১১:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪

কেন বাড়ছে সোনার দাম, আর কত বাড়বে?

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:৫৩:২৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ৮৩০ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দেশে সোনার বাড়ি এখন ৮৪ হাজার ৫৬৪ টাকা। সোনার দামে নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী দাম বেড়েছে। সবার এখন একই প্রশ্ন- সোনার দাম কেন এভাবে বাড়ছে, দাম কোথায় থামবে?

বিশ্ব অর্থনীতির সঙ্গে সোনার দামের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। বিশ্ব অর্থনীতি এখন কেমন তার একটাই উত্তর- ‘অনিশ্চয়তা’। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগামী দিনেও এই অনিশ্চয়তা ও ঝুঁকি থাকবে। কোভিড-১৯ মহামারী এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ এই পরিস্থিতি তৈরি করেছে। অনিশ্চয়তা অর্থনীতির জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর। কিন্তু অনিশ্চয়তার সময়টা আসলে সোনালী যুগ। যত বেশি অনিশ্চয়তা, তত বেশি সোনা বিক্রি। মুদ্রাস্ফীতি যত বাড়বে সোনার দাম তত বাড়বে। ঐতিহাসিকভাবে, উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির সময় সোনার দাম সবচেয়ে বেশি বেড়ে যায়।

এমন নয় যে সোনার দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। মাঝে মাঝে কমছে। এটাও অনিশ্চয়তার ফল। সুদের হার বাড়ানোর বিষয়ে অনিশ্চয়তা বা অর্থনীতি মন্দায় পড়বে কিনা তাও স্বর্ণের দামের ওঠানামার উপর নির্ভর করে। আপাতত এই দাম কমবে বলে কেউ ভবিষ্যদ্বাণী করছে না। যখনই মনে হয় অর্থনৈতিক সংকট কেটে যাবে তখনই সোনার দাম কিছুটা কমে যায়। আর যখন মনে হয় সুদের হার বাড়ানো কাজ করছে না, তখন সোনার দাম বাড়ে।

কেন সোনার দাম বাড়ে-পড়ে?

এবং সমস্ত পণ্যের মত, স্বর্ণের দাম সরবরাহ এবং চাহিদা দ্বারা নির্ধারিত হয়। সরবরাহ দুইভাবে আসে। পুরাতন স্বর্ণের নতুন উত্তোলন ও বিক্রয়। সোনার খনিতে সোনা উত্তোলন একটি চলমান প্রক্রিয়া। সাধারণত, প্রতি বছর কত সোনা খনন করা হবে তার একটি অনুমান পাওয়া যায়। যেমন এটি খুব বেশি ওঠানামা করে না। উদাহরণস্বরূপ, 2020 সালে সোনা খনন করা হয়েছিল, আগের বছরগুলির মতোই, 3 হাজার 476 টন। কিন্তু সাধারণত দাম বাড়লেই সোনার সরবরাহ বাড়ে। দাম বাড়লে, বেশি লাভের আশায় অনেকে সোনা বিক্রি করে, জীবনযাত্রার বর্ধিত খরচ মেটাতেও অনেকে সোনা বিক্রি করে।

চারটি কারণে সোনার প্রতি এত আগ্রহ। উদাহরণস্বরূপ, সোনার অভাব রয়েছে, উচ্চ উপযোগিতা, সৌন্দর্য রয়েছে এবং ধাতু কোনোভাবেই কলঙ্কিত হয় না। পরিবর্তে, সোনা গলিয়ে পছন্দসই আকার দেওয়া যেতে পারে এবং তারপরে তার আসল অবস্থানে ফিরিয়ে আনা যেতে পারে।

