০৮:৫২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

বেঁচে থাকা, এটা জীবন নয়।

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:১৩:০৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ জুন ২০২২
  • / ১১৮৩ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

তালেবান ক্ষমতায় আসার পর থেকে আফগান নারীদের স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে। বোরকা ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের পড়তে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। অবাধ চলাচলে বাধা। অনেক কর্মজীবী ​​নারী ঠিকমতো বেতন পাচ্ছেন না। এমন পরিস্থিতিতে অনেক নারীই আত্মহত্যার কথা ভাবছেন।

চার তরুণ আফগান রাজধানী কাবুলের কাছে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি শ্রেণীকক্ষে কথা বলছিল। কান্নাজড়িত কণ্ঠে চোখের জল মুছে একজন বলল, ‘আমরাই বেঁচে আছি। তবে এটি একটি জীবন নয়। ‘

গার্ডিয়ানের মতে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ল্যামি যখন কথা বলছিলেন তখন তরুণীদের সামনে ছিলেন। গত সপ্তাহে তিনি কাবুল সফর করেন।

একজন তরুণী ডেভিড ল্যামিকে বলেছিলেন যে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রকৌশল ছাত্রী ছিলেন। পড়াশোনা ভালোই চলছিল। তবে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর পরিস্থিতি পাল্টে যায়। একদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশপথে তাকে বলা হয় বোরকা ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে পারবে না।

19 বছর বয়সী এই যুবক যোগ করেছেন: “আমাকে আগে কখনও এটি করতে বলা হয়নি। তারা (তালেবান) এমনকি আমার বাবা এবং ভাইদের সাথে দেখা করেছিল। বলেছিল, আমাকে সামঞ্জস্য করতে। আমি বাইরে যেতেও পারি না, যেখানে ছেলেরা সবসময় যায়। আমি আশা হারিয়ে ফেলছি।”

তরুণীর পর ক্লাসরুমের বাকি তিনজন একে একে মুখ খুললেন। তারা সবাই আফগান যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত শিশুদের নিয়ে কাজ করছে। একজন বলেছিলেন যে তালেবান শাসনে তার আত্মহত্যার চিন্তাভাবনা ছিল। আরেকজন ইউক্রেন যুদ্ধের বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, সবাই জানে ইউক্রেনে যুদ্ধ চলছে। কিন্তু এখানকার মানুষ মারা যাচ্ছে, বিশেষ করে নারীরা। ‘

গত তিন মাস ধরে বেতন পাননি ওই তরুণী। তার স্বামীও অসুস্থ। “আফগান মহিলারা দুই বা তিন প্রজন্ম ধরে ভুগছেন,” তিনি বলেন। অন্য প্রজন্ম কি এভাবে কষ্ট পাবে? আমরা কি আশার আলো দেখছি না? নাকি আমি নিরুৎসাহিত হব? ‘

এই তরুণীদের কথা শুনে ডেভিড ল্যামি বলেন, ‘আজ আমি আপনার কাছ থেকে যা শুনেছি তা খুবই শক্তিশালী ও সাহসী। আমি ভাগ্যবান কারণ, আমি বিশ্বের অনেক জায়গায় গিয়েছি, অনেক মানুষের সাথে কথা বলেছি। কিন্তু তোমার সাথে কথা বলার পর মনের অন্তস্থল থেকে বলি, তোমাকে মনে রাখবো বহুদিন। ‘

এদিকে, স্কুল থেকে কয়েক মাইল দূরে জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির (ডব্লিউএফপি) আওতায় আফগানদের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছিল। প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে খাবার সংগ্রহ করছিল শত শত মানুষ। অনেকে আবার জীবিকার আশায় খাবার নিয়ে ঘুরে দাঁড়ান।

মহিলারাও খাদ্য সহায়তা পাওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন। তাদের একজন জয়নব (৩৮)। তিনি বলেন, তিনি মিডওয়াইফ হিসেবে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। তিনি গ্রামীণ আফগানিস্তানে কাজ করতে চেয়েছিলেন। যাইহোক, তালেবান সরকারের আইন অনুযায়ী, তিনি একজন পুরুষ সঙ্গী ছাড়া বাইরে যেতে পারবেন না। ফলে প্রশিক্ষণ নিয়েও কাজ করতে পারছেন না। আর আইন অমান্য করলে মারধর করা হবে। একই অবস্থা বিধবা নাজিফার (৪০) এর। তারও কোনো কাজ করার সুযোগ নেই। অভাব মেটাতে নাজিফা এখন তার কিডনি কালোবাজারে বিক্রির কথা ভাবছেন। তিনি বলেন, সবকিছুর দাম বাড়ছে। এই সময়ে তালেবানরা আমার পেনশন দেওয়া বন্ধ করে দেয়। আমি জানি না কিভাবে শিশুদের দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বেঁচে থাকা, এটা জীবন নয়।

