সমুদা কেমিক্যালসের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আকরামুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, ভারত ও পাকিস্তান অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপের পর রপ্তানিকারকরা নতুন বাজার খুঁজতে শুরু করেছে। এখন নতুন বাজারে পণ্য রপ্তানি হচ্ছে।

সরকার হাইড্রোজেন পারক্সাইড রপ্তানিতে ১০ শতাংশ ভর্তুকি দেয়। মানে ১০০ টাকা রপ্তানি করলে সরকারের কাছ থেকে ১০ টাকা পাবেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন