০৪:১৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০২৩

ঘটনা জানতে পারলে অভিযুক্ত বাবাকে আশ্রয় দিতেন না

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:৪৯:২৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২
  • / ৫৭৬ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

সাভারের আশুলিয়ায় হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত স্কুলছাত্রের বাবাকে মঙ্গলবার মধ্যরাতে কুষ্টিয়ার কুমারখালী থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে বাড়ির মালিক মোজাহার প্রামানিককেও আশুলিয়া থানা পুলিশ তুলে নিয়ে যায় বলে তার স্বজনরা জানিয়েছেন।

মোজাহার প্রামাণিকের স্ত্রী জোসনা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, হত্যার কথা জানলে অভিযুক্ত স্কুলছাত্রের বাবাকে কখনো বাড়িতে আশ্রয় দিতেন না। আশ্রয় দেওয়ায় তার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ। সে তার নির্দোষ স্বামীকে দ্রুত ফেরত চায়

জোসনা খাতুন জানায়, তার বাড়ি মানিকগঞ্জে। তিনি আশুলিয়ায় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। এরপর কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সাদাকি ইউনিয়নের মহিষাখোলা গ্রামের মোজাহার প্রামাণিকের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তারা দুজনেই আশুলিয়া এলাকায় অভিযুক্ত স্কুলছাত্রের বাবার ভাড়া বাসায় থাকতেন। চার বছর আগে তারা গ্রামে চলে আসেন। কৃষিকাজ করে সংসার চালাচ্ছেন। তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

জোসনা খাতুন কে বলেন, বাড়িতে গেলেও আশুলিয়ায় ভাড়া বাড়ির মালিকের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করবেন। কিন্তু তিনি কখনো কুমারখালীতে আসার কথা বলেননি। গত রোববার সকালে হঠাৎ ফোন করে জানান, কুমারখালী আসছেন। রোববার বিকেলে তিনি একাই কুমারখালী পৌঁছান। গতকাল রাতে আশুলিয়া থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে স্বামী মোজাহারকেও আটক করে।

জোসনা খাতুন বলেন, বাড়িতে টেলিভিশন থাকলেও তা ছিল নিয়ম বহির্ভূত। কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে না। আশুলিয়ায় শিক্ষক হত্যা মামলায় বাড়িওয়ালার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানতেন না। বাড়িতে এসে পুলিশ ঘটনা জানতে পারে। জানলে কখনো আশ্রয় দিতেন না। তার স্বামী নির্দোষ, সে তার স্বামীর মুক্তি চায়।

মোজাহার প্রামানিকের মা আয়েশা খাতুন বলেন, ‘আমার ছেলে কোনো অপরাধ করেনি। আমার বুক ধড়ফড় করছে। ছেলেটি দ্রুত আমার কাছে ফিরে এল

মোজাহারের ভাই আজহার প্রামানিক জানান, রোববার বিকেলে আশুলিয়ার ওই ব্যক্তি তাদের বাড়িতে আসেন। শিক্ষক হত্যার বিষয়ে তারা কিছুই জানতেন না। জানলে তাকে কখনো জায়গা দিতেন না।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ঘটনা জানতে পারলে অভিযুক্ত বাবাকে আশ্রয় দিতেন না

আপডেট সময় ০৩:৪৯:২৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ জুন ২০২২

সাভারের আশুলিয়ায় হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত স্কুলছাত্রের বাবাকে মঙ্গলবার মধ্যরাতে কুষ্টিয়ার কুমারখালী থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে বাড়ির মালিক মোজাহার প্রামানিককেও আশুলিয়া থানা পুলিশ তুলে নিয়ে যায় বলে তার স্বজনরা জানিয়েছেন।

মোজাহার প্রামাণিকের স্ত্রী জোসনা খাতুন সাংবাদিকদের বলেন, হত্যার কথা জানলে অভিযুক্ত স্কুলছাত্রের বাবাকে কখনো বাড়িতে আশ্রয় দিতেন না। আশ্রয় দেওয়ায় তার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ। সে তার নির্দোষ স্বামীকে দ্রুত ফেরত চায়

জোসনা খাতুন জানায়, তার বাড়ি মানিকগঞ্জে। তিনি আশুলিয়ায় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন। এরপর কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সাদাকি ইউনিয়নের মহিষাখোলা গ্রামের মোজাহার প্রামাণিকের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তারা দুজনেই আশুলিয়া এলাকায় অভিযুক্ত স্কুলছাত্রের বাবার ভাড়া বাসায় থাকতেন। চার বছর আগে তারা গ্রামে চলে আসেন। কৃষিকাজ করে সংসার চালাচ্ছেন। তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

জোসনা খাতুন কে বলেন, বাড়িতে গেলেও আশুলিয়ায় ভাড়া বাড়ির মালিকের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করবেন। কিন্তু তিনি কখনো কুমারখালীতে আসার কথা বলেননি। গত রোববার সকালে হঠাৎ ফোন করে জানান, কুমারখালী আসছেন। রোববার বিকেলে তিনি একাই কুমারখালী পৌঁছান। গতকাল রাতে আশুলিয়া থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে স্বামী মোজাহারকেও আটক করে।

জোসনা খাতুন বলেন, বাড়িতে টেলিভিশন থাকলেও তা ছিল নিয়ম বহির্ভূত। কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছে না। আশুলিয়ায় শিক্ষক হত্যা মামলায় বাড়িওয়ালার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানতেন না। বাড়িতে এসে পুলিশ ঘটনা জানতে পারে। জানলে কখনো আশ্রয় দিতেন না। তার স্বামী নির্দোষ, সে তার স্বামীর মুক্তি চায়।

মোজাহার প্রামানিকের মা আয়েশা খাতুন বলেন, ‘আমার ছেলে কোনো অপরাধ করেনি। আমার বুক ধড়ফড় করছে। ছেলেটি দ্রুত আমার কাছে ফিরে এল

মোজাহারের ভাই আজহার প্রামানিক জানান, রোববার বিকেলে আশুলিয়ার ওই ব্যক্তি তাদের বাড়িতে আসেন। শিক্ষক হত্যার বিষয়ে তারা কিছুই জানতেন না। জানলে তাকে কখনো জায়গা দিতেন না।