০৯:৪৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

বেসরকারী কলেজগুলি অবকাঠামোগত ঘাটতির 82% জন্য দায়ী

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:২৫:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন ২০২২
  • / ৮৪০ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দেশের অধিকাংশ বেসরকারি মেডিকেল কলেজে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নেই। কলেজটির আয়তন শিক্ষার্থীর তুলনায় ৭২ শতাংশ কম। একাডেমিক কাউন্সিলের নিয়মিত সভা নেই বললেই চলে।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ সম্পর্কে এ তথ্য জানা গেছে। বিভাগ এবং বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) থেকে বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও, বেশ কয়েকটি মেডিকেল কলেজ অবকাঠামো উন্নয়ন এবং শিক্ষার পরিবেশ তৈরিতে পদক্ষেপ নেয়নি। এমন পরিস্থিতিতে আগামী সপ্তাহে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি শুরু হতে যাচ্ছে।

দেশে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ রয়েছে ৬৩টি। শর্ত পূরণ না হওয়ায় ছয়টি মেডিকেল কলেজের নিবন্ধন স্থগিত করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। চলতি শিক্ষাবর্ষে এসব মেডিকেল কলেজে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হলে তা বৈধ হবে না। এগুলো হলো ঢাকার নাইটিঙ্গেল, আইচি, নর্দান ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড কেয়ার মেডিকেল কলেজ, রাজশাহীর শাহমখদুম মেডিকেল কলেজ এবং রংপুরের নর্দান মেডিকেল কলেজ।

বিএমডিসি সভাপতি অধ্যাপক মাহমুদ হাসান প্রথম আলো</em>কে বলেন, মেডিকেল কলেজগুলো অনুমতি পাওয়ার দুই থেকে চার বছরের মধ্যেও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনার নীতিমালার শর্ত পূরণ করে না। তারা বারবার সময় চায়। কিন্তু এভাবে চলতে পারে না। ‘

সিংহভাগের কোনো অবকাঠামো নেই

বেসরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনার নীতিমালায় বলা হয়েছে, কলেজ ভবন ও হাসপাতাল একই স্থানে পৃথক ভবনে থাকতে হবে। কিন্তু অধিকাংশ মেডিকেল কলেজে তা নেই। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে 45 শতাংশ প্রতিষ্ঠানের কলেজ এবং হাসপাতাল একই ক্যাম্পাসে রয়েছে।

অনুমতি পাওয়ার দুই থেকে চার বছরের মধ্যেও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনার নীতিমালার শর্ত পূরণ করে না মেডিকেল কলেজগুলো। তারা বারবার সময় চায়। কিন্তু এভাবে চলতে পারে। ক্লাসরুম, লেকচার থিয়েটার, লাইব্রেরি, ল্যাবরেটরি—এ ধরনের অবকাঠামোর জন্য যথেষ্ট জায়গা প্রয়োজন। 2000 বর্গফুট একটি ছাত্রের জন্য আদর্শ বলে মনে করা হয়। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, ৮২ শতাংশ বেসরকারি মেডিকেল কলেজে তেমন জায়গা নেই। তবে এ বিষয়ে কোনো তথ্য দাখিল করেনি ৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠান। ত্রিশ শতাংশ প্রতিষ্ঠান বলেছে যে তারা মেডিকেল কলেজের জন্য হাসপাতালের আকার নির্ধারণ করার শর্তে কাজ করছে। মাত্র 42 শতাংশ সংস্থা বলে যে তাদের হাসপাতালের আকার শর্তাধীন।

হাসপাতালে কোনো রোগী নেই

চিকিৎসা শিক্ষায় হাতে কলমে শেখার গুরুত্ব অনেক বেশি। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিক্ষার্থীরা এই শেখার সুযোগ পায়। শ্রেণীকক্ষে পাঠ গ্রহণের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা হাসপাতালের রোগীদের কাছ থেকে ব্যবহারিক শিক্ষা গ্রহণ করে।

৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে একটি মেডিকেল কলেজ চালু করতে হলে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট একটি হাসপাতাল থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। 100 জন শিক্ষার্থী থাকলে হাসপাতালে 500 শয্যা থাকতে হবে। অর্থাৎ একজন শিক্ষার্থীর জন্য পাঁচটি রোগীর শয্যা থাকবে। এ ক্ষেত্রে হাসপাতালের ৬০ শতাংশ শয্যায় সবসময় রোগী থাকার কথা বলা হয়েছে।

