১১:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪

জলবায়ু পরিবর্তন: পাকিস্তানের জ্যাকোবাবাদে মায়েদের জন্য কঠিন জীবন

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:৩৬:২৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন ২০২২
  • / ৭৪৮ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

সোনারি নামে এক গর্ভবতী তরুণী পাকিস্তানের জ্যাকোবাবাদ এলাকার একটি বাগানে কাজ করেন। মাথায় রোদের তীব্র তাপ। ওয়াডেরি, 16 বছর বয়সী একটি মেয়ে যে কয়েক সপ্তাহ আগে জন্ম দিয়েছে, পাশের বাড়িতে কাজ করছে। তিনি শিশুটিকে পাশের ছায়ায় একটি বিছানা পেতে শুইয়ে দিয়েছেন, যাতে সে কাঁদলে তাকে খাওয়ানো যায়। গত মাসে জ্যাকোবাবাদ বিশ্বের উষ্ণতম শহরের নাম ঘোষণা করেছে। “আমরা গ্রীষ্মে গর্ভবতী হই,” বলেন সোনারি, ২৫।

দক্ষিণ পাকিস্তানের এই মহিলাদের মতো, বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ মহিলা জলবায়ু পরিবর্তনের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে৷ গর্ভবতী নারীদের অসহনীয় তাপমাত্রায় কাজ করতে বাধ্য হওয়ার স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রয়টার্স।

2020 সালে কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির জলবায়ু ও স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ক গ্লোবাল কনসোর্টিয়ামের একটি বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে গর্ভবতী মহিলারা যারা উচ্চ তাপমাত্রায় দীর্ঘ সময় কাজ করেন তাদের জটিলতার ঝুঁকি বেশি। তাপমাত্রায় 1 ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি মৃত শিশুর জন্মের হার প্রায় 5 শতাংশ বৃদ্ধি করে।

1990 সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত 70টি গবেষণা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিশ্লেষণটি 2020 সালের সেপ্টেম্বরে ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত হয়েছিল।

কনসোর্টিয়ামের ডিরেক্টর সিসিলিয়া সোরেনসেন বলেন, নারীদের স্বাস্থ্যের ওপর বৈশ্বিক উষ্ণায়নের প্রভাব অনেকাংশে উপেক্ষা করা হয়। এই সম্পর্কে সঠিক তথ্য না থাকার কারণে, মহিলাদের উপর এর প্রভাব জানা যায়নি। এ ছাড়া দরিদ্র নারীরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই চিকিৎসা নিতে যান না।

বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোর নারীরা বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ঝুঁকিতে বেশি। কারণ, এসব দেশের অনেক নারীকে গর্ভবতী অবস্থায় বা সন্তান প্রসবের কয়েক দিনের মধ্যে কাজে যোগ দিতে হয়। সামাজিকভাবে রক্ষণশীল পাকিস্তান সহ অনেক জায়গায়, মহিলারা খামারে কাজ করে এবং বাড়িতে গরম চুলা বা খোলা কাঠের চুলায় রান্না করে। রান্নাঘরে তেমন বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা নেই।

সোরেনসেন বলেছিলেন যে বাইরের উচ্চ তাপমাত্রা, সেইসাথে বাড়িতে খোলা চুলায় রান্না করার সময় যে ধরণের তাপমাত্রার সংস্পর্শে আসতে হয়, চরম আর্দ্রতার সাথে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ করে তোলে।

বৈশ্বিক উষ্ণতা শিল্প বিপ্লবের আগের তুলনায় প্রায় 1.2 ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো সাম্প্রতিক মাসগুলোতে অস্বাভাবিক তাপমাত্রার সম্মুখীন হচ্ছে। আবহাওয়া গবেষণা সংস্থা ওয়ার্ল্ড ওয়েদার অ্যাট্রিবিউশনের বিজ্ঞানীদের মতে এপ্রিল মাসে পাকিস্তান ও ভারতে চরম তাপপ্রবাহ পরিলক্ষিত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এ ধরনের তাপপ্রবাহের ঝুঁকি ৩০ গুণ বেড়েছে।

