১০:১৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

ডিপোটির জরুরি” প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনায় যথেষ্ট দুর্বলতা ছিল।”

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৩৩:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ জুন ২০২২
  • / ৮৩৬ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ইয়াসির আরাফাত খান। তিনি কারখানায় রাসায়নিক দুর্ঘটনা নিয়ে গবেষণা করেন। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের বিষয়ে তিনি প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পার্থ শঙ্কর সাহা।

বিডি ওপেন নিউস: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে (বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত) অন্তত ৪৯ জন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনাস্থলে হাইড্রোজেন পারক্সাইড উপস্থিত রয়েছে বলে জানা গেছে। এই রাসায়নিক সম্পর্কে কিছু বলুন.

ইয়াসির আরাফাত: দুর্ঘটনার পর সেখানে হাইড্রোজেন পারক্সাইড পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে। কিন্তু আমি মনে করি না যে হাইড্রোজেন পারক্সাইড একাই এত দুর্ঘটনা এবং বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। হাইড্রোজেন পারক্সাইডের প্রকৃতি হল যে এটি নিজে জ্বলে না। এটি একটি প্রতিক্রিয়াশীল এবং অক্সিডাইজিং রাসায়নিক। তবে আগুন লাগার ক্ষেত্রে তা ছড়াতে অনেক সাহায্য করে। ফলে আগুন নেভানোর কাজ কঠিন হয়ে পড়ে।

বিডি ওপেন নিউস: তাহলে দুর্ঘটনা এত ব্যাপক হলো কীভাবে?

ইয়াসির আরাফাত: দেখুন, নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। কিন্তু আমি নিশ্চিত হাইড্রোজেন পারক্সাইড ছাড়াও অন্যান্য রাসায়নিক ছিল। আর এসবের সঙ্গে এক ধরনের রাসায়নিক বিক্রিয়ায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। অন্য কোন দাহ্য পদার্থ এখানে ছিল. জায়গাটি বন্ধ ছিল, তাই সেখানে অন্যান্য রাসায়নিক পদার্থের মিশ্রণ ছিল এবং আগুন ভয়াবহ রূপ নেয়।

বিডি ওপেন নিউস: বাংলাদেশে হাইড্রোজেন পারক্সাইডের ব্যবহার কোথায়, কোথা থেকে আসে?

ইয়াসির আরাফাত: এটি বাংলাদেশের টেক্সটাইল সেক্টরে ব্যবহৃত হয়। এসব কারখানায় এটি ব্লিচিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। এটি বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি কারখানায় উৎপাদিত হয়। আবার ভারত থেকে কিছু আসে। তবে আমাদের দেশে বড় বড় উৎপাদক আছে।

বিডি ওপেন নিউস: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতেও বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এটা কিভাবে সম্ভব?

ইয়াসির আরাফাত: এটা একটা কনটেইনার ডিপো। কিন্তু পাত্রগুলো বন্ধ। এর মধ্যে অন্যান্য দাহ্য পদার্থ যেমন ইথানল, মিথানল বা বিভিন্ন উদ্বায়ী পদার্থ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। আমার ধারণা এগুলোর সাথে একটি বিস্ফোরক মিশ্রণ তৈরি হয়েছে এবং বিস্ফোরণ ঘটছে। তবে, বড় বিস্ফোরক (যেমন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট) সেখানে নাও থাকতে পারে। এর আগেও বিভিন্ন দেশের একাধিক বন্দরে বিস্ফোরক থাকায় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ হয়েছে। সৌভাগ্যক্রমে আমাদের এখানে কোনো বিস্ফোরক ছিল না।

বিডি ওপেন নিউস: কোন দুর্ঘটনার কথা বলছেন?

ইয়াসির আরাফাত: এর আগে, 2015 সালে, চীনের জিয়াংজিং বন্দরের একটি কন্টেইনার ডিপোতে এবং 2020 সালে বৈরুত বন্দরের একটি কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লেগেছিল। এতে শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়। ওই সব বন্দরের কন্টেইনারে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো বিস্ফোরক ছিল। তাই পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠেছে, মৃতের সংখ্যা অনেক বেশি।

বিডি ওপেন নিউস: সীতাকুণ্ড দুর্ঘটনায় প্রাণহানির পরিমাণও কম নয়। কেন আপনি এটা এত স্পষ্ট মনে করেন?

ইয়াসির আরাফাত: আগুনের তিনটি পর্যায় রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে সূচনা, বৃদ্ধি এবং সম্প্রসারণ। তৃতীয় স্তরে এটি নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। বড় আকারের দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে, দুর্বলতার কয়েকটি স্তর রয়েছে। একটি প্রতিষ্ঠানে আগুন লাগানো দুর্বলতার উদাহরণ। তখন সেটাকে বাড়তে দেওয়া আরেক ধরনের দুর্বলতা। এটি প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে অগ্নিনির্বাপকদের থেকেও হতে পারে।

বিডি ওপেন নিউস: সীতাকুণ্ডের ক্ষেত্রে কী ধরনের দুর্বলতা ও ঘাটতি ছিল বলে আপনি মনে করেন?

ইয়াসির আরাফাত: রাসায়নিক আগুনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে, আপনাকে প্রথমে এটি পুড়িয়ে ফেলতে হবে এবং আগুন যাতে ছড়িয়ে না যায় তা নিশ্চিত করতে হবে। তারপর জরুরীভাবে জায়গাটি খালি করা দরকার। যেকোনো দুর্ঘটনার পর এটাই প্রথম পদক্ষেপ হওয়া উচিত। কিন্তু পর্যাপ্ত জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনার অভাব ছিল। দুর্ঘটনা মোকাবেলায় যেকোনো প্রতিষ্ঠানের জরুরি পরিকল্পনা থাকা উচিত। ওই পরিকল্পনায় প্রতিষ্ঠানের কোন পণ্য কোথায় আছে, সেগুলো কীভাবে নিরাপদ, এসব বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এই জরুরী পরিকল্পনা অগ্নিনির্বাপকদের কাছে হস্তান্তর করা দরকার। আমার মতে, ফায়ার সার্ভিসকে এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা দেওয়া হয়নি। যদি তারা করত তাহলে তারা এভাবে পানি নিয়ে ছুটত না। প্রাথমিকভাবে ফায়ার সার্ভিসকে এ তথ্য দিলে তারা সতর্কতা অবলম্বন করলে এত প্রাণহানি হতো না।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ডিপোটির জরুরি” প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনায় যথেষ্ট দুর্বলতা ছিল।”

আপডেট সময় ০৩:৩৩:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ জুন ২০২২

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ইয়াসির আরাফাত খান। তিনি কারখানায় রাসায়নিক দুর্ঘটনা নিয়ে গবেষণা করেন। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের বিষয়ে তিনি প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পার্থ শঙ্কর সাহা।

বিডি ওপেন নিউস: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে (বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত) অন্তত ৪৯ জন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনাস্থলে হাইড্রোজেন পারক্সাইড উপস্থিত রয়েছে বলে জানা গেছে। এই রাসায়নিক সম্পর্কে কিছু বলুন.

ইয়াসির আরাফাত: দুর্ঘটনার পর সেখানে হাইড্রোজেন পারক্সাইড পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে। কিন্তু আমি মনে করি না যে হাইড্রোজেন পারক্সাইড একাই এত দুর্ঘটনা এবং বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। হাইড্রোজেন পারক্সাইডের প্রকৃতি হল যে এটি নিজে জ্বলে না। এটি একটি প্রতিক্রিয়াশীল এবং অক্সিডাইজিং রাসায়নিক। তবে আগুন লাগার ক্ষেত্রে তা ছড়াতে অনেক সাহায্য করে। ফলে আগুন নেভানোর কাজ কঠিন হয়ে পড়ে।

বিডি ওপেন নিউস: তাহলে দুর্ঘটনা এত ব্যাপক হলো কীভাবে?

ইয়াসির আরাফাত: দেখুন, নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না। কিন্তু আমি নিশ্চিত হাইড্রোজেন পারক্সাইড ছাড়াও অন্যান্য রাসায়নিক ছিল। আর এসবের সঙ্গে এক ধরনের রাসায়নিক বিক্রিয়ায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। অন্য কোন দাহ্য পদার্থ এখানে ছিল. জায়গাটি বন্ধ ছিল, তাই সেখানে অন্যান্য রাসায়নিক পদার্থের মিশ্রণ ছিল এবং আগুন ভয়াবহ রূপ নেয়।

বিডি ওপেন নিউস: বাংলাদেশে হাইড্রোজেন পারক্সাইডের ব্যবহার কোথায়, কোথা থেকে আসে?

ইয়াসির আরাফাত: এটি বাংলাদেশের টেক্সটাইল সেক্টরে ব্যবহৃত হয়। এসব কারখানায় এটি ব্লিচিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। এটি বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি কারখানায় উৎপাদিত হয়। আবার ভারত থেকে কিছু আসে। তবে আমাদের দেশে বড় বড় উৎপাদক আছে।

বিডি ওপেন নিউস: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতেও বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এটা কিভাবে সম্ভব?

ইয়াসির আরাফাত: এটা একটা কনটেইনার ডিপো। কিন্তু পাত্রগুলো বন্ধ। এর মধ্যে অন্যান্য দাহ্য পদার্থ যেমন ইথানল, মিথানল বা বিভিন্ন উদ্বায়ী পদার্থ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। আমার ধারণা এগুলোর সাথে একটি বিস্ফোরক মিশ্রণ তৈরি হয়েছে এবং বিস্ফোরণ ঘটছে। তবে, বড় বিস্ফোরক (যেমন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট) সেখানে নাও থাকতে পারে। এর আগেও বিভিন্ন দেশের একাধিক বন্দরে বিস্ফোরক থাকায় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ হয়েছে। সৌভাগ্যক্রমে আমাদের এখানে কোনো বিস্ফোরক ছিল না।

বিডি ওপেন নিউস: কোন দুর্ঘটনার কথা বলছেন?

ইয়াসির আরাফাত: এর আগে, 2015 সালে, চীনের জিয়াংজিং বন্দরের একটি কন্টেইনার ডিপোতে এবং 2020 সালে বৈরুত বন্দরের একটি কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লেগেছিল। এতে শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়। ওই সব বন্দরের কন্টেইনারে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো বিস্ফোরক ছিল। তাই পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠেছে, মৃতের সংখ্যা অনেক বেশি।

বিডি ওপেন নিউস: সীতাকুণ্ড দুর্ঘটনায় প্রাণহানির পরিমাণও কম নয়। কেন আপনি এটা এত স্পষ্ট মনে করেন?

ইয়াসির আরাফাত: আগুনের তিনটি পর্যায় রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে সূচনা, বৃদ্ধি এবং সম্প্রসারণ। তৃতীয় স্তরে এটি নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। বড় আকারের দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে, দুর্বলতার কয়েকটি স্তর রয়েছে। একটি প্রতিষ্ঠানে আগুন লাগানো দুর্বলতার উদাহরণ। তখন সেটাকে বাড়তে দেওয়া আরেক ধরনের দুর্বলতা। এটি প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে অগ্নিনির্বাপকদের থেকেও হতে পারে।

বিডি ওপেন নিউস: সীতাকুণ্ডের ক্ষেত্রে কী ধরনের দুর্বলতা ও ঘাটতি ছিল বলে আপনি মনে করেন?

ইয়াসির আরাফাত: রাসায়নিক আগুনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে, আপনাকে প্রথমে এটি পুড়িয়ে ফেলতে হবে এবং আগুন যাতে ছড়িয়ে না যায় তা নিশ্চিত করতে হবে। তারপর জরুরীভাবে জায়গাটি খালি করা দরকার। যেকোনো দুর্ঘটনার পর এটাই প্রথম পদক্ষেপ হওয়া উচিত। কিন্তু পর্যাপ্ত জরুরি প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনার অভাব ছিল। দুর্ঘটনা মোকাবেলায় যেকোনো প্রতিষ্ঠানের জরুরি পরিকল্পনা থাকা উচিত। ওই পরিকল্পনায় প্রতিষ্ঠানের কোন পণ্য কোথায় আছে, সেগুলো কীভাবে নিরাপদ, এসব বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এই জরুরী পরিকল্পনা অগ্নিনির্বাপকদের কাছে হস্তান্তর করা দরকার। আমার মতে, ফায়ার সার্ভিসকে এ ধরনের কোনো পরিকল্পনা দেওয়া হয়নি। যদি তারা করত তাহলে তারা এভাবে পানি নিয়ে ছুটত না। প্রাথমিকভাবে ফায়ার সার্ভিসকে এ তথ্য দিলে তারা সতর্কতা অবলম্বন করলে এত প্রাণহানি হতো না।