সোনার চাহিদাও তৈরি হয় দুইভাবে। যেমন গহনার চাহিদা বৃদ্ধি এবং সোনায় বিনিয়োগ। গহনা হিসেবে সোনা চীন ও ভারতে বেশি জনপ্রিয়। পশ্চিমা দেশগুলোতেও গহনার ভালো চাহিদা রয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল গোল্ড কাউন্সিলের মতে, সরবরাহ করা মোট সোনার 47 শতাংশ গয়না ব্যবহার করা হয়, যার পরিমাণ 2,230 টন। বিশ্লেষকরা বলছেন, ভারতে এখনো সোনা বিক্রির মৌসুম শুরু হয়নি। বছরের মাঝামাঝি সময়ে সাধারণত কোনো বড় উৎসব হয় না। এটা বিয়ের সিজনও না। নভেম্বর থেকে শুরু হবে এই মৌসুম। সে সময় সোনার চাহিদা অনেক বেড়ে যাবে।

এছাড়া বিভিন্ন দেশে স্বর্ণে বিনিয়োগের জন্য বন্ডসহ বিভিন্ন ধরনের আর্থিক সম্পদ রয়েছে। অনিশ্চয়তার সময়ে এই খাতে বিনিয়োগ বাড়ে। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কগুলিও ভবিষ্যতের জন্য সোনার রিজার্ভ বাড়ায়। হিসাব অনুযায়ী, সোনার বার ও স্বর্ণমুদ্রায় বিনিয়োগ হয়েছে ১ হাজার টন। মোট সরবরাহের 21 শতাংশ বিনিয়োগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

লড কাউন্সিলের তথ্য অনুযায়ী, গত জুলাই মাসে বিশ্বের বিভিন্ন কেন্দ্রীয় ব্যাংক ৩৭ টন সোনা কিনেছে। এর মধ্যে কাতার একাই কিনেছে ১৫ টন। এর মাধ্যমে তারা 72 টন সোনার মজুদ তৈরি করেছে। অর্থনৈতিক অবরোধ ও অনিশ্চয়তা থেকে বাঁচতে কাতারের এই উদ্যোগ। এর বাইরে সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া ১৩ টন, তুরস্ক ১২ টন এবং উজবেকিস্তান ৯ টন কিনেছে।

জ্বালানি তেলের ক্রয়-বিক্রয়ের সাথেও সোনা সরাসরি জড়িত। সাধারণত দেখা যায় জ্বালানির দাম বাড়লে সোনার দামও বাড়ে। কারণ সে সময় অনেক দেশ সোনার বিনিময়ে জ্বালানি তেল বিক্রি করত। আর যেহেতু ডলারের কারণে বিশ্ব মুদ্রাবাজারে অস্থিতিশীলতা রয়েছে, সেহেতু বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে সোনার চাহিদাও বাড়ছে।

এখন বিশ্ব ডলার ভালো মেজাজে আছে। বিশ্বের বেশিরভাগ প্রধান মুদ্রা ডলারের বিপরীতে মূল্য হারিয়েছে। ফলে শক্তিশালী ডলার অনেক দেশের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিম্ন আয়ের দেশগুলি বিশেষ করে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। তাদের আমদানি বেশি, রপ্তানি কম। আর যেহেতু বেশির ভাগ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য করতে হয় ডলারে, তাই এই দেশগুলোকে টিকে থাকার জন্য মুদ্রার অবমূল্যায়ন করতে হয়। ডলারের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীলতা এড়াতে রাশিয়া ও চীনসহ অনেক দেশ দীর্ঘদিন ধরে সোচ্চার। ভবিষ্যতে অনেক উদ্যোগ হতে পারে। ডলারের প্রতি আস্থা কমে গেলে অনেকেই সোনার দিকে চলে যাবে।

জ্বালানি তেলের ক্রয়-বিক্রয়ের সাথেও সোনা সরাসরি জড়িত। সাধারণত দেখা যায় জ্বালানির দাম বাড়লে সোনার দামও বাড়ে। কারণ সে সময় অনেক দেশ সোনার বিনিময়ে জ্বালানি তেল বিক্রি করত। আর যেহেতু ডলারের কারণে বিশ্ব মুদ্রাবাজারে অস্থিতিশীলতা রয়েছে, তাই ড

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

কেন বাড়ছে সোনার দাম, আর কত বাড়বে?

