১২:৩৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪

রাতে ফার্মেসি খোলা রাখার বিষয়ে ব্যবসায়ীরা যা বলছেন

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:৩৭:০৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৮ অগাস্ট ২০২২
  • / ৯৬৯ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের জন্য আগামীকাল সোমবার থেকে সাধারণ ওষুধের দোকান রাত ১২টার মধ্যে এবং হাসপাতাল সংলগ্ন ওষুধের দোকানগুলো সকাল ২টার মধ্যে বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। তবে ওষুধের দোকান ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বিষয়টি নিয়ে ডিএসসিসির সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

রোববার পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো অগ্রগতি হয়নি। সাউথ সিটি সূত্রে জানা গেছে, বিষয়টি নিয়ে এখনো পুনর্বিবেচনার কোনো উদ্যোগ তাদের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি। দক্ষিণ সিটির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস দেশে নেই। মঙ্গলবার তিনি ফিরতে পারেন। এরপর পুনর্বিবেচনার বিষয়টি উত্থাপিত হতে পারে।

এ অবস্থায় ওষুধের দোকান খোলা বা বন্ধ করার বিষয়ে ওষুধের দোকান মালিকরা কী ভাবছেন? ব্যবসায়ীরা বলছেন, ডিএসসিসির এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন রোগী ও রোগীর স্বজনরা। রাতে ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটলে রোগীর ওষুধ পেতে সমস্যা হবে। অনেক রোগী যারা এর দ্বারা জটিল হয় তারা একটি গুরুতর অবস্থায় শেষ হয়।

বাংলাদেশ কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সৈয়দ হাসান নূর ইসলাম BD OPEN NEWS

কে বলেন, “ডিএসসিসির দেওয়া গণবিজ্ঞপ্তিতে ফার্মেসি সম্পর্কে যা বলা হয়েছে তা আমাদের নজরে এসেছে। তবে তা বাস্তবসম্মত নয়। অন্য সিটি করপোরেশন কেন এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য দেয়নি।আবারও ফার্মেসি খোলা রাখার বিষয়ে মতামত দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তাই আমরা ধরে নিচ্ছি সরকার এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্তে যাচ্ছে না। তবে সরকারের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে কোনো উদ্যোগ দেখা গেলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বসে বিষয়টি সমাধান করব।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঢাকার অধিকাংশ ফার্মেসি দুপুর ১২টা থেকে ১টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। তবে কিছু কিছু ফার্মেসি সারারাত খোলা থাকে। হঠাৎ প্রয়োজনে বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ সেখানে ওষুধ কিনতে যায়।

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের (ডিজিডিএ) ২০১৯-২০ অর্থবছরের বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশে জেনারেল স্টোর ও মডেল ফার্মেসিসহ সার্টিফাইড ফার্মেসির সংখ্যা ১ লাখ ৫৫ হাজার ৫৮৯টি। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় দেশের রিটেইল চেইন ফার্মেসি হলো লাজ ফার্মা। ঢাকা শহরসহ সারাদেশে প্রতিষ্ঠানটির ফার্মেসি ব্যবসা রয়েছে।

লাজ ফার্মার পরিচালক সাকিব রহমান BD OPEN NEWS

বলেন, “ডিএসসিসি সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়ে কী ভাবছে তা আমরা জানি না। তবে রাতে ফার্মেসি বন্ধ রাখার বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কথা ব্যবসায়ীদের জন্য একটি স্বস্তিদায়ক বার্তা। এখন পর্যন্ত অন্য কোনো পক্ষই এ সিদ্ধান্ত নেয়নি। সরকার এ বিষয়ে কিছু বলেছে, তবে আমরা আশা করি সরকার এই ধারণা থেকে সরে আসবে।কারণ অসুস্থতা দিন-রাত আসে না।

ঢাকার মিরপুরের বাসিন্দা নাজমুল হোসেন BD OPEN NEWS

কে বলেন, গত বুধবার রাতে শিশুর ওষুধ কিনতে কলাবাগানে গিয়েছিলেন। কারণ তিনি জানতেন সেখানে সারারাত ওষুধের দোকান খোলা থাকে। তিনি বলেন, রাত ১২টার পর ওষুধের দোকান বন্ধের সিদ্ধান্ত অদ্ভুত। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের কথা বললে শুধু ঢাকার একাংশের জন্য কেন?