আর্দ্রতা যত বেশি হবে, মানুষের ঘাম ও শীতল হওয়ার সম্ভাবনা তত কম। ‘ওয়েট বাল্ব টেম্পারেচার’ পদ্ধতির মাধ্যমে এই অবস্থা নির্ণয় করা হয়। এই পদ্ধতিতে, একটি ভেজা কাপড়ে একটি থার্মোমিটার মুড়িয়ে তাপমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। 35 সেলসিয়াস পর্যন্ত ওজনের বাল্বের তাপমাত্রা মানুষের বেঁচে থাকার সীমা বলে মনে করা হয়।

জ্যাকোবাবাদ এলাকার তাপমাত্রা 2010 সাল থেকে অন্তত দুইবার সীমা অতিক্রম করেছে। 14 মে শহরের তাপমাত্রা 51 ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছে। প্রতিবেদনটি সংকলন করতে রয়টার্স জ্যাকোবাবাদের এক ডজনেরও বেশি নারী বাসিন্দা এবং বেশ কয়েকজন উন্নয়ন ও মানবাধিকার বিশেষজ্ঞের সাক্ষাৎকার নিয়েছে।

সোনারি ও ওয়াদেরী যে খামারে কাজ করে সেটি জ্যাকোবাবাদের প্রাণকেন্দ্র থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে। সেটা খেতে কাজ করছেন আরও কয়েকজন গর্ভবতী মহিলা। প্রতিদিন সকাল ছয়টা থেকে তাদের কাজ শুরু হয়। দুপুরে বাড়ির কাজ এবং রান্নার জন্য একটি ছোট বিরতি পান। তারপর তারা আবার কাজ করতে খেতে ফিরে যায়। তারা সেখানে সূর্যাস্ত পর্যন্ত কাজ করে। নবজাতক মা এবং গর্ভবতী মহিলারা তাদের পায়ে ব্যথা, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় অস্বস্তির কথা জানান। অসহ্য গরমে কাজ করতে গিয়ে হিট স্ট্রোক

কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন নামে একটি অলাভজনক সংস্থার উদ্যোগে জ্যাকোবাবাদ শহরে তিনটি হিট স্ট্রোক সেবা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে।

14 মে জ্যাকোবাবাদে তাপমাত্রা 51 ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছিল। সে সময় এটি বিশ্বের উষ্ণতম শহরে পরিণত হয়। এদিন নাজিয়া নামে স্থানীয় এক নারী তার বাড়িতে আগত অতিথিদের জন্য রান্না করছিলেন। তার রান্নাঘরে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ বা পাখা ছিল না। রান্না করার সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কাছের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি স্ট্রোক করে মারা গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে জ্যাকোবাবাদে চরম তাপজনিত মৃত্যুর রেকর্ড সম্পর্কে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকরা মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছেন৷ নাজিয়ার ঘটনার বিষয়ে তারা কিছু বলেননি।

পরদিন নাজিয়ার লাশ দাফনের জন্য গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। নাজিয়ার বড় সন্তানের বয়স পাঁচ বছর এবং ছোটটির বয়স এক বছর।

যে কারণে গরিব মানুষ এয়ার কন্ডিশনার বা ফ্যান ব্যবহার করতে পারে না। এছাড়াও, এই ধরনের ঘন ঘন তাপপ্রবাহ থেকে মহিলাদের রক্ষা করতে কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। খোলা চুলার পরিবর্তে নবায়নযোগ্য জ্বালানি দ্বারা চালিত চুলা ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়া সকাল বা সন্ধ্যায় নারীদের চিকিৎসা ও সামাজিক সেবার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। কারণ, ওই সময় আবহাওয়া তুলনামূলকভাবে ঠাণ্ডা থাকে। সূর্যের রশ্মি যাতে ঘরে না পৌঁছায় সেজন্য শীতল উপকরণ সহ একটি টিনের চালা ব্যবহার করতে হবে।

