০৪:১৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

শিক্ষক হিসেবে এটা আমার দায়িত্ব

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৩৯:৫৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ জুন ২০২২
  • / ১১৪২ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

২০১৬ সালের ৩ জুলাই দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে নীরব প্রতিবাদের ডাক দিয়েছিলাম। আমার প্রিয় ক্যাম্পাস, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, যখন কোটা সংস্কার আন্দোলনে যোগদানের অপরাধে একজন নিরীহ সাধারণ ছাত্র তরিকুলকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে কোমরের হাড় ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছিল, তখন মতিহারের সবুজ চত্বর রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল। তাই সকল ভয় ও বাধা অতিক্রম করে সেদিন খালি পায়ে সেই নীরব প্রতিবাদের ডাক দিয়েছিলাম। দেশের অনেক পত্রিকাই সেদিন নিয়ে সোচ্চার ছিল। অনেকেই কলাম লিখেছেন। তাদের মধ্যে ছিলেন লন্ডনের সাংবাদিক কামাল আহমেদ এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রয়াত অধ্যাপক তারেক শামসুর রহমান। সবার এই সম্মিলিত কণ্ঠে সেবা হিসেবে ছাত্রলীগকে বন্ধ করা গেলেও বাস্তবে তারা বিন্দুমাত্র থেমে থাকেনি; বরং দিন দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আবরার হত্যাসহ অসংখ্য ঘটনা এর সাক্ষ্য বহন করছে।

আবার মনে হচ্ছে আমাদের সোচ্চার হওয়ার সময় এসেছে। স্বাধীন সার্বভৌম দেশে যে কোনো ছাত্র সংগঠন ক্যাম্পাসে যা খুশি তাই করতে পারে, সেখানে কোনো প্রতিবাদ হবে না, কোনো প্রতিকার হবে না, তা হতে পারে না।

সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্ষমতাসীন দলের এই ছাত্র সংগঠনটি আবাসিক হলের আসন-বাণিজ্য নিয়ে চরম নৈরাজ্য চালাচ্ছে। একের পর এক সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালিয়ে হল থেকে বের করে দিচ্ছে। গত মাসে, আমার বিভাগের একজন ছাত্র তার রুম থেকে একটি বিছানার চাদর নামিয়ে অন্য ছাত্রের হাতে দিয়েছিল। তার আগে আরেক ছাত্রের সঙ্গেও একই ঘটনা ঘটেছে। জাতীয় পত্র-পত্রিকা ও গণমাধ্যমে এসব ঘটনা বিস্তারিতভাবে প্রকাশিত হয়েছে। প্রশাসন কখনো কখনো সংক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীকে অন্য কক্ষে নিয়ে যায়। পৃথিবীর কোনো সভ্য সমাজে এমন নৈরাজ্য, এমন অভদ্রতা আছে কিনা আমার জানা নেই।

কয়েকদিন আগে শেষ বর্ষের এক ছাত্র এসে বলল, তার খুব মন খারাপ। অনেক সময় পরীক্ষার সময় হলের জুনিয়ররা এসে খোঁজ নিতো কখন পরীক্ষা শেষ হবে। পরীক্ষা শেষ হওয়ার সাথে সাথে তারা সেখানে একজনকে তুলে নেবে। একবার এক ছাত্র এসে বলল, স্যার, হল বসানো হয়েছে, কিন্তু আমার রুমের সিট দখল, আমাকে উঠতে দিচ্ছেন না। আমি হলের মাথায় যাওয়ার পরামর্শ দিলাম। কয়েকদিন পর তিনি এলে বললেন, “তোমাকে সিট দেওয়া আমার দায়িত্ব ছিল, এখন উঠার দায়িত্ব তোমার। কিন্তু হল প্রশাসন এ ক্ষেত্রে আমার কাছে খুবই অসহায় বলে মনে হয়েছে এবং কিছু কিছুর আশ্রয় নিয়েছে। পরিহার.

এই সব দেখে আমার খুব কষ্ট হচ্ছে। নিজের কাছে অসহায় লাগছে। আমি গত ৪ জুন ফেসবুকে লিখেছিলাম, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে যে সিট-বাণিজ্য চলছে তার প্রতিবাদে এবং শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ে সাধারণ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনশনে যাব! এই পোস্টে এক ব্যক্তি লিখেছেন, ‘আমি পাপের জন্ম এই দেশে জন্মেছি। এর বেশি কিছু বলার সুযোগ নেই স্যার। বাবা-মা অনেক আশা নিয়ে পাঠিয়েছেন, লাশ হয়ে ফিরতে চান না স্যার। তাই একজন সাধারণ ছাত্র হিসেবে সব কিছু সহ্য করা ছাড়া আর কিছুই করার নেই। ‘

