১২:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

নকশিকাঁথার সুযোগ আছে

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:১৩:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২
  • / ১২০২ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

উদ্যোক্তারা বিভিন্ন এলাকায় এমব্রয়ডারদের ছোট দলে (10-12 জন) কাজ করে। তারা এই দলগুলোকে ‘মাঠ’ বলে।

জোয়ানা বুটিকের উদ্যোক্তা রোকসানা পারভীন বলেন, ‘একটি নকশিকাঁথা সেলাই করতে অন্তত দুইজন শ্রমিক লাগে। প্রতিটি নকশিকাঁথা সেলাই করতে কমপক্ষে দুই থেকে তিন মাস সময় লাগে। এভাবে প্রতি বছর একটি ক্ষেতে প্রায় শতাধিক নকশিকাঁথা উৎপাদন হয়। আমি আমার চারটি ক্ষেতে বছরে প্রায় 400 কাঁথা পাই। এছাড়াও, অন্যান্য পণ্য ডিজাইন করতে 5 থেকে 15 দিন সময় লাগে। ছোট্ট একটা ঘরে পাঁচজন মহিলা গোল হয়ে বসে আছে। তারা একসঙ্গে কাপড়ে সুই-সুতো দিয়ে নকশার এমব্রয়ডারি করছেন। এ দৃশ্য যশোরের অভয়নগর উপজেলার সিংহের খাজুরা গ্রামের ইয়াসমিন আরার বাড়ির। তারা দিনের বেলা ঘরের অন্যান্য কাজ করে এবং সন্ধ্যা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত নকশিকাঁথা তৈরি করে। এভাবে দেড় থেকে দুই মাস দল বেঁধে কাজ

শুধু অভয়নগরে নয়, যশোর করার পর তৈরি হয় নকশিকাঁথা।

ইয়াসমিন আরা বলেন, আমি উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে কাজের আদেশ পাই এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নকশিকাঁথা তৈরি করি।

জেলার অন্যান্য উপজেলাতেও। তাদের তৈরি এসব পণ্য চলে যায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার বিখ্যাত দোকানে।

300 বছরের পুরানো শিল্প

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যশোরের নকশিকাঁথার ইতিহাস প্রায় তিনশ বছরের পুরনো। ঝিকরগাছা উপজেলার ইতিহাসবিদ হোসেনউদ্দিন হোসেন BD OPEN NEWS

কে বলেন, নকশিকাঁথা দীর্ঘদিন ধরে যশোরের সংস্কৃতির অংশ। কিন্তু গত শতাব্দীর সত্তর দশক থেকে এর বাণিজ্যিকীকরণ হয়েছে। সে সময় একটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) স্থানীয় এমব্রয়ডারদের দিয়ে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে নকশিকাঁথা তৈরি শুরু করে। এরপর থেকে স্থানীয় অনেক উদ্যোক্তা এই ব্যবসায় যুক্ত হয়েছেন।

এ শিল্পের উদ্যোক্তারা জানান, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে নকশিকাঁথা তৈরির সবচেয়ে বেশি কাজ হয় শার্শা, মনিরামপুর, চৌগাছা, ঝিকরগাছা ও সদর উপজেলায়। তবে পুরো জেলায় উদ্যোক্তা ও এমব্রয়ডারের সঠিক সংখ্যা সম্পর্কে কোনো জরিপ বা তথ্য কারো কাছে নেই।

সুন্দর নাম নকশিকাঁথা

নকশিকাঁথা শিল্পের উদ্যোক্তা ও প্রপ্তি ফ্যাশনের স্বত্বাধিকারী আহদুজ্জোহা রুবেল বলেন, ধরণ অনুযায়ী নকশিকাঁথার বিভিন্ন নাম রয়েছে। যেমন লাহোরি কাঁথা, সুজনী কাঁথা, যশোর সেলাই, শান্তিপুরি সেলাই ইত্যাদি। এছাড়াও সেলাইয়ের নাম রয়েছে—হাশিয়া, বেকি নকশি, কাঁথা সেলাই, বরফি সেলাই, তানা সেলাই ইত্যাদি।

