১০:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

শ্রীলঙ্কা দেউলিয়া হতে পারে: কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০১:২০:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ জুলাই ২০২২
  • / ৬৭৮ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতি দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। দেশে এখন কার্যত কোনো সরকার নেই। এই বাস্তবতায়, দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর নন্দলাল বিক্রমাসিংহে সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে দেশে স্থিতিশীল সরকার না থাকলে পুরো শ্রীলঙ্কা বন্ধ বা বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

কিন্তু এই মুহূর্তে বিরাট অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে শ্রীলঙ্কা। বৈদেশিক মুদ্রা সংকটের কারণে পেট্রোলের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনা সম্ভব হবে কি না তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে। আবারও দেশটি আইএমএফের কাছে বেইল আউট চাইছে। কিন্তু দেশে শক্তিশালী সরকার না থাকলে সেই আলোচনা কতটা আলোর মুখ দেখবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে। বিবিসি খবর

অর্থনৈতিক সংকটের কারণে জনগণের বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে। এরপর ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব নেন রনিল বিক্রমাসিংহে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তিনি কারফিউ জারি করেন এবং সেনাবাহিনীকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব দেন। তবে শ্রীলঙ্কার অনেকেই মনে করছেন, বর্তমান এই সংকটে রনিল বিক্রমাসিংহেরও হাত রয়েছে। ফলে অনেকেই তার পদত্যাগ দাবি করছেন।

শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি কার্যত ভেঙে পড়েছে। খাদ্য, জ্বালানি ও অন্যান্য মৌলিক পণ্যের দাম আকাশচুম্বী হয়েছে।

নন্দলাল বিক্রমাসিংহেও চলতি বছরের এপ্রিলে দায়িত্ব নেন। তিনি বিবিসিকে বলেছেন যে স্থিতিশীল সরকার ছাড়া কীভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের সরবরাহ নিশ্চিত করা যায় তার কোনও উপায় তিনি দেখছেন না। তিনি বলেন, “আমরা তিনটি ডিজেল জাহাজের জন্য অর্থায়ন করেছি, হয়তো ভবিষ্যতে আমরা আরও দুটি জাহাজের অর্থায়ন করতে পারব। কিন্তু এর পরে আমাদের পক্ষে কিছু করা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। আর যদি আমরা তা না করতে পারি, তাহলে পুরো দেশ পঙ্গু হয়ে যাবে। মোদ্দা কথা হলো, পুরো দেশ বন্ধ হয়ে যাবে। এর জন্য আমাদের এমন একজন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং মন্ত্রিসভা দরকার যারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে… নইলে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।”

আকাশছোঁয়া পণ্যের দাম

দুর্বল অর্থনৈতিক অবস্থার চাপে ভুগছে শ্রীলঙ্কায় আলুর দাম প্রতি কেজি ৪৩০ শ্রীলঙ্কা রুপি। সে দেশের মানুষকে এই বিপুল দাম দিয়ে খাদ্যশস্য ও সবজি কিনতে হচ্ছে। আগের দামের তুলনায় বর্তমান দাম অনেক বেশি।

2019 সালের নভেম্বরে, মাত্র আড়াই বছরে বিভিন্ন পণ্যের দাম আকাশচুম্বী হয়েছে। তবে ডালের দাম সবচেয়ে বেশি বেড়েছে প্রায় ৪১৭ শতাংশ। এর আগে শ্রীলঙ্কার মুদ্রায় প্রতি কেজি ডালের দাম ছিল ১২০ টাকা। এখন তা বেড়ে হয়েছে Rs.620। আগে আলুর দাম ছিল ২৪০ টাকা, এখন ৭৯ শতাংশ বেড়ে ৪৩০ টাকা হয়েছে। দৈনিক চিনির দামও ব্যাপক হারে বেড়েছে। 100 টাকা বেড়ে এক ধাক্কায় প্রতি কেজি 340 টাকা হয়েছে। চালের দাম 90 থেকে 220 টাকায় 144 শতাংশ বেড়েছে। এ ছাড়া মাছ, কাঁচা মরিচ, নারকেল তেল, নারকেলসহ বেশ কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে। তবে আগের তুলনায় কমেছে লাল পেঁয়াজের দাম।

শ্রীলঙ্কার মানুষ অর্থনৈতিক মন্দার সঙ্গে লড়াই করছে। সে দেশের বাসিন্দাদের মধ্যে প্রচণ্ড ক্ষোভের আগুন জ্বলছিল। সম্প্রতি তা দাবানলে পরিণত হয়েছে। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপাকসে জনগণের বিক্ষোভে আত্মসমর্পণ করে ইতিমধ্যে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। দেশ ছাড়ার পর তিনি ই-মেইলে পদত্যাগপত্র পাঠান।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

শ্রীলঙ্কা দেউলিয়া হতে পারে: কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর

আপডেট সময় ০১:২০:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৬ জুলাই ২০২২

শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতি দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। দেশে এখন কার্যত কোনো সরকার নেই। এই বাস্তবতায়, দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর নন্দলাল বিক্রমাসিংহে সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে দেশে স্থিতিশীল সরকার না থাকলে পুরো শ্রীলঙ্কা বন্ধ বা বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

কিন্তু এই মুহূর্তে বিরাট অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে শ্রীলঙ্কা। বৈদেশিক মুদ্রা সংকটের কারণে পেট্রোলের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনা সম্ভব হবে কি না তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে। আবারও দেশটি আইএমএফের কাছে বেইল আউট চাইছে। কিন্তু দেশে শক্তিশালী সরকার না থাকলে সেই আলোচনা কতটা আলোর মুখ দেখবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে। বিবিসি খবর

অর্থনৈতিক সংকটের কারণে জনগণের বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন শ্রীলঙ্কার সাবেক প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে। এরপর ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব নেন রনিল বিক্রমাসিংহে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তিনি কারফিউ জারি করেন এবং সেনাবাহিনীকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব দেন। তবে শ্রীলঙ্কার অনেকেই মনে করছেন, বর্তমান এই সংকটে রনিল বিক্রমাসিংহেরও হাত রয়েছে। ফলে অনেকেই তার পদত্যাগ দাবি করছেন।

শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি কার্যত ভেঙে পড়েছে। খাদ্য, জ্বালানি ও অন্যান্য মৌলিক পণ্যের দাম আকাশচুম্বী হয়েছে।

নন্দলাল বিক্রমাসিংহেও চলতি বছরের এপ্রিলে দায়িত্ব নেন। তিনি বিবিসিকে বলেছেন যে স্থিতিশীল সরকার ছাড়া কীভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের সরবরাহ নিশ্চিত করা যায় তার কোনও উপায় তিনি দেখছেন না। তিনি বলেন, “আমরা তিনটি ডিজেল জাহাজের জন্য অর্থায়ন করেছি, হয়তো ভবিষ্যতে আমরা আরও দুটি জাহাজের অর্থায়ন করতে পারব। কিন্তু এর পরে আমাদের পক্ষে কিছু করা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। আর যদি আমরা তা না করতে পারি, তাহলে পুরো দেশ পঙ্গু হয়ে যাবে। মোদ্দা কথা হলো, পুরো দেশ বন্ধ হয়ে যাবে। এর জন্য আমাদের এমন একজন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং মন্ত্রিসভা দরকার যারা সিদ্ধান্ত নিতে পারে… নইলে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।”

আকাশছোঁয়া পণ্যের দাম

দুর্বল অর্থনৈতিক অবস্থার চাপে ভুগছে শ্রীলঙ্কায় আলুর দাম প্রতি কেজি ৪৩০ শ্রীলঙ্কা রুপি। সে দেশের মানুষকে এই বিপুল দাম দিয়ে খাদ্যশস্য ও সবজি কিনতে হচ্ছে। আগের দামের তুলনায় বর্তমান দাম অনেক বেশি।

2019 সালের নভেম্বরে, মাত্র আড়াই বছরে বিভিন্ন পণ্যের দাম আকাশচুম্বী হয়েছে। তবে ডালের দাম সবচেয়ে বেশি বেড়েছে প্রায় ৪১৭ শতাংশ। এর আগে শ্রীলঙ্কার মুদ্রায় প্রতি কেজি ডালের দাম ছিল ১২০ টাকা। এখন তা বেড়ে হয়েছে Rs.620। আগে আলুর দাম ছিল ২৪০ টাকা, এখন ৭৯ শতাংশ বেড়ে ৪৩০ টাকা হয়েছে। দৈনিক চিনির দামও ব্যাপক হারে বেড়েছে। 100 টাকা বেড়ে এক ধাক্কায় প্রতি কেজি 340 টাকা হয়েছে। চালের দাম 90 থেকে 220 টাকায় 144 শতাংশ বেড়েছে। এ ছাড়া মাছ, কাঁচা মরিচ, নারকেল তেল, নারকেলসহ বেশ কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে। তবে আগের তুলনায় কমেছে লাল পেঁয়াজের দাম।

শ্রীলঙ্কার মানুষ অর্থনৈতিক মন্দার সঙ্গে লড়াই করছে। সে দেশের বাসিন্দাদের মধ্যে প্রচণ্ড ক্ষোভের আগুন জ্বলছিল। সম্প্রতি তা দাবানলে পরিণত হয়েছে। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপাকসে জনগণের বিক্ষোভে আত্মসমর্পণ করে ইতিমধ্যে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। দেশ ছাড়ার পর তিনি ই-মেইলে পদত্যাগপত্র পাঠান।