০২:০৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

রোগী শনাক্তকরণ ও শনাক্তকরণের হার কমে যাওয়ায় করোনায় মৃতের সংখ্যা কমে ৭ এ দাঁড়িয়েছে।

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১২:০৩:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২
  • / ৪৩২ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দেশে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় ১ হাজার ১০৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর আগের দিন করোনায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। আর করোনা শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৬৯৮ জন।

টানা চার দিন দৈনিক দুই হাজারের ওপরে শনাক্ত হওয়ার পর গত দুই দিন ধরে শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের নিচে। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা তুলনামূলকভাবে কম হয়েছে।

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে ৬ হাজার ১৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষার বিপরীতে, রোগী সনাক্তকরণের হার 13.22 শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল 15.31।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি দেশে করোনা শনাক্তের হার ছিল ১০-এর ওপরে। তারপর শনাক্তের হার ক্রমশ কমছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নিহত ছয়জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের তিনজন, চট্টগ্রাম বিভাগের দুজন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের একজন।

২০২০ সালের ৬ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর থেকে দেশে করোনা সংক্রমণের চিত্র বেশ কয়েকবার ওঠানামা করেছে।

প্রায় সাড়ে তিন মাস করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকার পর গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। নতুন ধরনের করোনা অ্যামোনিয়ার প্রভাবে রোগী শনাক্তকরণ ও শনাক্তকরণের হার দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি থেকে নিয়মিত রোগী শনাক্তকরণ ও শনাক্তকরণের হার কমেছে। দেশে সংক্রমণের সংখ্যা কমে যাওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। রাজ্যাভিষেকের বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়। 25 মার্চ থেকে 12 জুন পর্যন্ত, প্রতিদিন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল 100 এর নিচে। তারপর থেকে তা বেড়েছে।

সংক্রমণের শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশে ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৬ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৮ হাজার ৯৯০ জন। আর মারা গেছেন ২৯ হাজার ১৬০ জন।

দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সর্বত্র মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। মাস্ক না পরলে শাস্তি পেতে হবে বলে সতর্ক করা হয়েছে। করোনা সংক্রান্ত সরকারের জাতীয় কারিগরি উপদেষ্টা কমিটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং জনসমাগম বয়কট করার পরামর্শ দিয়েছে। এছাড়াও, উপাসনালয় (যেমন মসজিদ, মন্দির, গীর্জা ইত্যাদি) সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

রোগী শনাক্তকরণ ও শনাক্তকরণের হার কমে যাওয়ায় করোনায় মৃতের সংখ্যা কমে ৭ এ দাঁড়িয়েছে।

আপডেট সময় ১২:০৩:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

দেশে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় ১ হাজার ১০৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর আগের দিন করোনায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। আর করোনা শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৬৯৮ জন।

টানা চার দিন দৈনিক দুই হাজারের ওপরে শনাক্ত হওয়ার পর গত দুই দিন ধরে শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের নিচে। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা তুলনামূলকভাবে কম হয়েছে।

আজ বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে ৬ হাজার ১৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষার বিপরীতে, রোগী সনাক্তকরণের হার 13.22 শতাংশ। আগের দিন এই হার ছিল 15.31।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি দেশে করোনা শনাক্তের হার ছিল ১০-এর ওপরে। তারপর শনাক্তের হার ক্রমশ কমছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নিহত ছয়জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের তিনজন, চট্টগ্রাম বিভাগের দুজন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের একজন।

২০২০ সালের ৬ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর থেকে দেশে করোনা সংক্রমণের চিত্র বেশ কয়েকবার ওঠানামা করেছে।

প্রায় সাড়ে তিন মাস করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকার পর গত বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। নতুন ধরনের করোনা অ্যামোনিয়ার প্রভাবে রোগী শনাক্তকরণ ও শনাক্তকরণের হার দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি থেকে নিয়মিত রোগী শনাক্তকরণ ও শনাক্তকরণের হার কমেছে। দেশে সংক্রমণের সংখ্যা কমে যাওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে। রাজ্যাভিষেকের বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়। 25 মার্চ থেকে 12 জুন পর্যন্ত, প্রতিদিন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল 100 এর নিচে। তারপর থেকে তা বেড়েছে।

সংক্রমণের শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশে ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৬ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৮ হাজার ৯৯০ জন। আর মারা গেছেন ২৯ হাজার ১৬০ জন।

দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সর্বত্র মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। মাস্ক না পরলে শাস্তি পেতে হবে বলে সতর্ক করা হয়েছে। করোনা সংক্রান্ত সরকারের জাতীয় কারিগরি উপদেষ্টা কমিটি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং জনসমাগম বয়কট করার পরামর্শ দিয়েছে। এছাড়াও, উপাসনালয় (যেমন মসজিদ, মন্দির, গীর্জা ইত্যাদি) সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে।