১২:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

পাকিস্তানের এলাকা ১০ ফুট পানির নিচে

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:২৯:৫৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ৩৫৩ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পাকিস্তান। বৃহস্পতিবার দেশটির সিন্ধু প্রদেশে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সিন্ধু নদীর ভাটিতে পানির চাপ বেড়ে যাওয়ায় দাদু জেলা প্লাবিত হয়েছে। জেলার কয়েকটি এলাকা ১০ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। ভোরের খবর।

পাকিস্তানের জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শেরি রহমান এক সম্মেলনে বলেছেন, বন্যায় দেশের ৪৫ শতাংশ ফসলি জমি ভেসে গেছে। বিশেষ করে সিন্ধু প্রদেশ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সারাদেশে প্রায় ১০০০ কোটি ডলারের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।Mules Grace Shoes Mules Grace Shoes Mules furst Mules GOE Mules GOE Mules happy and so Mules haircut Mules furst Mules Girza Mules happy shorts Mules hastsoon Mules hygen x Mules happy shorts Mules Ikaros Mules happy and so 

শেরী রহমান আরও বলেন, দেশের প্রায় ৭০ শতাংশ জেলা এখন পানির নিচে। মোট, পাকিস্তানের এক-তৃতীয়াংশ এলাকা প্লাবিত হয়েছে, যা মোটামুটি যুক্তরাজ্যের আয়তনের সমান।

সরকারী তথ্য অনুসারে, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত জেলার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে 110টি। এর মধ্যে 110টি বেলুচিস্তানের, 33টি খাইবার পাখতুনখোয়া থেকে, 16টি সিন্ধু প্রদেশের এবং বাকিগুলি পাঞ্জাব, গিলগিট-বালতিস্তান এবং আজাদ কাশ্মীরের।

পানির নিচে ১০ ফুট

সিন্ধু প্রদেশের দাদু জেলা ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে। তলিয়ে গেছে খয়েরপুর নাথন শাহ শহর। জোহি এবং মেহার এলাকার বাসিন্দারা তাদের শহর রক্ষার জন্য সময়ের সাথে লড়াই করছে। পানির স্তর বৃদ্ধি পাওয়ায় জোহির 50,000 বাসিন্দা এবং অন্যান্য বন্যা কবলিত গ্রাম থেকে আশ্রয় নেওয়া 10,000 মানুষ ঝুঁকিতে রয়েছে।

খয়েরপুর নাথন শাহে বন্যার পানির উচ্চতা ১০ ফুটে উঠেছে। বাস্তুচ্যুত হয়েছে হাজার হাজার মানুষ। স্থানীয় নাগরিক কমিটির সভাপতি হাফিজ আমিন জামালী বলেন, মানুষ খাবারের সন্ধানে এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় ছুটছে।

সিন্ধু মহাসড়ক ডুবে যাওয়ায় মেহর অন্যান্য এলাকা থেকে বিচ্ছিন্ন। শহর রক্ষায় বাঁধের উচ্চতা বাড়াচ্ছেন বাসিন্দারা। বন্যা কবলিত এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাসকারী ২০ বছর বয়সী দামশাদ আলী বলেন, আমরা সকাল থেকে এই বাঁধ নির্মাণ ও মজবুত করার কাজ করছি। দাদু শহরও চারদিক থেকে বিপদে পড়েছে। এদিকে এই ভয়াবহ বন্যায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে 1,911। তাদের মধ্যে 399 জন শিশু। চলতি মাসে আরও বৃষ্টির পাশাপাশি বন্যার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

উদ্ধার অভিযান শুরুর পর সেনাবাহিনী ৫০ হাজার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছে। হেলিকপ্টারে করে প্রায় এক হাজার মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে

‘পাকিস্তানের এক-তৃতীয়াংশ পানির নিচে’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

পাকিস্তানের এলাকা ১০ ফুট পানির নিচে

আপডেট সময় ০৭:২৯:৫৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২২

ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পাকিস্তান। বৃহস্পতিবার দেশটির সিন্ধু প্রদেশে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সিন্ধু নদীর ভাটিতে পানির চাপ বেড়ে যাওয়ায় দাদু জেলা প্লাবিত হয়েছে। জেলার কয়েকটি এলাকা ১০ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। ভোরের খবর।

পাকিস্তানের জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শেরি রহমান এক সম্মেলনে বলেছেন, বন্যায় দেশের ৪৫ শতাংশ ফসলি জমি ভেসে গেছে। বিশেষ করে সিন্ধু প্রদেশ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সারাদেশে প্রায় ১০০০ কোটি ডলারের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।Mules Grace Shoes Mules Grace Shoes Mules furst Mules GOE Mules GOE Mules happy and so Mules haircut Mules furst Mules Girza Mules happy shorts Mules hastsoon Mules hygen x Mules happy shorts Mules Ikaros Mules happy and so 

শেরী রহমান আরও বলেন, দেশের প্রায় ৭০ শতাংশ জেলা এখন পানির নিচে। মোট, পাকিস্তানের এক-তৃতীয়াংশ এলাকা প্লাবিত হয়েছে, যা মোটামুটি যুক্তরাজ্যের আয়তনের সমান।

সরকারী তথ্য অনুসারে, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত জেলার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে 110টি। এর মধ্যে 110টি বেলুচিস্তানের, 33টি খাইবার পাখতুনখোয়া থেকে, 16টি সিন্ধু প্রদেশের এবং বাকিগুলি পাঞ্জাব, গিলগিট-বালতিস্তান এবং আজাদ কাশ্মীরের।

পানির নিচে ১০ ফুট

সিন্ধু প্রদেশের দাদু জেলা ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে। তলিয়ে গেছে খয়েরপুর নাথন শাহ শহর। জোহি এবং মেহার এলাকার বাসিন্দারা তাদের শহর রক্ষার জন্য সময়ের সাথে লড়াই করছে। পানির স্তর বৃদ্ধি পাওয়ায় জোহির 50,000 বাসিন্দা এবং অন্যান্য বন্যা কবলিত গ্রাম থেকে আশ্রয় নেওয়া 10,000 মানুষ ঝুঁকিতে রয়েছে।

খয়েরপুর নাথন শাহে বন্যার পানির উচ্চতা ১০ ফুটে উঠেছে। বাস্তুচ্যুত হয়েছে হাজার হাজার মানুষ। স্থানীয় নাগরিক কমিটির সভাপতি হাফিজ আমিন জামালী বলেন, মানুষ খাবারের সন্ধানে এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় ছুটছে।

সিন্ধু মহাসড়ক ডুবে যাওয়ায় মেহর অন্যান্য এলাকা থেকে বিচ্ছিন্ন। শহর রক্ষায় বাঁধের উচ্চতা বাড়াচ্ছেন বাসিন্দারা। বন্যা কবলিত এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাসকারী ২০ বছর বয়সী দামশাদ আলী বলেন, আমরা সকাল থেকে এই বাঁধ নির্মাণ ও মজবুত করার কাজ করছি। দাদু শহরও চারদিক থেকে বিপদে পড়েছে। এদিকে এই ভয়াবহ বন্যায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে 1,911। তাদের মধ্যে 399 জন শিশু। চলতি মাসে আরও বৃষ্টির পাশাপাশি বন্যার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

উদ্ধার অভিযান শুরুর পর সেনাবাহিনী ৫০ হাজার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছে। হেলিকপ্টারে করে প্রায় এক হাজার মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে

‘পাকিস্তানের এক-তৃতীয়াংশ পানির নিচে’