হাসপাতালে এই গুরুত্বপূর্ণ শর্ত পূরণ হচ্ছে না। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ৭ শতাংশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৬০ শতাংশ রোগীর জন্য পর্যাপ্ত শয্যা নেই। এমন হাসপাতাল রয়েছে যেখানে মাত্র ১০ শতাংশ রোগী রয়েছে। ওয়েবসাইটে দুটি কলেজের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে, ২৮ শতাংশ সংস্থা বলেছে, হাসপাতালে তাদের অবস্থা অনুযায়ী রোগী রয়েছে। ঢাকার ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজ বলছে, তাদের হাসপাতালের শয্যা শতভাগ পূর্ণ।

ম্যানেজমেন্ট মিটিং হয় না

বেসরকারি মেডিকেল কলেজ পরিচালনার জন্য নিয়মিত বৈঠক করতে হবে। এক শিক্ষাবর্ষে চারটি গভর্নিং বডির সভা হওয়ার কথা।

৬৩টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের কোনোটিই এই শর্ত পূরণ করেনি। শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজে গত শিক্ষাবর্ষে একটি সভা হয়েছে, এমন তথ্য রয়েছে বিভাগের ওয়েবসাইটে।

ছাত্ররা রাস্তায়

সম্প্রতি ঢাকার আশুলিয়ায় নাইটিঙ্গেল মেডিকেল কলেজ পরিদর্শন করেন এই প্রতিবেদক। কলেজে অধ্যক্ষ বা অন্য কোনো শিক্ষক ছিলেন না। দুজন অফিসার ছিলেন। তারা জানান, প্রথম থেকে পঞ্চম বর্ষ পর্যন্ত এই পাঁচ শিক্ষাবর্ষে মোট ৫৬ জন শিক্ষার্থী।

এ কলেজের শিক্ষার্থীরা অন্য কলেজে স্থানান্তরের জন্য সরকারের কাছে আবেদন করে আসছে। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একাধিকবার মানববন্ধন করেছেন তারা।

নর্দান মেডিকেল কলেজে গিয়েছিলেন রংপুর থেকে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক ডা. হাসপাতালে কোনো রোগী দেখতে পাননি তিনি। কয়েকজন শিক্ষকের মতে, তারা কলেজে আসা-যাওয়া করলেও ক্লাস হয় না। শিক্ষার্থীরা জানান, কলেজে ভর্তির সময় তারা জানতেন না

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বেসরকারী কলেজগুলি অবকাঠামোগত ঘাটতির 82% জন্য দায়ী

আপডেট সময় ০৫:২৫:৩৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন ২০২২

দেশের অধিকাংশ বেসরকারি মেডিকেল কলেজে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নেই। কলেজটির আয়তন শিক্ষার্থীর তুলনায় ৭২ শতাংশ কম। একাডেমিক কাউন্সিলের নিয়মিত সভা নেই বললেই চলে।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ সম্পর্কে এ তথ্য জানা গেছে। বিভাগ এবং বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) থেকে বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও, বেশ কয়েকটি মেডিকেল কলেজ অবকাঠামো উন্নয়ন এবং শিক্ষার পরিবেশ তৈরিতে পদক্ষেপ নেয়নি। এমন পরিস্থিতিতে আগামী সপ্তাহে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি শুরু হতে যাচ্ছে।

দেশে বেসরকারি মেডিকেল কলেজ রয়েছে ৬৩টি। শর্ত পূরণ না হওয়ায় ছয়টি মেডিকেল কলেজের নিবন্ধন স্থগিত করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। চলতি শিক্ষাবর্ষে এসব মেডিকেল কলেজে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হলে তা বৈধ হবে না। এগুলো হলো ঢাকার নাইটিঙ্গেল, আইচি, নর্দান ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড কেয়ার মেডিকেল কলেজ, রাজশাহীর শাহমখদুম মেডিকেল কলেজ এবং রংপুরের নর্দান মেডিকেল কলেজ।

বিএমডিসি সভাপতি অধ্যাপক মাহমুদ হাসান প্রথম আলো</em>কে বলেন, মেডিকেল কলেজগুলো অনুমতি পাওয়ার দুই থেকে চার বছরের মধ্যেও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনার নীতিমালার শর্ত পূরণ করে না। তারা বারবার সময় চায়। কিন্তু এভাবে চলতে পারে না। ‘

সিংহভাগের কোনো অবকাঠামো নেই

বেসরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনার নীতিমালায় বলা হয়েছে, কলেজ ভবন ও হাসপাতাল একই স্থানে পৃথক ভবনে থাকতে হবে। কিন্তু অধিকাংশ মেডিকেল কলেজে তা নেই। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে 45 শতাংশ প্রতিষ্ঠানের কলেজ এবং হাসপাতাল একই ক্যাম্পাসে রয়েছে।