নিউজটি শেয়ার করুন

রাতে ফার্মেসি খোলা রাখার বিষয়ে ব্যবসায়ীরা যা বলছেন

আপডেট সময় ১০:৩৭:০৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৮ অগাস্ট ২০২২

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের জন্য আগামীকাল সোমবার থেকে সাধারণ ওষুধের দোকান রাত ১২টার মধ্যে এবং হাসপাতাল সংলগ্ন ওষুধের দোকানগুলো সকাল ২টার মধ্যে বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। তবে ওষুধের দোকান ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বিষয়টি নিয়ে ডিএসসিসির সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

রোববার পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো অগ্রগতি হয়নি। সাউথ সিটি সূত্রে জানা গেছে, বিষয়টি নিয়ে এখনো পুনর্বিবেচনার কোনো উদ্যোগ তাদের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি। দক্ষিণ সিটির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস দেশে নেই। মঙ্গলবার তিনি ফিরতে পারেন। এরপর পুনর্বিবেচনার বিষয়টি উত্থাপিত হতে পারে।

এ অবস্থায় ওষুধের দোকান খোলা বা বন্ধ করার বিষয়ে ওষুধের দোকান মালিকরা কী ভাবছেন? ব্যবসায়ীরা বলছেন, ডিএসসিসির এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন রোগী ও রোগীর স্বজনরা। রাতে ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটলে রোগীর ওষুধ পেতে সমস্যা হবে। অনেক রোগী যারা এর দ্বারা জটিল হয় তারা একটি গুরুতর অবস্থায় শেষ হয়।

বাংলাদেশ কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সৈয়দ হাসান নূর ইসলাম BD OPEN NEWS

কে বলেন, “ডিএসসিসির দেওয়া গণবিজ্ঞপ্তিতে ফার্মেসি সম্পর্কে যা বলা হয়েছে তা আমাদের নজরে এসেছে। তবে তা বাস্তবসম্মত নয়। অন্য সিটি করপোরেশন কেন এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য দেয়নি।আবারও ফার্মেসি খোলা রাখার বিষয়ে মতামত দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তাই আমরা ধরে নিচ্ছি সরকার এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্তে যাচ্ছে না। তবে সরকারের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে কোনো উদ্যোগ দেখা গেলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বসে বিষয়টি সমাধান করব।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঢাকার অধিকাংশ ফার্মেসি দুপুর ১২টা থেকে ১টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যায়। তবে কিছু কিছু ফার্মেসি সারারাত খোলা থাকে। হঠাৎ প্রয়োজনে বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ সেখানে ওষুধ কিনতে যায়।

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের (ডিজিডিএ) ২০১৯-২০ অর্থবছরের বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশে জেনারেল স্টোর ও মডেল ফার্মেসিসহ সার্টিফাইড ফার্মেসির সংখ্যা ১ লাখ ৫৫ হাজার ৫৮৯টি। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় দেশের রিটেইল চেইন ফার্মেসি হলো লাজ ফার্মা। ঢাকা শহরসহ সারাদেশে প্রতিষ্ঠানটির ফার্মেসি ব্যবসা রয়েছে।

লাজ ফার্মার পরিচালক সাকিব রহমান BD OPEN NEWS

বলেন, “ডিএসসিসি সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়ে কী ভাবছে তা আমরা জানি না। তবে রাতে ফার্মেসি বন্ধ রাখার বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কথা ব্যবসায়ীদের জন্য একটি স্বস্তিদায়ক বার্তা। এখন পর্যন্ত অন্য কোনো পক্ষই এ সিদ্ধান্ত নেয়নি। সরকার এ বিষয়ে কিছু বলেছে, তবে আমরা আশা করি সরকার এই ধারণা থেকে সরে আসবে।কারণ অসুস্থতা দিন-রাত আসে না।

ঢাকার মিরপুরের বাসিন্দা নাজমুল হোসেন BD OPEN NEWS

কে বলেন, গত বুধবার রাতে শিশুর ওষুধ কিনতে কলাবাগানে গিয়েছিলেন। কারণ তিনি জানতেন সেখানে সারারাত ওষুধের দোকান খোলা থাকে। তিনি বলেন, রাত ১২টার পর ওষুধের দোকান বন্ধের সিদ্ধান্ত অদ্ভুত। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের কথা বললে শুধু ঢাকার একাংশের জন্য কেন?