১০:১৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

বরিস জনসনের পতনের পাঁচটি কারণ

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:১২:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই ২০২২
  • / ৩৬২ বার পড়া হয়েছে

বরিস জনসন

গত দুই দিনের নাটকীয়তার অবসান ঘটিয়ে বৃহস্পতিবার পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

বরিস জনসনের পতনের পাঁচটি কারণ খুঁজে পেয়েছে বিবিসি।

প্রথম কারণ ক্রিস পিনচার কেলেঙ্কারী:

ক্রিস পিনচার ছিলেন কনজারভেটিভ পার্টির চিফ হুইপ। 29 জুন, ক্রিস পিনচার একটি পার্টিতে গিয়েছিলেন এবং খুব বেশি মদ্যপান করার পরে দুজন লোককে জড়িয়ে ধরেছিলেন।

ফলস্বরূপ, পিনচার পদত্যাগ করেন। তবে অন্য তথ্যও বেরিয়ে আসে। পিনচার আগেও সেটাই করেছে। কিন্তু বরিস তা জেনেও তাকে চিফ হুইপ বানিয়েছিলেন। খবরটি ছড়িয়ে পড়লে কনজারভেটিভ পার্টির অন্যান্য সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।

পার্টিগেট কেলেঙ্কারি:

2020 সালে করোনার কারণে যুক্তরাজ্যের পাশাপাশি বিশ্বের অন্যান্য দেশেও কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। সাধারণ ব্রিটিশ মানুষও তখন তাদের মৃত আত্মীয়দের জানাজায় যেতে পারত না। কিন্তু সে সময় বরিস জনসন তার সরকারি বাসভবনে আইন ভেঙে পার্টি করেন। এটি তার পতনের আরেকটি কারণ।

জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধি:

যুক্তরাজ্যে সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রার ক্রমবর্ধমান ব্যয় বরিসের পতনের আরেকটি কারণ।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে যুক্তরাজ্যেও। জ্বালানির দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে জ্বালানির ওপর কর কমিয়ে দেন বরিস। কিন্তু এপ্রিলে তিনি কর বাড়ান।

ওয়েন প্যাটারসন দ্বন্দ্ব:

2021 সালের অক্টোবরে, যুক্তরাজ্যের সংসদীয় কমিটি তৎকালীন কনজারভেটিভ এমপি ওয়েন প্যাটারসনের 30 দিনের স্থগিতাদেশের রিপোর্ট করেছিল।

ওয়েন প্যাটারসন একটি কোম্পানিকে সুবিধা দিতে লবিং নিয়ম ভাঙতে চেয়েছিলেন।

বরিস জনসন সেই সময়ে এর বিরুদ্ধে গিয়েছিলেন এবং তার এমপিকে বরখাস্ত করার কথা অস্বীকার করেছিলেন।

কিন্তু ওয়েন পরে পদত্যাগ করেন। বরিস জনসনও স্বীকার করেছেন যে তিনি তার পক্ষে ভুল করেছেন।

নজর রাখার অভাব:

বরিস জনসন ২০১৯ সালে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে প্রধানমন্ত্রী হন। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি নজর রাখতে পারেননি সরকারের মধ্যে কি হচ্ছে। 

সূত্র: বিবিসি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

বরিস জনসনের পতনের পাঁচটি কারণ

আপডেট সময় ০৭:১২:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই ২০২২

গত দুই দিনের নাটকীয়তার অবসান ঘটিয়ে বৃহস্পতিবার পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

বরিস জনসনের পতনের পাঁচটি কারণ খুঁজে পেয়েছে বিবিসি।

প্রথম কারণ ক্রিস পিনচার কেলেঙ্কারী:

ক্রিস পিনচার ছিলেন কনজারভেটিভ পার্টির চিফ হুইপ। 29 জুন, ক্রিস পিনচার একটি পার্টিতে গিয়েছিলেন এবং খুব বেশি মদ্যপান করার পরে দুজন লোককে জড়িয়ে ধরেছিলেন।

ফলস্বরূপ, পিনচার পদত্যাগ করেন। তবে অন্য তথ্যও বেরিয়ে আসে। পিনচার আগেও সেটাই করেছে। কিন্তু বরিস তা জেনেও তাকে চিফ হুইপ বানিয়েছিলেন। খবরটি ছড়িয়ে পড়লে কনজারভেটিভ পার্টির অন্যান্য সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।

পার্টিগেট কেলেঙ্কারি:

2020 সালে করোনার কারণে যুক্তরাজ্যের পাশাপাশি বিশ্বের অন্যান্য দেশেও কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। সাধারণ ব্রিটিশ মানুষও তখন তাদের মৃত আত্মীয়দের জানাজায় যেতে পারত না। কিন্তু সে সময় বরিস জনসন তার সরকারি বাসভবনে আইন ভেঙে পার্টি করেন। এটি তার পতনের আরেকটি কারণ।

জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধি:

যুক্তরাজ্যে সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রার ক্রমবর্ধমান ব্যয় বরিসের পতনের আরেকটি কারণ।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে যুক্তরাজ্যেও। জ্বালানির দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে জ্বালানির ওপর কর কমিয়ে দেন বরিস। কিন্তু এপ্রিলে তিনি কর বাড়ান।

ওয়েন প্যাটারসন দ্বন্দ্ব:

2021 সালের অক্টোবরে, যুক্তরাজ্যের সংসদীয় কমিটি তৎকালীন কনজারভেটিভ এমপি ওয়েন প্যাটারসনের 30 দিনের স্থগিতাদেশের রিপোর্ট করেছিল।

ওয়েন প্যাটারসন একটি কোম্পানিকে সুবিধা দিতে লবিং নিয়ম ভাঙতে চেয়েছিলেন।

বরিস জনসন সেই সময়ে এর বিরুদ্ধে গিয়েছিলেন এবং তার এমপিকে বরখাস্ত করার কথা অস্বীকার করেছিলেন।

কিন্তু ওয়েন পরে পদত্যাগ করেন। বরিস জনসনও স্বীকার করেছেন যে তিনি তার পক্ষে ভুল করেছেন।

নজর রাখার অভাব:

বরিস জনসন ২০১৯ সালে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে প্রধানমন্ত্রী হন। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি নজর রাখতে পারেননি সরকারের মধ্যে কি হচ্ছে। 

সূত্র: বিবিসি