এমব্রয়ডারদের মতে, নকশিকাঁথায় বেকি, শামুক বাঁক, হাঁটু-ভাঙা, ঘর থেকে বাড়ি, বাসুই, তাঁতী, গীত, ভরত ইত্যাদি নাম যুক্ত করা হয়েছে। এই কাঁথা তৈরিতে কাপড় ও সুই-সুতো ছাড়াও কাগজের নকশা, ট্রেসিং পেপার ও ফ্রেম প্রয়োজন হয়।

উদ্যোক্তারা জানান, তারা ঢাকার ইসলামপুর, নরসিংদীর বাবুর হাট ও যশোরের স্থানীয় বাজার থেকে নকশিকাঁথা কাপড় কিনেছেন। ঢাকার নিউমার্কেট ও গাউছিয়া মার্কেট থেকে সুতা কেনা হয়। তিন-চার ধরনের সুতা কিনতে হয়।

উদ্যোক্তা ও কারিগররা জানান, মজুরির পরিমাণ নির্ভর করে মূলত কাঁথার আকার ও নকশার ওপর। কারিগরদের সাধারণত একটি কাঁথার জন্য প্রায় 3,000 টাকা এবং অন্যান্য পণ্যের জন্য 300 থেকে 600 টাকা দিতে হয়। দিনে তিন থেকে চার ঘণ্টা কাজ করে প্রত্যেক শ্রমিক মাসে গড়ে পাঁচ হাজার টাকা আয় করেন।

বছরে ১২ কোটি টাকার কাঁথা বিক্রি হয়

যশোরে প্রতিটি নকশিকাঁথা সর্বনিম্ন ৩,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা দরে ​​বিক্রি হয়। প্রতিটি ডিজাইন করা শাড়ির দাম 2,000 টাকা থেকে 15,000 টাকা। অন্যান্য ডিজাইনের পণ্যের দাম 300 থেকে 6 হাজার টাকা।

যশোর নকশিকাঁথা সমিতির সাধারণ সম্পাদক আহদুজ্জোহা রুবেল BD OPEN NEWS

কে বলেন, একজন উদ্যোক্তা মাসে গড়ে এক লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করতে পারেন। তাদের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে স্থানীয় শতাধিক উদ্যোক্তা জড়িত। এই হিসাবে, এটি বলা যেতে পারে যে প্রতি মাসে 1 কোটি টাকার নকশি পণ্য এবং বছরে 12 কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয়। যাইহোক, যদি প্রতিষ্ঠানের বাইরে উদ্যোক্তাদের, বিক্রয় পরিমাণ 150 মিলিয়ন রুবেল অতিক্রম করবে.

দেশের বেশ কয়েকটি বড় ফ্যাশন ব্র্যান্ডও যশোর থেকে নকশি পণ্য তৈরি করে।

উদ্যোক্তাদের তিনটি দাবি

উদ্যোক্তারা নিজেদের জন্য সহজ শর্তে ঋণ ও পণ্য বিপণন প্রদর্শনী কেন্দ্র এবং কারিগরদের প্রশিক্ষণের সুবিধা চান। তারা জানান, যশোরের এমব্রয়ডারি ও নকশিকাঁথার ঐতিহ্য অনেক পুরনো হলেও বর্তমান কাজে বৈচিত্র্য কম।

ফাতেমা খাতুন নামের একজন উদ্যোক্তা বলেন, বেশির ভাগ শ্রমিক একটি নির্দিষ্ট নকশায় কাজ করে। তাই কর্মীদের কাজের বৈচিত্র্য আনতে যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রয়োজন।

যশোর নকশিকাঁথা সমিতির সভাপতি ও টুইঙ্কল ক্রাফটের মালিক মরিয়ম নার্গিস বলেন,

উদ্যোক্তারা সমস্যায় পড়েন কারণ তাদের কাছে এটি নেই এবং উৎপাদন খরচের তুলনায় ন্যায্য মূল্য পান না। তিনি বলেন, করোনায় অনেকেই সমস্যায় পড়েছেন।

হাত বাড়িয়েছে এসএমই ফাউন্ডেশন

সব এমব্রয়ডার এবং কারিগর সব ধরণের ডিজাইন বা সেলাইয়ের বৈচিত্র্য আনতে পারে না, তবে উদ্যোক্তাদেরও বিনিয়োগ এবং পণ্য বিপণনে সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধানে এগিয়ে এসেছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) ফাউন্ডেশন। প্রতিষ্ঠানটি নকশিকাঁথা শিল্পকে চিহ্নিত করেছে