(সবাই নয়) দোষারোপ। তার মতে, যাদের (শিক্ষক) নীতিতে অটল থাকার কথা, তারাই আজ নোংরা রাজনীতির কাছে সবকিছু বিক্রি করে দিয়েছে। এক ছাত্রী বলেন, ‘আগেও শুনেছি ভালো ফলাফলকারীদের জন্য সিঙ্গেল রুম বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু ক্যাম্পাসে এসে দেখি উল্টো চিত্র। ‘

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, গণমাধ্যম ও ব্যক্তিগত আলাপচারিতার মাধ্যমে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়, হলের আসন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নৈরাজ্য চালিয়ে আসছে একটি ছাত্র সংগঠন। যারা এসব জঘন্য ও জঘন্য কাজের সাথে জড়িত, যারা সংগঠনের নামে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বঞ্চিত বা উচ্ছেদ করে তারাই তথাকথিত ছাত্র সন্ত্রাসী। ১৩ জুন, আমরা কয়েকজন শিক্ষক, দুজন অভিভাবক এবং কয়েকজন শিক্ষার্থী প্যারিস রোডে সিনেট ভবনের সামনে নৈরাজ্যের প্রতিবাদে দাঁড়িয়েছিলাম। ওইদিন মানববন্ধনে উপস্থিত দুই বীর মুক্তিযোদ্ধার অভিভাবকরা বলেন, ক্যাম্পাসের এই নৈরাজ্যে তারা খুবই লজ্জিত ও আহত। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও তারা একই পরিবেশ দেখছে। তারা আক্ষেপের সাথে বলেন, তারা কি এই বাংলাদেশ দেখতে চেয়েছিলেন?

আমার অনেক ছাত্র ছাত্রলীগ করে। তাদের মধ্যে দেখেছি মানবতা, দেখেছি বুদ্ধির চর্চা, দেখেছি দেশের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা। তবে তাদের মধ্যে একটি দুর্বৃত্ত শ্রেণী তৈরি হয়েছে সে বিষয়ে ছাত্রলীগকে সচেতন হতে হবে এবং এর দায় নিতে হবে। তাদের থামাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা পালনকারী বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠনের এই অবক্ষয় জাতির জন্য দুঃখজনক এবং নিঃসন্দেহে হতাশার।

এটা তাকে ডাম্প এবং এগিয়ে যাওয়ার সময়. একজন শিক্ষক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবাসিক হলে সিট বাণিজ্য বন্ধ করার দায়িত্ব আমার। দায়বদ্ধতা ছাত্র, অভিভাবক এবং সমাজের সকলের।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

শিক্ষক হিসেবে এটা আমার দায়িত্ব

আপডেট সময় ০২:৩৯:৫৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ জুন ২০২২

২০১৬ সালের ৩ জুলাই দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা ও লাঞ্ছনার প্রতিবাদে নীরব প্রতিবাদের ডাক দিয়েছিলাম। আমার প্রিয় ক্যাম্পাস, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, যখন কোটা সংস্কার আন্দোলনে যোগদানের অপরাধে একজন নিরীহ সাধারণ ছাত্র তরিকুলকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে কোমরের হাড় ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছিল, তখন মতিহারের সবুজ চত্বর রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল। তাই সকল ভয় ও বাধা অতিক্রম করে সেদিন খালি পায়ে সেই নীরব প্রতিবাদের ডাক দিয়েছিলাম। দেশের অনেক পত্রিকাই সেদিন নিয়ে সোচ্চার ছিল। অনেকেই কলাম লিখেছেন। তাদের মধ্যে ছিলেন লন্ডনের সাংবাদিক কামাল আহমেদ এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রয়াত অধ্যাপক তারেক শামসুর রহমান। সবার এই সম্মিলিত কণ্ঠে সেবা হিসেবে ছাত্রলীগকে বন্ধ করা গেলেও বাস্তবে তারা বিন্দুমাত্র থেমে থাকেনি; বরং দিন দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আবরার হত্যাসহ অসংখ্য ঘটনা এর সাক্ষ্য বহন করছে।

আবার মনে হচ্ছে আমাদের সোচ্চার হওয়ার সময় এসেছে। স্বাধীন সার্বভৌম দেশে যে কোনো ছাত্র সংগঠন ক্যাম্পাসে যা খুশি তাই করতে পারে, সেখানে কোনো প্রতিবাদ হবে না, কোনো প্রতিকার হবে না, তা হতে পারে না।

সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্ষমতাসীন দলের এই ছাত্র সংগঠনটি আবাসিক হলের আসন-বাণিজ্য নিয়ে চরম নৈরাজ্য চালাচ্ছে। একের পর এক সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালিয়ে হল থেকে বের করে দিচ্ছে। গত মাসে, আমার বিভাগের একজন ছাত্র তার রুম থেকে একটি বিছানার চাদর নামিয়ে অন্য ছাত্রের হাতে দিয়েছিল। তার আগে আরেক ছাত্রের সঙ্গেও একই ঘটনা ঘটেছে। জাতীয় পত্র-পত্রিকা ও গণমাধ্যমে এসব ঘটনা বিস্তারিতভাবে প্রকাশিত হয়েছে। প্রশাসন কখনো কখনো সংক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীকে অন্য কক্ষে নিয়ে যায়। পৃথিবীর কোনো সভ্য সমাজে এমন নৈরাজ্য, এমন অভদ্রতা আছে কিনা আমার জানা নেই।