পানির সংকট

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

জলবায়ু পরিবর্তন: পাকিস্তানের জ্যাকোবাবাদে মায়েদের জন্য কঠিন জীবন

আপডেট সময় ০৫:৩৬:২৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন ২০২২

সোনারি নামে এক গর্ভবতী তরুণী পাকিস্তানের জ্যাকোবাবাদ এলাকার একটি বাগানে কাজ করেন। মাথায় রোদের তীব্র তাপ। ওয়াডেরি, 16 বছর বয়সী একটি মেয়ে যে কয়েক সপ্তাহ আগে জন্ম দিয়েছে, পাশের বাড়িতে কাজ করছে। তিনি শিশুটিকে পাশের ছায়ায় একটি বিছানা পেতে শুইয়ে দিয়েছেন, যাতে সে কাঁদলে তাকে খাওয়ানো যায়। গত মাসে জ্যাকোবাবাদ বিশ্বের উষ্ণতম শহরের নাম ঘোষণা করেছে। “আমরা গ্রীষ্মে গর্ভবতী হই,” বলেন সোনারি, ২৫।

দক্ষিণ পাকিস্তানের এই মহিলাদের মতো, বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ মহিলা জলবায়ু পরিবর্তনের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে৷ গর্ভবতী নারীদের অসহনীয় তাপমাত্রায় কাজ করতে বাধ্য হওয়ার স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে রয়টার্স।

2020 সালে কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির জলবায়ু ও স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ক গ্লোবাল কনসোর্টিয়ামের একটি বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে গর্ভবতী মহিলারা যারা উচ্চ তাপমাত্রায় দীর্ঘ সময় কাজ করেন তাদের জটিলতার ঝুঁকি বেশি। তাপমাত্রায় 1 ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি মৃত শিশুর জন্মের হার প্রায় 5 শতাংশ বৃদ্ধি করে।

1990 সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত 70টি গবেষণা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিশ্লেষণটি 2020 সালের সেপ্টেম্বরে ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত হয়েছিল।

কনসোর্টিয়ামের ডিরেক্টর সিসিলিয়া সোরেনসেন বলেন, নারীদের স্বাস্থ্যের ওপর বৈশ্বিক উষ্ণায়নের প্রভাব অনেকাংশে উপেক্ষা করা হয়। এই সম্পর্কে সঠিক তথ্য না থাকার কারণে, মহিলাদের উপর এর প্রভাব জানা যায়নি। এ ছাড়া দরিদ্র নারীরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই চিকিৎসা নিতে যান না।

বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোর নারীরা বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ঝুঁকিতে বেশি। কারণ, এসব দেশের অনেক নারীকে গর্ভবতী অবস্থায় বা সন্তান প্রসবের কয়েক দিনের মধ্যে কাজে যোগ দিতে হয়। সামাজিকভাবে রক্ষণশীল পাকিস্তান সহ অনেক জায়গায়, মহিলারা খামারে কাজ করে এবং বাড়িতে গরম চুলা বা খোলা কাঠের চুলায় রান্না করে। রান্নাঘরে তেমন বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা নেই।

সোরেনসেন বলেছিলেন যে বাইরের উচ্চ তাপমাত্রা, সেইসাথে বাড়িতে খোলা চুলায় রান্না করার সময় যে ধরণের তাপমাত্রার সংস্পর্শে আসতে হয়, চরম আর্দ্রতার সাথে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ করে তোলে।

বৈশ্বিক উষ্ণতা শিল্প বিপ্লবের আগের তুলনায় প্রায় 1.2 ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো সাম্প্রতিক মাসগুলোতে অস্বাভাবিক তাপমাত্রার সম্মুখীন হচ্ছে। আবহাওয়া গবেষণা সংস্থা ওয়ার্ল্ড ওয়েদার অ্যাট্রিবিউশনের বিজ্ঞানীদের মতে এপ্রিল মাসে পাকিস্তান ও ভারতে চরম তাপপ্রবাহ পরিলক্ষিত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এ ধরনের তাপপ্রবাহের ঝুঁকি ৩০ গুণ বেড়েছে।