আপডেট সময় ০৬:৫৩:২৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

দেশে সোনার বাড়ি এখন ৮৪ হাজার ৫৬৪ টাকা। সোনার দামে নতুন রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী দাম বেড়েছে। সবার এখন একই প্রশ্ন- সোনার দাম কেন এভাবে বাড়ছে, দাম কোথায় থামবে?

বিশ্ব অর্থনীতির সঙ্গে সোনার দামের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। বিশ্ব অর্থনীতি এখন কেমন তার একটাই উত্তর- ‘অনিশ্চয়তা’। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগামী দিনেও এই অনিশ্চয়তা ও ঝুঁকি থাকবে। কোভিড-১৯ মহামারী এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ এই পরিস্থিতি তৈরি করেছে। অনিশ্চয়তা অর্থনীতির জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর। কিন্তু অনিশ্চয়তার সময়টা আসলে সোনালী যুগ। যত বেশি অনিশ্চয়তা, তত বেশি সোনা বিক্রি। মুদ্রাস্ফীতি যত বাড়বে সোনার দাম তত বাড়বে। ঐতিহাসিকভাবে, উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির সময় সোনার দাম সবচেয়ে বেশি বেড়ে যায়।

এমন নয় যে সোনার দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। মাঝে মাঝে কমছে। এটাও অনিশ্চয়তার ফল। সুদের হার বাড়ানোর বিষয়ে অনিশ্চয়তা বা অর্থনীতি মন্দায় পড়বে কিনা তাও স্বর্ণের দামের ওঠানামার উপর নির্ভর করে। আপাতত এই দাম কমবে বলে কেউ ভবিষ্যদ্বাণী করছে না। যখনই মনে হয় অর্থনৈতিক সংকট কেটে যাবে তখনই সোনার দাম কিছুটা কমে যায়। আর যখন মনে হয় সুদের হার বাড়ানো কাজ করছে না, তখন সোনার দাম বাড়ে।

কেন সোনার দাম বাড়ে-পড়ে?

এবং সমস্ত পণ্যের মত, স্বর্ণের দাম সরবরাহ এবং চাহিদা দ্বারা নির্ধারিত হয়। সরবরাহ দুইভাবে আসে। পুরাতন স্বর্ণের নতুন উত্তোলন ও বিক্রয়। সোনার খনিতে সোনা উত্তোলন একটি চলমান প্রক্রিয়া। সাধারণত, প্রতি বছর কত সোনা খনন করা হবে তার একটি অনুমান পাওয়া যায়। যেমন এটি খুব বেশি ওঠানামা করে না। উদাহরণস্বরূপ, 2020 সালে সোনা খনন করা হয়েছিল, আগের বছরগুলির মতোই, 3 হাজার 476 টন। কিন্তু সাধারণত দাম বাড়লেই সোনার সরবরাহ বাড়ে। দাম বাড়লে, বেশি লাভের আশায় অনেকে সোনা বিক্রি করে, জীবনযাত্রার বর্ধিত খরচ মেটাতেও অনেকে সোনা বিক্রি করে।

চারটি কারণে সোনার প্রতি এত আগ্রহ। উদাহরণস্বরূপ, সোনার অভাব রয়েছে, উচ্চ উপযোগিতা, সৌন্দর্য রয়েছে এবং ধাতু কোনোভাবেই কলঙ্কিত হয় না। পরিবর্তে, সোনা গলিয়ে পছন্দসই আকার দেওয়া যেতে পারে এবং তারপরে তার আসল অবস্থানে ফিরিয়ে আনা যেতে পারে।