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

নকশিকাঁথার সুযোগ আছে

আপডেট সময় ০৬:১৩:৪৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ জুলাই ২০২২

উদ্যোক্তারা বিভিন্ন এলাকায় এমব্রয়ডারদের ছোট দলে (10-12 জন) কাজ করে। তারা এই দলগুলোকে ‘মাঠ’ বলে।

জোয়ানা বুটিকের উদ্যোক্তা রোকসানা পারভীন বলেন, ‘একটি নকশিকাঁথা সেলাই করতে অন্তত দুইজন শ্রমিক লাগে। প্রতিটি নকশিকাঁথা সেলাই করতে কমপক্ষে দুই থেকে তিন মাস সময় লাগে। এভাবে প্রতি বছর একটি ক্ষেতে প্রায় শতাধিক নকশিকাঁথা উৎপাদন হয়। আমি আমার চারটি ক্ষেতে বছরে প্রায় 400 কাঁথা পাই। এছাড়াও, অন্যান্য পণ্য ডিজাইন করতে 5 থেকে 15 দিন সময় লাগে। ছোট্ট একটা ঘরে পাঁচজন মহিলা গোল হয়ে বসে আছে। তারা একসঙ্গে কাপড়ে সুই-সুতো দিয়ে নকশার এমব্রয়ডারি করছেন। এ দৃশ্য যশোরের অভয়নগর উপজেলার সিংহের খাজুরা গ্রামের ইয়াসমিন আরার বাড়ির। তারা দিনের বেলা ঘরের অন্যান্য কাজ করে এবং সন্ধ্যা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত নকশিকাঁথা তৈরি করে। এভাবে দেড় থেকে দুই মাস দল বেঁধে কাজ

শুধু অভয়নগরে নয়, যশোর করার পর তৈরি হয় নকশিকাঁথা।

ইয়াসমিন আরা বলেন, আমি উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে কাজের আদেশ পাই এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নকশিকাঁথা তৈরি করি।

জেলার অন্যান্য উপজেলাতেও। তাদের তৈরি এসব পণ্য চলে যায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার বিখ্যাত দোকানে।

300 বছরের পুরানো শিল্প

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যশোরের নকশিকাঁথার ইতিহাস প্রায় তিনশ বছরের পুরনো। ঝিকরগাছা উপজেলার ইতিহাসবিদ হোসেনউদ্দিন হোসেন BD OPEN NEWS

কে বলেন, নকশিকাঁথা দীর্ঘদিন ধরে যশোরের সংস্কৃতির অংশ। কিন্তু গত শতাব্দীর সত্তর দশক থেকে এর বাণিজ্যিকীকরণ হয়েছে। সে সময় একটি বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) স্থানীয় এমব্রয়ডারদের দিয়ে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে নকশিকাঁথা তৈরি শুরু করে। এরপর থেকে স্থানীয় অনেক উদ্যোক্তা এই ব্যবসায় যুক্ত হয়েছেন।

এ শিল্পের উদ্যোক্তারা জানান, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে নকশিকাঁথা তৈরির সবচেয়ে বেশি কাজ হয় শার্শা, মনিরামপুর, চৌগাছা, ঝিকরগাছা ও সদর উপজেলায়। তবে পুরো জেলায় উদ্যোক্তা ও এমব্রয়ডারের সঠিক সংখ্যা সম্পর্কে কোনো জরিপ বা তথ্য কারো কাছে নেই।

সুন্দর নাম নকশিকাঁথা

নকশিকাঁথা শিল্পের উদ্যোক্তা ও প্রপ্তি ফ্যাশনের স্বত্বাধিকারী আহদুজ্জোহা রুবেল বলেন, ধরণ অনুযায়ী নকশিকাঁথার বিভিন্ন নাম রয়েছে। যেমন লাহোরি কাঁথা, সুজনী কাঁথা, যশোর সেলাই, শান্তিপুরি সেলাই ইত্যাদি। এছাড়াও সেলাইয়ের নাম রয়েছে—হাশিয়া, বেকি নকশি, কাঁথা সেলাই, বরফি সেলাই, তানা সেলাই ইত্যাদি।