আর্দ্রতা যত বেশি হবে, মানুষের ঘাম ও শীতল হওয়ার সম্ভাবনা তত কম। ‘ওয়েট বাল্ব টেম্পারেচার’ পদ্ধতির মাধ্যমে এই অবস্থা নির্ণয় করা হয়। এই পদ্ধতিতে, একটি ভেজা কাপড়ে একটি থার্মোমিটার মুড়িয়ে তাপমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। 35 সেলসিয়াস পর্যন্ত ওজনের বাল্বের তাপমাত্রা মানুষের বেঁচে থাকার সীমা বলে মনে করা হয়।

জ্যাকোবাবাদ এলাকার তাপমাত্রা 2010 সাল থেকে অন্তত দুইবার সীমা অতিক্রম করেছে। 14 মে শহরের তাপমাত্রা 51 ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছে। প্রতিবেদনটি সংকলন করতে রয়টার্স জ্যাকোবাবাদের এক ডজনেরও বেশি নারী বাসিন্দা এবং বেশ কয়েকজন উন্নয়ন ও মানবাধিকার বিশেষজ্ঞের সাক্ষাৎকার নিয়েছে।

সোনারি ও ওয়াদেরী যে খামারে কাজ করে সেটি জ্যাকোবাবাদের প্রাণকেন্দ্র থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে। সেটা খেতে কাজ করছেন আরও কয়েকজন গর্ভবতী মহিলা। প্রতিদিন সকাল ছয়টা থেকে তাদের কাজ শুরু হয়। দুপুরে বাড়ির কাজ এবং রান্নার জন্য একটি ছোট বিরতি পান। তারপর তারা আবার কাজ করতে খেতে ফিরে যায়। তারা সেখানে সূর্যাস্ত পর্যন্ত কাজ করে। নবজাতক মা এবং গর্ভবতী মহিলারা তাদের পায়ে ব্যথা, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় অস্বস্তির কথা জানান। অসহ্য গরমে কাজ করতে গিয়ে হিট স্ট্রোক

কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন নামে একটি অলাভজনক সংস্থার উদ্যোগে জ্যাকোবাবাদ শহরে তিনটি হিট স্ট্রোক সেবা কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে।

14 মে জ্যাকোবাবাদে তাপমাত্রা 51 ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছেছিল। সে সময় এটি বিশ্বের উষ্ণতম শহরে পরিণত হয়। এদিন নাজিয়া নামে স্থানীয় এক নারী তার বাড়িতে আগত অতিথিদের জন্য রান্না করছিলেন। তার রান্নাঘরে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ বা পাখা ছিল না। রান্না করার সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কাছের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি স্ট্রোক করে মারা গেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে জ্যাকোবাবাদে চরম তাপজনিত মৃত্যুর রেকর্ড সম্পর্কে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকরা মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছেন৷ নাজিয়ার ঘটনার বিষয়ে তারা কিছু বলেননি।

পরদিন নাজিয়ার লাশ দাফনের জন্য গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। নাজিয়ার বড় সন্তানের বয়স পাঁচ বছর এবং ছোটটির বয়স এক বছর।

যে কারণে গরিব মানুষ এয়ার কন্ডিশনার বা ফ্যান ব্যবহার করতে পারে না। এছাড়াও, এই ধরনের ঘন ঘন তাপপ্রবাহ থেকে মহিলাদের রক্ষা করতে কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। খোলা চুলার পরিবর্তে নবায়নযোগ্য জ্বালানি দ্বারা চালিত চুলা ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়া সকাল বা সন্ধ্যায় নারীদের চিকিৎসা ও সামাজিক সেবার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। কারণ, ওই সময় আবহাওয়া তুলনামূলকভাবে ঠাণ্ডা থাকে। সূর্যের রশ্মি যাতে ঘরে না পৌঁছায় সেজন্য শীতল উপকরণ সহ একটি টিনের চালা ব্যবহার করতে হবে।

পানির সংকট