০৭:৪০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের পর চুয়েট বন্ধ ঘোষণা করে হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৮:৪৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২
  • / ৮৩১ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, চলমান উত্তেজনাকর পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম ও আবাসিক হলগুলো মঙ্গলবার থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ছেলেদের হলগুলোকে আজ বিকেল ৫টার মধ্যে এবং মেয়েদের হলগুলোকে বিকাল ৫টার মধ্যে ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালক, রেজিস্ট্রার, বিভাগীয় প্রধান, প্রভোস্ট ও ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বৈঠক চলে।

এর আগে রোববার ও শনিবার ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। একপক্ষ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসানের অনুসারীরা। অপর পক্ষ সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত। বাসটি দেরিতে ছাড়ার পরই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

এদিকে ছাত্রলীগের সংঘর্ষের কারণে আজ সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে হেলমেট পরা লোকজন টহল দিচ্ছেন। হলুদ হেলমেট পরা ১৫-২০ সশস্ত্র লোকের একটি দল আজ ভোর ৫টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে অবস্থান করছে। তিনি অভিযোগ করেন, হেলমেট পরা যুবকদের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২টি বিভাগের কোনো শিক্ষার্থী ক্লাসে যেতে পারছে না। এর আগে সকাল ৬টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের নিয়ে একটি বাস চট্টগ্রাম শহরের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির পর সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২টি বিভাগের দুই হাজার ৭০০ শিক্ষার্থী ক্লাস বর্জন করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের পর চুয়েট বন্ধ ঘোষণা করে হল ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

আপডেট সময় ০৮:৪৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২

ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের জেরে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, চলমান উত্তেজনাকর পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম ও আবাসিক হলগুলো মঙ্গলবার থেকে ১৪ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ছেলেদের হলগুলোকে আজ বিকেল ৫টার মধ্যে এবং মেয়েদের হলগুলোকে বিকাল ৫টার মধ্যে ছেড়ে যেতে বলা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালক, রেজিস্ট্রার, বিভাগীয় প্রধান, প্রভোস্ট ও ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বৈঠক চলে।

এর আগে রোববার ও শনিবার ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। একপক্ষ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসানের অনুসারীরা। অপর পক্ষ সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত। বাসটি দেরিতে ছাড়ার পরই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

এদিকে ছাত্রলীগের সংঘর্ষের কারণে আজ সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে হেলমেট পরা লোকজন টহল দিচ্ছেন। হলুদ হেলমেট পরা ১৫-২০ সশস্ত্র লোকের একটি দল আজ ভোর ৫টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে অবস্থান করছে। তিনি অভিযোগ করেন, হেলমেট পরা যুবকদের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২টি বিভাগের কোনো শিক্ষার্থী ক্লাসে যেতে পারছে না। এর আগে সকাল ৬টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের নিয়ে একটি বাস চট্টগ্রাম শহরের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির পর সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২টি বিভাগের দুই হাজার ৭০০ শিক্ষার্থী ক্লাস বর্জন করেন।