০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

পাচারের পর যৌন নির্যাতন, দেশে ফিরে নিরাপত্তাহীনতা

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১২:০৬:৫৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২
  • / ৮৯৪ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

বলা হয়েছিল স্বামী-স্ত্রী দুজনেই বিদেশ যাবেন। বিমানবন্দরে ঢোকার পর স্বামী স্ত্রীকে বললেন, তিনি একটু বাইরে থেকে আসছেন। একথা বলে তিনি বাইরে চলে গেলেন এবং আর ফিরে আসেননি। এদিকে দালালের মাধ্যমে তার স্ত্রী সৌদি আরব চলে যায়। তখনও বুঝতে পারছেন না তার ভাগ্যে কী অপেক্ষা করছে!

সৌদি আরব যাওয়ার পর ওই নারী গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। যৌন নির্যাতন চালানো হয়। কয়েক বছর সৌদি আরবে থাকার পর গত বছর দেশে ফেরেন ওই নারী। এরপর স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। গত বৃহস্পতিবার রাজশাহী মানব পাচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক ওই মামলায় এ রায় দেন।

আদালতে দেখা হলে মহিলার স্বামী তাকে জেল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন। অন্য কোথাও বিয়ে করলেও সংসার করতে দেবেন না। রায়ে ওই নারীর স্বামী মাসুম পারভেজকে তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মাসুমের বাড়ি রাজশাহীর তানোর উপজেলার একটি গ্রামে। তিনি ঢাকায় রিকশা চালাতেন। আর তার স্ত্রী একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। মাসুমের স্ত্রী জানায়, তার স্বামী ২০১৬ সালে বিদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। তাকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে বলা হয়। পরিবারের সুখের কথা ভেবে তিনি তার মায়ের জমি বন্ধক রেখে গরু বিক্রি করে স্বামীর কাছে চার লাখ টাকা তুলে দেন। ওই বছরের ৩০ নভেম্বর তার স্বামী মাসুম পারভেজ তাকে বিমানবন্দরে নামিয়ে দেন।

ওই নারী জানান, মাসুমের হাত কেটে যাওয়ার পর দালালদের মাধ্যমে সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। সেখানে তিনি গৃহপরিচারিকার কাজে নিযুক্ত ছিলেন। বেতন তার স্বামীর কাছে পাঠানোর কারণে তিনি কিছুই পাননি। এতে তার কোনো আপত্তি ছিল না। কিন্তু একপর্যায়ে একের পর এক যৌন নির্যাতনের শিকার হন

বলা হয়েছিল স্বামী-স্ত্রী দুজনেই বিদেশ যাবেন। বিমানবন্দরে ঢোকার পর স্বামী স্ত্রীকে বললেন, তিনি একটু বাইরে থেকে আসছেন। একথা বলে তিনি বাইরে চলে গেলেন এবং আর ফিরে আসেননি। এদিকে দালালের মাধ্যমে তার স্ত্রী সৌদি আরব চলে যায়। তখনও বুঝতে পারছেন না তার ভাগ্যে কী অপেক্ষা করছে!

সৌদি আরব যাওয়ার পর ওই নারী গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। যৌন নির্যাতন চালানো হয়। কয়েক বছর সৌদি আরবে থাকার পর গত বছর দেশে ফেরেন ওই নারী। এরপর স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। গত বৃহস্পতিবার রাজশাহী মানব পাচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক ওই মামলায় এ রায় দেন।

আদালতে দেখা হলে মহিলার স্বামী তাকে জেল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন। অন্য কোথাও বিয়ে করলেও সংসার করতে দেবেন না।

রায়ে ওই নারীর স্বামী মাসুম পারভেজকে তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মাসুমের বাড়ি রাজশাহীর তানোর উপজেলার একটি গ্রামে। তিনি ঢাকায় রিকশা চালাতেন। আর তার স্ত্রী একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

মাসুমের স্ত্রী জানায়, তার স্বামী ২০১৬ সালে বিদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। তাকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে বলা হয়। পরিবারের সুখের কথা ভেবে তিনি তার মায়ের জমি বন্ধক রেখে গরু বিক্রি করে স্বামীর কাছে চার লাখ টাকা তুলে দেন। ওই বছরের ৩০ নভেম্বর তার স্বামী মাসুম পারভেজ তাকে বিমানবন্দরে নামিয়ে দেন।

ওই নারী জানান, মাসুমের হাত কেটে যাওয়ার পর দালালদের মাধ্যমে সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। সেখানে তিনি গৃহপরিচারিকার কাজে নিযুক্ত ছিলেন। বেতন তার স্বামীর কাছে পাঠানোর কারণে তিনি কিছুই পাননি। এতে তার কোনো আপত্তি ছিল না। কিন্তু একপর্যায়ে একের পর এক যৌন নির্যাতনের শিকার হন তিনি। বাড়িওয়ালা আপত্তি করলেই অত্যাচার সহ্য করতে হতো।

কোনও উপায় না দেখে, মহিলাটি তিন বছর পর বাড়িওয়ালার বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় এবং স্থানীয় পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। তাকে 2 মাস 18 দিন কারারুদ্ধ করা হয়েছিল।

সৌদি আরবে তিন বাড়িওয়ালার বাড়িতে কাজ করতে হয় ওই নারীকে। প্রতিটি বাড়িতে একই ধরনের নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তিনি তার স্বামীকে কয়েকবার ফোন করে বিষয়টি জানান। সব শুনে তার স্বামী জানান, তাকে জেনেশুনে সৌদি আরবে পাঠিয়েছেন। মহিলাটি বলেছিলেন যে তিনি তিন বছর পরে তার বাড়িওয়ালার বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছিলেন এবং স্থানীয় পুলিশের হাতে ধরা পড়েছিলেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। তাকে 2 মাস 18 দিন কারারুদ্ধ করা হয়েছিল। এর মধ্যে, অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগের সুযোগ পান। তার বাবা-মা তাকে টাকা পাঠানোর পর তিনি 14 জানুয়ারি, 2021 এ দেশে ফিরে আসেন।

বাড়ি ফিরে স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন ওই নারী। তখন সে জানতে পারে তার স্বামী আরেকটি বিয়ে করেছে। তারও সন্তান আছে। সব জানা সত্ত্বেও ওই নারী তার পরিবারের কাছে যাওয়ার জন্য মাসুমের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর মাসুম তাকে তালাক দিতে বলেন। তা না হলে ওই নারীর বাবাকে হত্যা ও বাড়িতে আগুন লাগানোর হুমকি দেন। বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে আসেন এবং আড়াই মাস পর মাসুমকে তালাক দেন। উল্টো মাসুম বাদী হয়ে ওই নারীর প-এর বিরুদ্ধে মামলা করেন

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পাচারের পর যৌন নির্যাতন, দেশে ফিরে নিরাপত্তাহীনতা

আপডেট সময় ১২:০৬:৫৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ জুলাই ২০২২

বলা হয়েছিল স্বামী-স্ত্রী দুজনেই বিদেশ যাবেন। বিমানবন্দরে ঢোকার পর স্বামী স্ত্রীকে বললেন, তিনি একটু বাইরে থেকে আসছেন। একথা বলে তিনি বাইরে চলে গেলেন এবং আর ফিরে আসেননি। এদিকে দালালের মাধ্যমে তার স্ত্রী সৌদি আরব চলে যায়। তখনও বুঝতে পারছেন না তার ভাগ্যে কী অপেক্ষা করছে!

সৌদি আরব যাওয়ার পর ওই নারী গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। যৌন নির্যাতন চালানো হয়। কয়েক বছর সৌদি আরবে থাকার পর গত বছর দেশে ফেরেন ওই নারী। এরপর স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। গত বৃহস্পতিবার রাজশাহী মানব পাচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক ওই মামলায় এ রায় দেন।

আদালতে দেখা হলে মহিলার স্বামী তাকে জেল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন। অন্য কোথাও বিয়ে করলেও সংসার করতে দেবেন না। রায়ে ওই নারীর স্বামী মাসুম পারভেজকে তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মাসুমের বাড়ি রাজশাহীর তানোর উপজেলার একটি গ্রামে। তিনি ঢাকায় রিকশা চালাতেন। আর তার স্ত্রী একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। মাসুমের স্ত্রী জানায়, তার স্বামী ২০১৬ সালে বিদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। তাকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে বলা হয়। পরিবারের সুখের কথা ভেবে তিনি তার মায়ের জমি বন্ধক রেখে গরু বিক্রি করে স্বামীর কাছে চার লাখ টাকা তুলে দেন। ওই বছরের ৩০ নভেম্বর তার স্বামী মাসুম পারভেজ তাকে বিমানবন্দরে নামিয়ে দেন।

ওই নারী জানান, মাসুমের হাত কেটে যাওয়ার পর দালালদের মাধ্যমে সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। সেখানে তিনি গৃহপরিচারিকার কাজে নিযুক্ত ছিলেন। বেতন তার স্বামীর কাছে পাঠানোর কারণে তিনি কিছুই পাননি। এতে তার কোনো আপত্তি ছিল না। কিন্তু একপর্যায়ে একের পর এক যৌন নির্যাতনের শিকার হন