অনুমতি পাওয়ার দুই থেকে চার বছরের মধ্যেও বেসরকারি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনার নীতিমালার শর্ত পূরণ করে না মেডিকেল কলেজগুলো। তারা বারবার সময় চায়। কিন্তু এভাবে চলতে পারে। ক্লাসরুম, লেকচার থিয়েটার, লাইব্রেরি, ল্যাবরেটরি—এ ধরনের অবকাঠামোর জন্য যথেষ্ট জায়গা প্রয়োজন। 2000 বর্গফুট একটি ছাত্রের জন্য আদর্শ বলে মনে করা হয়। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, ৮২ শতাংশ বেসরকারি মেডিকেল কলেজে তেমন জায়গা নেই। তবে এ বিষয়ে কোনো তথ্য দাখিল করেনি ৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠান। ত্রিশ শতাংশ প্রতিষ্ঠান বলেছে যে তারা মেডিকেল কলেজের জন্য হাসপাতালের আকার নির্ধারণ করার শর্তে কাজ করছে। মাত্র 42 শতাংশ সংস্থা বলে যে তাদের হাসপাতালের আকার শর্তাধীন।

হাসপাতালে কোনো রোগী নেই

চিকিৎসা শিক্ষায় হাতে কলমে শেখার গুরুত্ব অনেক বেশি। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিক্ষার্থীরা এই শেখার সুযোগ পায়। শ্রেণীকক্ষে পাঠ গ্রহণের পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা হাসপাতালের রোগীদের কাছ থেকে ব্যবহারিক শিক্ষা গ্রহণ করে।

৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে একটি মেডিকেল কলেজ চালু করতে হলে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট একটি হাসপাতাল থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। 100 জন শিক্ষার্থী থাকলে হাসপাতালে 500 শয্যা থাকতে হবে। অর্থাৎ একজন শিক্ষার্থীর জন্য পাঁচটি রোগীর শয্যা থাকবে। এ ক্ষেত্রে হাসপাতালের ৬০ শতাংশ শয্যায় সবসময় রোগী থাকার কথা বলা হয়েছে।

হাসপাতালে এই গুরুত্বপূর্ণ শর্ত পূরণ হচ্ছে না। স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, ৭ শতাংশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৬০ শতাংশ রোগীর জন্য পর্যাপ্ত শয্যা নেই। এমন হাসপাতাল রয়েছে যেখানে মাত্র ১০ শতাংশ রোগী রয়েছে। ওয়েবসাইটে দুটি কলেজের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে, ২৮ শতাংশ সংস্থা বলেছে, হাসপাতালে তাদের অবস্থা অনুযায়ী রোগী রয়েছে। ঢাকার ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজ বলছে, তাদের হাসপাতালের শয্যা শতভাগ পূর্ণ।

ম্যানেজমেন্ট মিটিং হয় না

বেসরকারি মেডিকেল কলেজ পরিচালনার জন্য নিয়মিত বৈঠক করতে হবে। এক শিক্ষাবর্ষে চারটি গভর্নিং বডির সভা হওয়ার কথা।

৬৩টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজের কোনোটিই এই শর্ত পূরণ করেনি। শুধু ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজে গত শিক্ষাবর্ষে একটি সভা হয়েছে, এমন তথ্য রয়েছে বিভাগের ওয়েবসাইটে।

ছাত্ররা রাস্তায়

সম্প্রতি ঢাকার আশুলিয়ায় নাইটিঙ্গেল মেডিকেল কলেজ পরিদর্শন করেন এই প্রতিবেদক। কলেজে অধ্যক্ষ বা অন্য কোনো শিক্ষক ছিলেন না। দুজন অফিসার ছিলেন। তারা জানান, প্রথম থেকে পঞ্চম বর্ষ পর্যন্ত এই পাঁচ শিক্ষাবর্ষে মোট ৫৬ জন শিক্ষার্থী।

এ কলেজের শিক্ষার্থীরা অন্য কলেজে স্থানান্তরের জন্য সরকারের কাছে আবেদন করে আসছে। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একাধিকবার মানববন্ধন করেছেন তারা।

নর্দান মেডিকেল কলেজে গিয়েছিলেন রংপুর থেকে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক ডা. হাসপাতালে কোনো রোগী দেখতে পাননি তিনি। কয়েকজন শিক্ষকের মতে, তারা কলেজে আসা-যাওয়া করলেও ক্লাস হয় না। শিক্ষার্থীরা জানান, কলেজে ভর্তির সময় তারা জানতেন না