০৭:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে ১৫ মিনিটের মধ্যে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১১:০০:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৪ জুন ২০২২
  • / ১২৫৪ বার পড়া হয়েছে

Bd Open News

২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে শনিবারও কোনো বাধা ছাড়াই ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পেরেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে শিক্ষার্থীদের মঙ্গল কামনা করে ১৫ মিনিটের মধ্যে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন তারা।

১২ দিন ক্যাম্পাস থেকে ‘বহিষ্কার’ হওয়ার পর শুক্রবার ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে কোনো বাধা ছাড়াই ক্যাম্পাসের আইন অনুষদের সামনে পরীক্ষার্থীদের বরণ করে নেয় ছাত্রদল।

গতকালের মতো আজও ছাত্রদলের প্রবেশ ঠেকাতে ছাত্রলীগের কোনো অবস্থান বা মহড়া দেখা যায়নি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ভর্তি হতে চাওয়া শিক্ষার্থীদের সমর্থনে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে ছিলেন গতকালের মতো সেখানে। ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বিপ্লবী ছাত্র জোট, ছাত্র ফেডারেশন, ছাত্র অধিকার পরিষদ সহ বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন এবং জেলা-উপজেলা ভিত্তিক সংগঠনের উচ্চাকাঙ্ক্ষী শিক্ষার্থীদের সমর্থনে আজ ক্যাম্পাসে বিভিন্ন কর্মসূচি ছিল।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুপুর ১২টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলের বিপরীতে অবস্থিত বাংলাদেশ শিশু একাডেমির গেটে ছাত্রদলের একদল নেতাকর্মী ভর্তি হতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানাতে জড়ো হন। পরীক্ষা শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট আগে তারা শিশু একাডেমির সামনে থেকে কার্জন হলের সামনের দরজা পর্যন্ত মিছিল করে।

ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা সুগন্ধি ফুল নিয়ে দুই সারিতে দাঁড়িয়েছিলেন। পরীক্ষা শেষে ছাত্রদলের ব্যানারে গেট থেকে বের হওয়া শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেন তারা। বেলা ১২টা ৪০ মিনিটে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা যথারীতি চলে যান।

গত ২২ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদের দেওয়া বক্তব্যের পর ছাত্রদলের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয় ছাত্রলীগ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রবেশের সময় বারবার হামলার শিকার হন শিক্ষার্থীরা। ২ জুন পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্রদল ঢুকতে পারেনি ক্যাম্পাস থেকে কার্যত বহিষ্কার। গতকাল ‘সি’ ইউনিট এবং আজ ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে তারা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেছে।

‘খ’ ইউনিটের আজকের পরীক্ষা কেন্দ্র নিয়ে কোনো অপ্রীতিকর খবর পাওয়া যায়নি। দেশের আটটি বিভাগের প্রধান বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিয়েছে ঢাকা বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এবার ‘বি’ ইউনিটে ১ হাজার ৬৬টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ৫৬ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী। সে হিসেবে প্রতি আসনে লড়েছেন ৩৩ জন। তবে কতজন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল তার সঠিক সংখ্যা এখনো জানা যায়নি। তবে দুই দিনেই ১৫ মিনিটের মধ্যে অনুষ্ঠান শেষ করে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন তারা। গতকালের মতো কোনো স্লোগান দেননি ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

বি ইউনিটের পরীক্ষা চলাকালে সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন উপাচার্য। আখতারুজ্জামানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, বিভাগীয় শহরের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন উপাচার্য।

সেখানেও একটি নির্দিষ্ট সময়ে এবং নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। কলাভবনে পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপকালে উপাচার্য বলেন, পরীক্ষার সার্বিক পরিবেশ এবং প্রশ্নের মান ও ব্যবস্থাপনায় তারা সন্তুষ্ট।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে ১৫ মিনিটের মধ্যে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন শিক্ষার্থীরা

আপডেট সময় ১১:০০:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৪ জুন ২০২২

২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে শনিবারও কোনো বাধা ছাড়াই ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পেরেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তবে শিক্ষার্থীদের মঙ্গল কামনা করে ১৫ মিনিটের মধ্যে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন তারা।

১২ দিন ক্যাম্পাস থেকে ‘বহিষ্কার’ হওয়ার পর শুক্রবার ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে কোনো বাধা ছাড়াই ক্যাম্পাসের আইন অনুষদের সামনে পরীক্ষার্থীদের বরণ করে নেয় ছাত্রদল।

গতকালের মতো আজও ছাত্রদলের প্রবেশ ঠেকাতে ছাত্রলীগের কোনো অবস্থান বা মহড়া দেখা যায়নি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ভর্তি হতে চাওয়া শিক্ষার্থীদের সমর্থনে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে ছিলেন গতকালের মতো সেখানে। ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বিপ্লবী ছাত্র জোট, ছাত্র ফেডারেশন, ছাত্র অধিকার পরিষদ সহ বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন এবং জেলা-উপজেলা ভিত্তিক সংগঠনের উচ্চাকাঙ্ক্ষী শিক্ষার্থীদের সমর্থনে আজ ক্যাম্পাসে বিভিন্ন কর্মসূচি ছিল।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে দুপুর ১২টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলের বিপরীতে অবস্থিত বাংলাদেশ শিশু একাডেমির গেটে ছাত্রদলের একদল নেতাকর্মী ভর্তি হতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানাতে জড়ো হন। পরীক্ষা শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট আগে তারা শিশু একাডেমির সামনে থেকে কার্জন হলের সামনের দরজা পর্যন্ত মিছিল করে।

ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা সুগন্ধি ফুল নিয়ে দুই সারিতে দাঁড়িয়েছিলেন। পরীক্ষা শেষে ছাত্রদলের ব্যানারে গেট থেকে বের হওয়া শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেন তারা। বেলা ১২টা ৪০ মিনিটে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা যথারীতি চলে যান।

গত ২২ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদের দেওয়া বক্তব্যের পর ছাত্রদলের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয় ছাত্রলীগ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রবেশের সময় বারবার হামলার শিকার হন শিক্ষার্থীরা। ২ জুন পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্রদল ঢুকতে পারেনি ক্যাম্পাস থেকে কার্যত বহিষ্কার। গতকাল ‘সি’ ইউনিট এবং আজ ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে তারা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেছে।

‘খ’ ইউনিটের আজকের পরীক্ষা কেন্দ্র নিয়ে কোনো অপ্রীতিকর খবর পাওয়া যায়নি। দেশের আটটি বিভাগের প্রধান বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিয়েছে ঢাকা বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এবার ‘বি’ ইউনিটে ১ হাজার ৬৬টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেছে ৫৬ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী। সে হিসেবে প্রতি আসনে লড়েছেন ৩৩ জন। তবে কতজন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল তার সঠিক সংখ্যা এখনো জানা যায়নি। তবে দুই দিনেই ১৫ মিনিটের মধ্যে অনুষ্ঠান শেষ করে ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন তারা। গতকালের মতো কোনো স্লোগান দেননি ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

বি ইউনিটের পরীক্ষা চলাকালে সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনের পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন উপাচার্য। আখতারুজ্জামানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেন, বিভাগীয় শহরের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন উপাচার্য।

সেখানেও একটি নির্দিষ্ট সময়ে এবং নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। কলাভবনে পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে আলাপকালে উপাচার্য বলেন, পরীক্ষার সার্বিক পরিবেশ এবং প্রশ্নের মান ও ব্যবস্থাপনায় তারা সন্তুষ্ট।