বলা হয়েছিল স্বামী-স্ত্রী দুজনেই বিদেশ যাবেন। বিমানবন্দরে ঢোকার পর স্বামী স্ত্রীকে বললেন, তিনি একটু বাইরে থেকে আসছেন। একথা বলে তিনি বাইরে চলে গেলেন এবং আর ফিরে আসেননি। এদিকে দালালের মাধ্যমে তার স্ত্রী সৌদি আরব চলে যায়। তখনও বুঝতে পারছেন না তার ভাগ্যে কী অপেক্ষা করছে!

সৌদি আরব যাওয়ার পর ওই নারী গৃহপরিচারিকার কাজ করেন। যৌন নির্যাতন চালানো হয়। কয়েক বছর সৌদি আরবে থাকার পর গত বছর দেশে ফেরেন ওই নারী। এরপর স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। গত বৃহস্পতিবার রাজশাহী মানব পাচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক ওই মামলায় এ রায় দেন।

আদালতে দেখা হলে মহিলার স্বামী তাকে জেল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন। অন্য কোথাও বিয়ে করলেও সংসার করতে দেবেন না।

রায়ে ওই নারীর স্বামী মাসুম পারভেজকে তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মাসুমের বাড়ি রাজশাহীর তানোর উপজেলার একটি গ্রামে। তিনি ঢাকায় রিকশা চালাতেন। আর তার স্ত্রী একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

মাসুমের স্ত্রী জানায়, তার স্বামী ২০১৬ সালে বিদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করে। তাকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে বলা হয়। পরিবারের সুখের কথা ভেবে তিনি তার মায়ের জমি বন্ধক রেখে গরু বিক্রি করে স্বামীর কাছে চার লাখ টাকা তুলে দেন। ওই বছরের ৩০ নভেম্বর তার স্বামী মাসুম পারভেজ তাকে বিমানবন্দরে নামিয়ে দেন।

ওই নারী জানান, মাসুমের হাত কেটে যাওয়ার পর দালালদের মাধ্যমে সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। সেখানে তিনি গৃহপরিচারিকার কাজে নিযুক্ত ছিলেন। বেতন তার স্বামীর কাছে পাঠানোর কারণে তিনি কিছুই পাননি। এতে তার কোনো আপত্তি ছিল না। কিন্তু একপর্যায়ে একের পর এক যৌন নির্যাতনের শিকার হন তিনি। বাড়িওয়ালা আপত্তি করলেই অত্যাচার সহ্য করতে হতো।

কোনও উপায় না দেখে, মহিলাটি তিন বছর পর বাড়িওয়ালার বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় এবং স্থানীয় পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। তাকে 2 মাস 18 দিন কারারুদ্ধ করা হয়েছিল।

সৌদি আরবে তিন বাড়িওয়ালার বাড়িতে কাজ করতে হয় ওই নারীকে। প্রতিটি বাড়িতে একই ধরনের নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তিনি তার স্বামীকে কয়েকবার ফোন করে বিষয়টি জানান। সব শুনে তার স্বামী জানান, তাকে জেনেশুনে সৌদি আরবে পাঠিয়েছেন। মহিলাটি বলেছিলেন যে তিনি তিন বছর পরে তার বাড়িওয়ালার বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছিলেন এবং স্থানীয় পুলিশের হাতে ধরা পড়েছিলেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। তাকে 2 মাস 18 দিন কারারুদ্ধ করা হয়েছিল। এর মধ্যে, অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগের সুযোগ পান। তার বাবা-মা তাকে টাকা পাঠানোর পর তিনি 14 জানুয়ারি, 2021 এ দেশে ফিরে আসেন।

বাড়ি ফিরে স্বামীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন ওই নারী। তখন সে জানতে পারে তার স্বামী আরেকটি বিয়ে করেছে। তারও সন্তান আছে। সব জানা সত্ত্বেও ওই নারী তার পরিবারের কাছে যাওয়ার জন্য মাসুমের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর মাসুম তাকে তালাক দিতে বলেন। তা না হলে ওই নারীর বাবাকে হত্যা ও বাড়িতে আগুন লাগানোর হুমকি দেন। বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে আসেন এবং আড়াই মাস পর মাসুমকে তালাক দেন। উল্টো মাসুম বাদী হয়ে ওই নারীর প-এর বিরুদ্ধে মামলা করেন