কয়েকদিন আগে শেষ বর্ষের এক ছাত্র এসে বলল, তার খুব মন খারাপ। অনেক সময় পরীক্ষার সময় হলের জুনিয়ররা এসে খোঁজ নিতো কখন পরীক্ষা শেষ হবে। পরীক্ষা শেষ হওয়ার সাথে সাথে তারা সেখানে একজনকে তুলে নেবে। একবার এক ছাত্র এসে বলল, স্যার, হল বসানো হয়েছে, কিন্তু আমার রুমের সিট দখল, আমাকে উঠতে দিচ্ছেন না। আমি হলের মাথায় যাওয়ার পরামর্শ দিলাম। কয়েকদিন পর তিনি এলে বললেন, “তোমাকে সিট দেওয়া আমার দায়িত্ব ছিল, এখন উঠার দায়িত্ব তোমার। কিন্তু হল প্রশাসন এ ক্ষেত্রে আমার কাছে খুবই অসহায় বলে মনে হয়েছে এবং কিছু কিছুর আশ্রয় নিয়েছে। পরিহার.

এই সব দেখে আমার খুব কষ্ট হচ্ছে। নিজের কাছে অসহায় লাগছে। আমি গত ৪ জুন ফেসবুকে লিখেছিলাম, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে যে সিট-বাণিজ্য চলছে তার প্রতিবাদে এবং শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ে সাধারণ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনশনে যাব! এই পোস্টে এক ব্যক্তি লিখেছেন, ‘আমি পাপের জন্ম এই দেশে জন্মেছি। এর বেশি কিছু বলার সুযোগ নেই স্যার। বাবা-মা অনেক আশা নিয়ে পাঠিয়েছেন, লাশ হয়ে ফিরতে চান না স্যার। তাই একজন সাধারণ ছাত্র হিসেবে সব কিছু সহ্য করা ছাড়া আর কিছুই করার নেই। ‘

(সবাই নয়) দোষারোপ। তার মতে, যাদের (শিক্ষক) নীতিতে অটল থাকার কথা, তারাই আজ নোংরা রাজনীতির কাছে সবকিছু বিক্রি করে দিয়েছে। এক ছাত্রী বলেন, ‘আগেও শুনেছি ভালো ফলাফলকারীদের জন্য সিঙ্গেল রুম বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু ক্যাম্পাসে এসে দেখি উল্টো চিত্র। ‘

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, গণমাধ্যম ও ব্যক্তিগত আলাপচারিতার মাধ্যমে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়, হলের আসন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নৈরাজ্য চালিয়ে আসছে একটি ছাত্র সংগঠন। যারা এসব জঘন্য ও জঘন্য কাজের সাথে জড়িত, যারা সংগঠনের নামে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বঞ্চিত বা উচ্ছেদ করে তারাই তথাকথিত ছাত্র সন্ত্রাসী। ১৩ জুন, আমরা কয়েকজন শিক্ষক, দুজন অভিভাবক এবং কয়েকজন শিক্ষার্থী প্যারিস রোডে সিনেট ভবনের সামনে নৈরাজ্যের প্রতিবাদে দাঁড়িয়েছিলাম। ওইদিন মানববন্ধনে উপস্থিত দুই বীর মুক্তিযোদ্ধার অভিভাবকরা বলেন, ক্যাম্পাসের এই নৈরাজ্যে তারা খুবই লজ্জিত ও আহত। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও তারা একই পরিবেশ দেখছে। তারা আক্ষেপের সাথে বলেন, তারা কি এই বাংলাদেশ দেখতে চেয়েছিলেন?

আমার অনেক ছাত্র ছাত্রলীগ করে। তাদের মধ্যে দেখেছি মানবতা, দেখেছি বুদ্ধির চর্চা, দেখেছি দেশের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা। তবে তাদের মধ্যে একটি দুর্বৃত্ত শ্রেণী তৈরি হয়েছে সে বিষয়ে ছাত্রলীগকে সচেতন হতে হবে এবং এর দায় নিতে হবে। তাদের থামাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা পালনকারী বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠনের এই অবক্ষয় জাতির জন্য দুঃখজনক এবং নিঃসন্দেহে হতাশার।

এটা তাকে ডাম্প এবং এগিয়ে যাওয়ার সময়. একজন শিক্ষক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে আবাসিক হলে সিট বাণিজ্য বন্ধ করার দায়িত্ব আমার। দায়বদ্ধতা ছাত্র, অভিভাবক এবং সমাজের সকলের।