আপডেট সময় ০৪:১৩:০৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ জুন ২০২২

তালেবান ক্ষমতায় আসার পর থেকে আফগান নারীদের স্বাধীনতা খর্ব হয়েছে। বোরকা ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের পড়তে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। অবাধ চলাচলে বাধা। অনেক কর্মজীবী ​​নারী ঠিকমতো বেতন পাচ্ছেন না। এমন পরিস্থিতিতে অনেক নারীই আত্মহত্যার কথা ভাবছেন।

চার তরুণ আফগান রাজধানী কাবুলের কাছে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি শ্রেণীকক্ষে কথা বলছিল। কান্নাজড়িত কণ্ঠে চোখের জল মুছে একজন বলল, ‘আমরাই বেঁচে আছি। তবে এটি একটি জীবন নয়। ‘

গার্ডিয়ানের মতে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ল্যামি যখন কথা বলছিলেন তখন তরুণীদের সামনে ছিলেন। গত সপ্তাহে তিনি কাবুল সফর করেন।

একজন তরুণী ডেভিড ল্যামিকে বলেছিলেন যে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রকৌশল ছাত্রী ছিলেন। পড়াশোনা ভালোই চলছিল। তবে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর পরিস্থিতি পাল্টে যায়। একদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশপথে তাকে বলা হয় বোরকা ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে পারবে না।

19 বছর বয়সী এই যুবক যোগ করেছেন: “আমাকে আগে কখনও এটি করতে বলা হয়নি। তারা (তালেবান) এমনকি আমার বাবা এবং ভাইদের সাথে দেখা করেছিল। বলেছিল, আমাকে সামঞ্জস্য করতে। আমি বাইরে যেতেও পারি না, যেখানে ছেলেরা সবসময় যায়। আমি আশা হারিয়ে ফেলছি।”

তরুণীর পর ক্লাসরুমের বাকি তিনজন একে একে মুখ খুললেন। তারা সবাই আফগান যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত শিশুদের নিয়ে কাজ করছে। একজন বলেছিলেন যে তালেবান শাসনে তার আত্মহত্যার চিন্তাভাবনা ছিল। আরেকজন ইউক্রেন যুদ্ধের বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, সবাই জানে ইউক্রেনে যুদ্ধ চলছে। কিন্তু এখানকার মানুষ মারা যাচ্ছে, বিশেষ করে নারীরা। ‘

গত তিন মাস ধরে বেতন পাননি ওই তরুণী। তার স্বামীও অসুস্থ। “আফগান মহিলারা দুই বা তিন প্রজন্ম ধরে ভুগছেন,” তিনি বলেন। অন্য প্রজন্ম কি এভাবে কষ্ট পাবে? আমরা কি আশার আলো দেখছি না? নাকি আমি নিরুৎসাহিত হব? ‘

এই তরুণীদের কথা শুনে ডেভিড ল্যামি বলেন, ‘আজ আমি আপনার কাছ থেকে যা শুনেছি তা খুবই শক্তিশালী ও সাহসী। আমি ভাগ্যবান কারণ, আমি বিশ্বের অনেক জায়গায় গিয়েছি, অনেক মানুষের সাথে কথা বলেছি। কিন্তু তোমার সাথে কথা বলার পর মনের অন্তস্থল থেকে বলি, তোমাকে মনে রাখবো বহুদিন। ‘

এদিকে, স্কুল থেকে কয়েক মাইল দূরে জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির (ডব্লিউএফপি) আওতায় আফগানদের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছিল। প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে খাবার সংগ্রহ করছিল শত শত মানুষ। অনেকে আবার জীবিকার আশায় খাবার নিয়ে ঘুরে দাঁড়ান।

মহিলারাও খাদ্য সহায়তা পাওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন। তাদের একজন জয়নব (৩৮)। তিনি বলেন, তিনি মিডওয়াইফ হিসেবে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। তিনি গ্রামীণ আফগানিস্তানে কাজ করতে চেয়েছিলেন। যাইহোক, তালেবান সরকারের আইন অনুযায়ী, তিনি একজন পুরুষ সঙ্গী ছাড়া বাইরে যেতে পারবেন না। ফলে প্রশিক্ষণ নিয়েও কাজ করতে পারছেন না। আর আইন অমান্য করলে মারধর করা হবে। একই অবস্থা বিধবা নাজিফার (৪০) এর। তারও কোনো কাজ করার সুযোগ নেই। অভাব মেটাতে নাজিফা এখন তার কিডনি কালোবাজারে বিক্রির কথা ভাবছেন। তিনি বলেন, সবকিছুর দাম বাড়ছে। এই সময়ে তালেবানরা আমার পেনশন দেওয়া বন্ধ করে দেয়। আমি জানি না কিভাবে শিশুদের দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে হয়।