১২:৫৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

ছাত্র রাজনীতি নিয়ে উদ্বিগ্ন শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:৪৮:৩৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ৮২৮ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দেশে ছাত্র রাজনীতির অতীত গৌরবময়। এখন তা অভিশাপে পরিণত হয়েছে। এই কলুষিত ছাত্র রাজনীতির কারণে শ্রেণীকক্ষে দাঙ্গা, মারামারি ও অস্থিরতা চলছে। কষ্টের টাকায় আমার সন্তানকে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াচ্ছি। আমরা চাই না সেখানে দুর্নীতিবাজ ছাত্র রাজনীতি ঢুকুক।

এ বক্তব্য বেসরকারি স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের বাবা ব্যবসায়ী শাহাব উদ্দিনের। তিনি ডটকমকে আরও BD Open News

শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিতে কাজ করার কথা থাকলেও তা না করে ছাত্রনেতারা এখন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনের ব্যানার ব্যবহার করে ব্যক্তিগত স্বার্থ রক্ষায় ব্যস্ত।

শাহাব উদ্দিনের মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সেখানে ছাত্র রাজনীতির ‘প্রবর্তনের চেষ্টা’ নিয়ে উদ্বিগ্ন। তাদের প্রশ্ন, ছাত্ররাজনীতির নামে দাঙ্গা কি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকবে?

আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রলীগ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংগঠনিক কমিটি ঘোষণা করায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের এ উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি ১৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংগঠনিক কমিটি ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগ। এর মধ্যে নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্ট, ব্র্যাকসহ ১২টি বিশ্ববিদ্যালয় রাজধানীতে অবস্থিত। বাকি চারজন ঢাকার বাইরে।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খানBD OPEN NEWS

বলেন, আমরা মনে করি, শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি আদায়ে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্র রাজনীতি করা উচিত। বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাত্র রাজনীতিকে নিরুৎসাহিত করার চেষ্টা করছে। আমি তাদের বলব, ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করুন এবং দয়া করে জঙ্গিবাদে লিপ্ত হবেন না।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএনপির ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রদলের আলাদা কমিটি নেই। তবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় ছাত্রদল নামে একটি ইউনিট কমিটি রয়েছে। ছাত্রদল শিগগিরই বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পৃথক কমিটি ঘোষণা করবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রকিবুল ইসলাম। তিনি BD OPEN NEWS

বলেন, ছাত্র রাজনীতি নিয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্বেগের জন্য পুরোপুরি দায়ী ছাত্রলীগ। তাদের অপকর্মের কারণে ছাত্ররাজনীতি নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

শিক্ষকরা যা বলেন

যোগাযোগ করা হলে তিনটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষক প্রথম আলোর কাছে তাদের উদ্বেগের কথা জানান। তাদের একজন ইউল্যাবের ভাইস চ্যান্সেলর ইমরান রহমান। তিনি বলেন, ছাত্র রাজনীতি এই মুহূর্তে কোনো সুফল বয়ে আনবে বলে আমি মনে করি না। আমরা ইউল্যাবে রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনগুলিকে অনুমতি দিই না। তবে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় বা নীতি নির্ধারণে শিক্ষার্থীদের ভূমিকা নিশ্চিত করার পরিকল্পনা করছি, যাতে আমরা তাদের আরও ভাল পরিবেশন করতে পারি।”

কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি না করার বিষয়ে তাদের আনুষ্ঠানিক অবস্থান জানিয়েছে। এগুলো হলো ব্র্যাক, নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্ট, এআইইউবি এবং আইইউবিএটি। অন্য তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা তাদের ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করতে প্রথম আলোকে বলেছেন।

বেসরকারি ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য ও বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের প্রধান মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনBD OPEN NEWS

বলেন, আমরা মনে করি, ১৯৯০ সালের পর দলীয় ছাত্র রাজনীতি দেশের জন্য কোনো সুফল বয়ে আনেনি। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আমাদের সাথে একমত হবে না তারা সবাই ভালো করছে বলে মনে হচ্ছে না ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করার পেছনে এটা একটা বড় কারণ। তিনি বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সময় বলা হয়েছিল অরাজনৈতিক হবে। কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ভালো করছে।

তারা কি এখানেও 14 বছর পড়াশোনা করবে?

ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলো</em>কে বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররাজনীতি হবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে এটি চালু করার উদ্দেশ্য কী? তিনি আরও বলেন, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়েও কি ছাত্রনেতারা 14 বছর ধরে 5 বছর পড়াশুনা করতে চায়, ছাত্রদের মিটিং-মিছিল করতে বাধ্য করে, দলাদলি করতে চায়, মারামারি করতে চায়?

মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) হিসাব অনুযায়ী, ২০২০ সাল থেকে গত আগস্ট মাসের মধ্যে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে সংঘর্ষে ৬ জন নিহত ও ২২০ জন আহত হয়েছে। একই সময়ে ছাত্রলীগ ও অন্যান্য রাজনৈতিক দল, তাদের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষে ৩ জন নিহত ও ৫২০ জন আহত হয়েছে।

বেসরকারি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে BD OPE NEWS

কে বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি কলেজে ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে তাদের প্রায়ই সংঘর্ষ হয়। চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে কখনো কখনো সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এই নেতিবাচক রাজনীতি এখন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে রপ্তানি হচ্ছে। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। তিনি বলেন, এর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে কঠোর অবস্থান নিতে হবে।

“অবক্ষয় ছাড়া আর কিছুই নয়”

দেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ১০৮টি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ছাত্র রাজনীতি নিয়ে উদ্বিগ্ন শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা

আপডেট সময় ০৫:৪৮:৩৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

দেশে ছাত্র রাজনীতির অতীত গৌরবময়। এখন তা অভিশাপে পরিণত হয়েছে। এই কলুষিত ছাত্র রাজনীতির কারণে শ্রেণীকক্ষে দাঙ্গা, মারামারি ও অস্থিরতা চলছে। কষ্টের টাকায় আমার সন্তানকে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াচ্ছি। আমরা চাই না সেখানে দুর্নীতিবাজ ছাত্র রাজনীতি ঢুকুক।

এ বক্তব্য বেসরকারি স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের বাবা ব্যবসায়ী শাহাব উদ্দিনের। তিনি ডটকমকে আরও BD Open News

শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিতে কাজ করার কথা থাকলেও তা না করে ছাত্রনেতারা এখন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনের ব্যানার ব্যবহার করে ব্যক্তিগত স্বার্থ রক্ষায় ব্যস্ত।

শাহাব উদ্দিনের মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সেখানে ছাত্র রাজনীতির ‘প্রবর্তনের চেষ্টা’ নিয়ে উদ্বিগ্ন। তাদের প্রশ্ন, ছাত্ররাজনীতির নামে দাঙ্গা কি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকবে?

আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রলীগ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংগঠনিক কমিটি ঘোষণা করায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের এ উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। সম্প্রতি ১৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংগঠনিক কমিটি ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগ। এর মধ্যে নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্ট, ব্র্যাকসহ ১২টি বিশ্ববিদ্যালয় রাজধানীতে অবস্থিত। বাকি চারজন ঢাকার বাইরে।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খানBD OPEN NEWS

বলেন, আমরা মনে করি, শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি আদায়ে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্র রাজনীতি করা উচিত। বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাত্র রাজনীতিকে নিরুৎসাহিত করার চেষ্টা করছে। আমি তাদের বলব, ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করুন এবং দয়া করে জঙ্গিবাদে লিপ্ত হবেন না।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএনপির ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রদলের আলাদা কমিটি নেই। তবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় ছাত্রদল নামে একটি ইউনিট কমিটি রয়েছে। ছাত্রদল শিগগিরই বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পৃথক কমিটি ঘোষণা করবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রকিবুল ইসলাম। তিনি BD OPEN NEWS

বলেন, ছাত্র রাজনীতি নিয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্বেগের জন্য পুরোপুরি দায়ী ছাত্রলীগ। তাদের অপকর্মের কারণে ছাত্ররাজনীতি নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

শিক্ষকরা যা বলেন

যোগাযোগ করা হলে তিনটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষক প্রথম আলোর কাছে তাদের উদ্বেগের কথা জানান। তাদের একজন ইউল্যাবের ভাইস চ্যান্সেলর ইমরান রহমান। তিনি বলেন, ছাত্র রাজনীতি এই মুহূর্তে কোনো সুফল বয়ে আনবে বলে আমি মনে করি না। আমরা ইউল্যাবে রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনগুলিকে অনুমতি দিই না। তবে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় বা নীতি নির্ধারণে শিক্ষার্থীদের ভূমিকা নিশ্চিত করার পরিকল্পনা করছি, যাতে আমরা তাদের আরও ভাল পরিবেশন করতে পারি।”

কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যে ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি না করার বিষয়ে তাদের আনুষ্ঠানিক অবস্থান জানিয়েছে। এগুলো হলো ব্র্যাক, নর্থ সাউথ, ইস্ট ওয়েস্ট, এআইইউবি এবং আইইউবিএটি। অন্য তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা তাদের ক্যাম্পাসে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করতে প্রথম আলোকে বলেছেন।

বেসরকারি ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য ও বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের প্রধান মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনBD OPEN NEWS

বলেন, আমরা মনে করি, ১৯৯০ সালের পর দলীয় ছাত্র রাজনীতি দেশের জন্য কোনো সুফল বয়ে আনেনি। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আমাদের সাথে একমত হবে না তারা সবাই ভালো করছে বলে মনে হচ্ছে না ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করার পেছনে এটা একটা বড় কারণ। তিনি বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সময় বলা হয়েছিল অরাজনৈতিক হবে। কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ভালো করছে।

তারা কি এখানেও 14 বছর পড়াশোনা করবে?

ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলো</em>কে বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররাজনীতি হবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে এটি চালু করার উদ্দেশ্য কী? তিনি আরও বলেন, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়েও কি ছাত্রনেতারা 14 বছর ধরে 5 বছর পড়াশুনা করতে চায়, ছাত্রদের মিটিং-মিছিল করতে বাধ্য করে, দলাদলি করতে চায়, মারামারি করতে চায়?

মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) হিসাব অনুযায়ী, ২০২০ সাল থেকে গত আগস্ট মাসের মধ্যে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে সংঘর্ষে ৬ জন নিহত ও ২২০ জন আহত হয়েছে। একই সময়ে ছাত্রলীগ ও অন্যান্য রাজনৈতিক দল, তাদের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষে ৩ জন নিহত ও ৫২০ জন আহত হয়েছে।

বেসরকারি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে BD OPE NEWS

কে বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি কলেজে ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। অন্যান্য ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে তাদের প্রায়ই সংঘর্ষ হয়। চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে কখনো কখনো সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এই নেতিবাচক রাজনীতি এখন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে রপ্তানি হচ্ছে। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। তিনি বলেন, এর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে কঠোর অবস্থান নিতে হবে।

“অবক্ষয় ছাড়া আর কিছুই নয়”

দেশে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ১০৮টি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি