১০:৪১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

দেশের প্রকৌশলীদের প্রচেষ্টায় কিভাবে ডেমু ট্রেন চালু হলো

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:৩৬:০৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ৪২০ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

চীন থেকে আমদানি করা ডেমু ট্রেন দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়েছিল। দেশের প্রকৌশলীদের প্রচেষ্টায় তাদের সক্রিয় করা হচ্ছে। দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিজেল ওয়ার্কশপে নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে পাঁচটি ডেমু ট্রেন চালু করা হয়েছে। একই প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাকি ১৫টি ডেমু ট্রেন মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে ৬৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০ সেট ডেমু ট্রেন আমদানি করা হয়। উদ্দেশ্য ছিল সেই ট্রেনগুলির মাধ্যমে কম দূরত্বে আরও বেশি যাত্রী পরিবহন করা। ডেমো ট্রেনের নির্মাতা চীনের ট্যানসন ইন্টারন্যাশনাল এবং ড্যানিয়াল টেকনিক্যাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট। কম্পিউটার-নিয়ন্ত্রিত ট্রেনগুলো বিশেষ সফটওয়্যার দিয়ে পরিচালিত হয়। ডেমু ট্রেন সরবরাহকারী চীনা কোম্পানি কখনোই বাংলাদেশকে এই প্রযুক্তি দেয়নি।

এর মডিউল ব্যর্থ হলে, নতুন মডিউল সহ সফ্টওয়্যার সেটআপ প্রয়োজন হবে। এর জন্য চীনা প্রকৌশলী নিয়োগ করতে হয়েছিল, যা ছিল ব্যয়বহুল। একটি ডেমোতে 40টি মডিউল রয়েছে। এগুলোর প্রতিটির দাম প্রায় সাত লাখ টাকা। চীনা প্রকৌশলীরা প্রযুক্তি স্থানান্তর না করায় একের পর এক ডেমু ট্রেন ভেঙে পড়ে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় সুপারভাইজার মো. সাদেকুর রহমান বলেন, ওই ট্রেনগুলো দেশে বেশ জনপ্রিয় ছিল। স্বল্প দূরত্বের জন্য আনা হলেও, সেগুলোও দীর্ঘ দূরত্বে চালানো হয়েছে। 2020 সালে মেরামতের অভাবে ট্রেনগুলি ভেঙে যায়। বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) সেগুলো সক্রিয় করার উদ্যোগ নেন। মনজুর উল আলম চৌধুরী।

ডেমু ট্রেন চালানোর বিষয়ে প্রকৌশলী মো. আসাদুজ্জামানের সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে। তিনি বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের একজন প্রাক্তন কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) প্রাক্তন ছাত্র। কাজ শুরুর আড়াই মাসের মধ্যে ডেমু ট্রেন চালানোর জন্য কী ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে তা বের করেন আসাদুজ্জামান। ব্যয়বহুল মডিউলের পরিবর্তে শুধুমাত্র দুটি কন্ট্রোলার ইনস্টল করা হয়। আর সেই সঙ্গে চালু হল প্রথম ডেমু ট্রেন।

মো: আসাদুজ্জামান বলেন, “দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা পাঁচ সেট ডেমু ট্রেন পরিচালনা করতে সক্ষম হয়েছি। দুই পাশে দুটি ইঞ্জিন, মাঝখানে একটি কোচ। এই আধুনিক ট্রেনগুলোর লোড ধীরে ধীরে বাড়িয়ে টেস্ট রান সম্পন্ন করা হয়েছে। আমরা আটটি পরীক্ষামূলক পদক্ষেপের প্রতিটিতে সফলতা পাওয়া গেছে।একটি ডেমু ট্রেন মেরামত করতে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা খরচ হয়, চীনের প্রযুক্তি দিয়ে মেরামত করতে প্রায় ৩ কোটি টাকা খরচ হতো।

পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার প্রধান নির্বাহী মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, “দেশীয় প্রযুক্তিতে ডেমো ট্রেন মেরামত করা আমাদের বড় অর্জন। এটাকে একটি বড় সাফল্য বলা যেতে পারে। এই প্রযুক্তি দিয়ে ট্রেন মেরামত করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হয়েছে। তবে এ ধরনের মেরামতের জন্য আমাদের একটি ডেডিকেটেড রেলওয়ে কারখানা দরকার। ডেমো

মোঃ মনজুর উল আলম চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের প্রকৌশলীরা অকেজো ডেমু ট্রেন মেরামত করে যুগান্তকারী সাফল্য দেখিয়েছেন। আমাদের জনশক্তি এটি পরীক্ষায় দক্ষ হয়েছে। তাদের মাধ্যমে, পরবর্তী মেরামত সহজ হবে। আমরা সমস্ত ডেমু ট্রেন মেরামত করব, যা গণপরিবহন পরিষেবা বৃদ্ধি করবে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

