১১:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

রিক্রুটিং এজেন্সির আড়ালে নারীদের পাচার করা হচ্ছিল

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৫৪:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ অগাস্ট ২০২২
  • / ১১৩৮ বার পড়া হয়েছে

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে নারী পাচারের অভিযোগে রাজধানীর পল্টন থেকে দুইজনকে আটক করেছে র‌্যাব। তাদের একজন, আবুল হোসেন (54), একটি রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক। র‌্যাব বলছে, এই বৈধ ব্যবসার আড়ালে সে দরিদ্র পরিবারের বেকার, স্বল্প শিক্ষিত, দরিদ্র ও তালাকপ্রাপ্ত নারীদের বিদেশে পাচার করত। আবুল হোসেনের সঙ্গে মোছা. আলেয়া বেগম (৫০) নামে এক নারীকে আটক করা হয়েছে। বিদেশে ভালো চাকরির কথা বলে নারীদের এই রিক্রুটিং এজেন্সিতে নিয়ে আসতেন। র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুল্লাহ আল-মোমেন জানান, তার মতো আরও অনেকে দালালের কাজ করত।

সোমবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। র‌্যাব কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল-মোমেন জানান, রোববার পল্টনে কনকর্ড অ্যাপেক্স রিক্রুটিং এজেন্সির কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে আবুল ও আলেয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৩১টি পাসপোর্ট, ২টি মোবাইল ফোন ও ৩টি সিমকার্ড উদ্ধার করা হয়। সেখান থেকে চোরাচালানের জন্য আনা তিন নারীকেও উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বিদেশে পাচারের পর নারীদের প্রথমে জানালাবিহীন কক্ষে আটকে রাখে এই পাচারকারী চক্রের সদস্যরা। এরপর তাদের বিভিন্ন বাড়িতে কাজের জন্য পাঠানো হয়। কাজ করলেও সেখানে তাদের ঠিকমতো খাবার দেওয়া হতো না। কখনও কখনও অবশিষ্টাংশ খেতে দেওয়া হত। কারণ ছাড়াই মারধর ও শারীরিক নির্যাতন করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রিক্রুটিং এজেন্সির আড়ালে নারীদের পাচার করা হচ্ছিল

আপডেট সময় ০৩:৫৪:৪২ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ অগাস্ট ২০২২

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে নারী পাচারের অভিযোগে রাজধানীর পল্টন থেকে দুইজনকে আটক করেছে র‌্যাব। তাদের একজন, আবুল হোসেন (54), একটি রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক। র‌্যাব বলছে, এই বৈধ ব্যবসার আড়ালে সে দরিদ্র পরিবারের বেকার, স্বল্প শিক্ষিত, দরিদ্র ও তালাকপ্রাপ্ত নারীদের বিদেশে পাচার করত। আবুল হোসেনের সঙ্গে মোছা. আলেয়া বেগম (৫০) নামে এক নারীকে আটক করা হয়েছে। বিদেশে ভালো চাকরির কথা বলে নারীদের এই রিক্রুটিং এজেন্সিতে নিয়ে আসতেন। র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবদুল্লাহ আল-মোমেন জানান, তার মতো আরও অনেকে দালালের কাজ করত।

সোমবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। র‌্যাব কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল-মোমেন জানান, রোববার পল্টনে কনকর্ড অ্যাপেক্স রিক্রুটিং এজেন্সির কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে আবুল ও আলেয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৩১টি পাসপোর্ট, ২টি মোবাইল ফোন ও ৩টি সিমকার্ড উদ্ধার করা হয়। সেখান থেকে চোরাচালানের জন্য আনা তিন নারীকেও উদ্ধার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বিদেশে পাচারের পর নারীদের প্রথমে জানালাবিহীন কক্ষে আটকে রাখে এই পাচারকারী চক্রের সদস্যরা। এরপর তাদের বিভিন্ন বাড়িতে কাজের জন্য পাঠানো হয়। কাজ করলেও সেখানে তাদের ঠিকমতো খাবার দেওয়া হতো না। কখনও কখনও অবশিষ্টাংশ খেতে দেওয়া হত। কারণ ছাড়াই মারধর ও শারীরিক নির্যাতন করা হয়।