০৫:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪

রাশিয়ান তেলের নমুনা চট্টগ্রামে পৌঁছেছে, এখনও পরীক্ষা করা হয়নি

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:৪৫:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ অগাস্ট ২০২২
  • / ৬৩৭ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আমদানি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) তেলের গুণমান, উপযোগিতা, মূল্য, আমদানি ব্যয়সহ বিভিন্ন বিষয় যাচাই-বাছাই করছে। দুই দেশের প্রতিনিধি দলের মধ্যে কয়েক দফা বৈঠকে প্রাথমিক কিছু বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তেলের নমুনা পরীক্ষাগারে পৌঁছায়নি।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ ও বিপিসির একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে। তাদের তথ্য অনুযায়ী, রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেলের নমুনা ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরে এসেছে। সেখান থেকে নমুনা দেশের একমাত্র রাষ্ট্রায়ত্ত তেল শোধনাগার, ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড (ইআরএল) এ পরীক্ষা করা হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বন্দর থেকে রাশিয়ার কোনো তেলের নমুনা ছাড়া হয়নি।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, রাশিয়ার শীর্ষ তেল কোম্পানি রোসনেট পরিশোধিত তেল আনার প্রস্তাব দিলেও আসলে তা পুরোপুরি পরিশোধিত হয়নি। এটি ব্যবহারের জন্য আবার শুদ্ধ করা আবশ্যক। নমুনা পরীক্ষার পর এটি নিশ্চিত করা যাবে। তারপর দাম ও অন্যান্য খরচ নিয়ে আলোচনা হবে।

এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ আজBD OPEN NEWS

কে বলেন, জ্বালানি তেল আনা নিয়ে আলোচনা চলছে। এখন পর্যন্ত BPC থেকে কোন রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। অনেক বিষয় বিবেচনা করেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড বর্তমানে সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আমদানি করা অপরিশোধিত তেল পরিশোধন করে ডিজেল, পেট্রল এবং অকটেন সহ বিভিন্ন ধরনের জ্বালানি। তাদের প্রতি বছর 1.5 মিলিয়ন টন তেল পরিশোধনের ক্ষমতা রয়েছে। এখান থেকে বছরে 600,000 টন ডিজেল পাওয়া যায়। আর দেশে ডিজেলের চাহিদা বছরে ৪৬ লাখ টন। মোট জ্বালানি চাহিদার প্রায় 75 শতাংশ ডিজেল। তাই কম দামে ডিজেল কিনতে আগ্রহী সরকার।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শুরু থেকেই বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে ভারত ও চীনসহ কয়েকটি দেশ রাশিয়ার কাছ থেকে কম দামে জ্বালানি তেল কিনতে শুরু করেছে। গত মে মাসে রাশিয়াও বাংলাদেশ থেকে অপরিশোধিত তেল কেনার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু বাংলাদেশের আগ্রহ পরিশোধিত জ্বালানি তেলে, যা মস্কো সম্প্রতি সরবরাহের প্রস্তাব দিয়েছে।

দুই BPC কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন যে রাশিয়ান জ্বালানী তেলের বৈশিষ্ট্যগুলি নির্দেশ করে যে এটি অভ্যন্তরীণ ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত নয়। এতে সালফারের পরিমাণ অনেক বেশি। তাই এটি ব্যবহার করার জন্য বিশুদ্ধ করা প্রয়োজন। এতে খরচ বাড়বে। নমুনা পরীক্ষার পর বিষয়টি পরিষ্কার হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাশিয়ান তেলের নমুনা চট্টগ্রামে পৌঁছেছে, এখনও পরীক্ষা করা হয়নি

আপডেট সময় ০৪:৪৫:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ অগাস্ট ২০২২

রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আমদানি এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) তেলের গুণমান, উপযোগিতা, মূল্য, আমদানি ব্যয়সহ বিভিন্ন বিষয় যাচাই-বাছাই করছে। দুই দেশের প্রতিনিধি দলের মধ্যে কয়েক দফা বৈঠকে প্রাথমিক কিছু বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তেলের নমুনা পরীক্ষাগারে পৌঁছায়নি।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ ও বিপিসির একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে। তাদের তথ্য অনুযায়ী, রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেলের নমুনা ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরে এসেছে। সেখান থেকে নমুনা দেশের একমাত্র রাষ্ট্রায়ত্ত তেল শোধনাগার, ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড (ইআরএল) এ পরীক্ষা করা হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত বন্দর থেকে রাশিয়ার কোনো তেলের নমুনা ছাড়া হয়নি।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, রাশিয়ার শীর্ষ তেল কোম্পানি রোসনেট পরিশোধিত তেল আনার প্রস্তাব দিলেও আসলে তা পুরোপুরি পরিশোধিত হয়নি। এটি ব্যবহারের জন্য আবার শুদ্ধ করা আবশ্যক। নমুনা পরীক্ষার পর এটি নিশ্চিত করা যাবে। তারপর দাম ও অন্যান্য খরচ নিয়ে আলোচনা হবে।

এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ আজBD OPEN NEWS

কে বলেন, জ্বালানি তেল আনা নিয়ে আলোচনা চলছে। এখন পর্যন্ত BPC থেকে কোন রিপোর্ট পাওয়া যায়নি। অনেক বিষয় বিবেচনা করেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড বর্তমানে সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আমদানি করা অপরিশোধিত তেল পরিশোধন করে ডিজেল, পেট্রল এবং অকটেন সহ বিভিন্ন ধরনের জ্বালানি। তাদের প্রতি বছর 1.5 মিলিয়ন টন তেল পরিশোধনের ক্ষমতা রয়েছে। এখান থেকে বছরে 600,000 টন ডিজেল পাওয়া যায়। আর দেশে ডিজেলের চাহিদা বছরে ৪৬ লাখ টন। মোট জ্বালানি চাহিদার প্রায় 75 শতাংশ ডিজেল। তাই কম দামে ডিজেল কিনতে আগ্রহী সরকার।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের শুরু থেকেই বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে ভারত ও চীনসহ কয়েকটি দেশ রাশিয়ার কাছ থেকে কম দামে জ্বালানি তেল কিনতে শুরু করেছে। গত মে মাসে রাশিয়াও বাংলাদেশ থেকে অপরিশোধিত তেল কেনার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু বাংলাদেশের আগ্রহ পরিশোধিত জ্বালানি তেলে, যা মস্কো সম্প্রতি সরবরাহের প্রস্তাব দিয়েছে।

দুই BPC কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন যে রাশিয়ান জ্বালানী তেলের বৈশিষ্ট্যগুলি নির্দেশ করে যে এটি অভ্যন্তরীণ ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত নয়। এতে সালফারের পরিমাণ অনেক বেশি। তাই এটি ব্যবহার করার জন্য বিশুদ্ধ করা প্রয়োজন। এতে খরচ বাড়বে। নমুনা পরীক্ষার পর বিষয়টি পরিষ্কার হবে।