দেশের প্রকৌশলীদের প্রচেষ্টায় কিভাবে ডেমু ট্রেন চালু হলো

আপডেট সময় ০৫:৩৬:০৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

চীন থেকে আমদানি করা ডেমু ট্রেন দীর্ঘদিন ধরে অকেজো হয়ে পড়েছিল। দেশের প্রকৌশলীদের প্রচেষ্টায় তাদের সক্রিয় করা হচ্ছে। দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিজেল ওয়ার্কশপে নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যবহার করে পাঁচটি ডেমু ট্রেন চালু করা হয়েছে। একই প্রযুক্তি ব্যবহার করে বাকি ১৫টি ডেমু ট্রেন মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ২০১৩ সালে ৬৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০ সেট ডেমু ট্রেন আমদানি করা হয়। উদ্দেশ্য ছিল সেই ট্রেনগুলির মাধ্যমে কম দূরত্বে আরও বেশি যাত্রী পরিবহন করা। ডেমো ট্রেনের নির্মাতা চীনের ট্যানসন ইন্টারন্যাশনাল এবং ড্যানিয়াল টেকনিক্যাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট। কম্পিউটার-নিয়ন্ত্রিত ট্রেনগুলো বিশেষ সফটওয়্যার দিয়ে পরিচালিত হয়। ডেমু ট্রেন সরবরাহকারী চীনা কোম্পানি কখনোই বাংলাদেশকে এই প্রযুক্তি দেয়নি।

এর মডিউল ব্যর্থ হলে, নতুন মডিউল সহ সফ্টওয়্যার সেটআপ প্রয়োজন হবে। এর জন্য চীনা প্রকৌশলী নিয়োগ করতে হয়েছিল, যা ছিল ব্যয়বহুল। একটি ডেমোতে 40টি মডিউল রয়েছে। এগুলোর প্রতিটির দাম প্রায় সাত লাখ টাকা। চীনা প্রকৌশলীরা প্রযুক্তি স্থানান্তর না করায় একের পর এক ডেমু ট্রেন ভেঙে পড়ে।

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় সুপারভাইজার মো. সাদেকুর রহমান বলেন, ওই ট্রেনগুলো দেশে বেশ জনপ্রিয় ছিল। স্বল্প দূরত্বের জন্য আনা হলেও, সেগুলোও দীর্ঘ দূরত্বে চালানো হয়েছে। 2020 সালে মেরামতের অভাবে ট্রেনগুলি ভেঙে যায়। বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) সেগুলো সক্রিয় করার উদ্যোগ নেন। মনজুর উল আলম চৌধুরী।

ডেমু ট্রেন চালানোর বিষয়ে প্রকৌশলী মো. আসাদুজ্জামানের সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে। তিনি বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের একজন প্রাক্তন কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) প্রাক্তন ছাত্র। কাজ শুরুর আড়াই মাসের মধ্যে ডেমু ট্রেন চালানোর জন্য কী ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে তা বের করেন আসাদুজ্জামান। ব্যয়বহুল মডিউলের পরিবর্তে শুধুমাত্র দুটি কন্ট্রোলার ইনস্টল করা হয়। আর সেই সঙ্গে চালু হল প্রথম ডেমু ট্রেন।

মো: আসাদুজ্জামান বলেন, “দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা পাঁচ সেট ডেমু ট্রেন পরিচালনা করতে সক্ষম হয়েছি। দুই পাশে দুটি ইঞ্জিন, মাঝখানে একটি কোচ। এই আধুনিক ট্রেনগুলোর লোড ধীরে ধীরে বাড়িয়ে টেস্ট রান সম্পন্ন করা হয়েছে। আমরা আটটি পরীক্ষামূলক পদক্ষেপের প্রতিটিতে সফলতা পাওয়া গেছে।একটি ডেমু ট্রেন মেরামত করতে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা খরচ হয়, চীনের প্রযুক্তি দিয়ে মেরামত করতে প্রায় ৩ কোটি টাকা খরচ হতো।

পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার প্রধান নির্বাহী মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, “দেশীয় প্রযুক্তিতে ডেমো ট্রেন মেরামত করা আমাদের বড় অর্জন। এটাকে একটি বড় সাফল্য বলা যেতে পারে। এই প্রযুক্তি দিয়ে ট্রেন মেরামত করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হয়েছে। তবে এ ধরনের মেরামতের জন্য আমাদের একটি ডেডিকেটেড রেলওয়ে কারখানা দরকার। ডেমো

মোঃ মনজুর উল আলম চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের প্রকৌশলীরা অকেজো ডেমু ট্রেন মেরামত করে যুগান্তকারী সাফল্য দেখিয়েছেন। আমাদের জনশক্তি এটি পরীক্ষায় দক্ষ হয়েছে। তাদের মাধ্যমে, পরবর্তী মেরামত সহজ হবে। আমরা সমস্ত ডেমু ট্রেন মেরামত করব, যা গণপরিবহন পরিষেবা বৃদ্ধি করবে।’