এমব্রয়ডারদের মতে, নকশিকাঁথায় বেকি, শামুক বাঁক, হাঁটু-ভাঙা, ঘর থেকে বাড়ি, বাসুই, তাঁতী, গীত, ভরত ইত্যাদি নাম যুক্ত করা হয়েছে। এই কাঁথা তৈরিতে কাপড় ও সুই-সুতো ছাড়াও কাগজের নকশা, ট্রেসিং পেপার ও ফ্রেম প্রয়োজন হয়।

উদ্যোক্তারা জানান, তারা ঢাকার ইসলামপুর, নরসিংদীর বাবুর হাট ও যশোরের স্থানীয় বাজার থেকে নকশিকাঁথা কাপড় কিনেছেন। ঢাকার নিউমার্কেট ও গাউছিয়া মার্কেট থেকে সুতা কেনা হয়। তিন-চার ধরনের সুতা কিনতে হয়।

উদ্যোক্তা ও কারিগররা জানান, মজুরির পরিমাণ নির্ভর করে মূলত কাঁথার আকার ও নকশার ওপর। কারিগরদের সাধারণত একটি কাঁথার জন্য প্রায় 3,000 টাকা এবং অন্যান্য পণ্যের জন্য 300 থেকে 600 টাকা দিতে হয়। দিনে তিন থেকে চার ঘণ্টা কাজ করে প্রত্যেক শ্রমিক মাসে গড়ে পাঁচ হাজার টাকা আয় করেন।

বছরে ১২ কোটি টাকার কাঁথা বিক্রি হয়

যশোরে প্রতিটি নকশিকাঁথা সর্বনিম্ন ৩,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা দরে ​​বিক্রি হয়। প্রতিটি ডিজাইন করা শাড়ির দাম 2,000 টাকা থেকে 15,000 টাকা। অন্যান্য ডিজাইনের পণ্যের দাম 300 থেকে 6 হাজার টাকা।

যশোর নকশিকাঁথা সমিতির সাধারণ সম্পাদক আহদুজ্জোহা রুবেল BD OPEN NEWS

কে বলেন, একজন উদ্যোক্তা মাসে গড়ে এক লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করতে পারেন। তাদের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে স্থানীয় শতাধিক উদ্যোক্তা জড়িত। এই হিসাবে, এটি বলা যেতে পারে যে প্রতি মাসে 1 কোটি টাকার নকশি পণ্য এবং বছরে 12 কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয়। যাইহোক, যদি প্রতিষ্ঠানের বাইরে উদ্যোক্তাদের, বিক্রয় পরিমাণ 150 মিলিয়ন রুবেল অতিক্রম করবে.

দেশের বেশ কয়েকটি বড় ফ্যাশন ব্র্যান্ডও যশোর থেকে নকশি পণ্য তৈরি করে।

উদ্যোক্তাদের তিনটি দাবি

উদ্যোক্তারা নিজেদের জন্য সহজ শর্তে ঋণ ও পণ্য বিপণন প্রদর্শনী কেন্দ্র এবং কারিগরদের প্রশিক্ষণের সুবিধা চান। তারা জানান, যশোরের এমব্রয়ডারি ও নকশিকাঁথার ঐতিহ্য অনেক পুরনো হলেও বর্তমান কাজে বৈচিত্র্য কম।

ফাতেমা খাতুন নামের একজন উদ্যোক্তা বলেন, বেশির ভাগ শ্রমিক একটি নির্দিষ্ট নকশায় কাজ করে। তাই কর্মীদের কাজের বৈচিত্র্য আনতে যথাযথ প্রশিক্ষণ প্রয়োজন।

যশোর নকশিকাঁথা সমিতির সভাপতি ও টুইঙ্কল ক্রাফটের মালিক মরিয়ম নার্গিস বলেন,

উদ্যোক্তারা সমস্যায় পড়েন কারণ তাদের কাছে এটি নেই এবং উৎপাদন খরচের তুলনায় ন্যায্য মূল্য পান না। তিনি বলেন, করোনায় অনেকেই সমস্যায় পড়েছেন।

হাত বাড়িয়েছে এসএমই ফাউন্ডেশন

সব এমব্রয়ডার এবং কারিগর সব ধরণের ডিজাইন বা সেলাইয়ের বৈচিত্র্য আনতে পারে না, তবে উদ্যোক্তাদেরও বিনিয়োগ এবং পণ্য বিপণনে সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধানে এগিয়ে এসেছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) ফাউন্ডেশন। প্রতিষ্ঠানটি নকশিকাঁথা শিল্পকে চিহ্নিত করেছে