সোনার চাহিদাও তৈরি হয় দুইভাবে। যেমন গহনার চাহিদা বৃদ্ধি এবং সোনায় বিনিয়োগ। গহনা হিসেবে সোনা চীন ও ভারতে বেশি জনপ্রিয়। পশ্চিমা দেশগুলোতেও গহনার ভালো চাহিদা রয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল গোল্ড কাউন্সিলের মতে, সরবরাহ করা মোট সোনার 47 শতাংশ গয়না ব্যবহার করা হয়, যার পরিমাণ 2,230 টন। বিশ্লেষকরা বলছেন, ভারতে এখনো সোনা বিক্রির মৌসুম শুরু হয়নি। বছরের মাঝামাঝি সময়ে সাধারণত কোনো বড় উৎসব হয় না। এটা বিয়ের সিজনও না। নভেম্বর থেকে শুরু হবে এই মৌসুম। সে সময় সোনার চাহিদা অনেক বেড়ে যাবে।

এছাড়া বিভিন্ন দেশে স্বর্ণে বিনিয়োগের জন্য বন্ডসহ বিভিন্ন ধরনের আর্থিক সম্পদ রয়েছে। অনিশ্চয়তার সময়ে এই খাতে বিনিয়োগ বাড়ে। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কগুলিও ভবিষ্যতের জন্য সোনার রিজার্ভ বাড়ায়। হিসাব অনুযায়ী, সোনার বার ও স্বর্ণমুদ্রায় বিনিয়োগ হয়েছে ১ হাজার টন। মোট সরবরাহের 21 শতাংশ বিনিয়োগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

লড কাউন্সিলের তথ্য অনুযায়ী, গত জুলাই মাসে বিশ্বের বিভিন্ন কেন্দ্রীয় ব্যাংক ৩৭ টন সোনা কিনেছে। এর মধ্যে কাতার একাই কিনেছে ১৫ টন। এর মাধ্যমে তারা 72 টন সোনার মজুদ তৈরি করেছে। অর্থনৈতিক অবরোধ ও অনিশ্চয়তা থেকে বাঁচতে কাতারের এই উদ্যোগ। এর বাইরে সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া ১৩ টন, তুরস্ক ১২ টন এবং উজবেকিস্তান ৯ টন কিনেছে।

জ্বালানি তেলের ক্রয়-বিক্রয়ের সাথেও সোনা সরাসরি জড়িত। সাধারণত দেখা যায় জ্বালানির দাম বাড়লে সোনার দামও বাড়ে। কারণ সে সময় অনেক দেশ সোনার বিনিময়ে জ্বালানি তেল বিক্রি করত। আর যেহেতু ডলারের কারণে বিশ্ব মুদ্রাবাজারে অস্থিতিশীলতা রয়েছে, সেহেতু বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে সোনার চাহিদাও বাড়ছে।

এখন বিশ্ব ডলার ভালো মেজাজে আছে। বিশ্বের বেশিরভাগ প্রধান মুদ্রা ডলারের বিপরীতে মূল্য হারিয়েছে। ফলে শক্তিশালী ডলার অনেক দেশের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিম্ন আয়ের দেশগুলি বিশেষ করে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। তাদের আমদানি বেশি, রপ্তানি কম। আর যেহেতু বেশির ভাগ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য করতে হয় ডলারে, তাই এই দেশগুলোকে টিকে থাকার জন্য মুদ্রার অবমূল্যায়ন করতে হয়। ডলারের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীলতা এড়াতে রাশিয়া ও চীনসহ অনেক দেশ দীর্ঘদিন ধরে সোচ্চার। ভবিষ্যতে অনেক উদ্যোগ হতে পারে। ডলারের প্রতি আস্থা কমে গেলে অনেকেই সোনার দিকে চলে যাবে।

জ্বালানি তেলের ক্রয়-বিক্রয়ের সাথেও সোনা সরাসরি জড়িত। সাধারণত দেখা যায় জ্বালানির দাম বাড়লে সোনার দামও বাড়ে। কারণ সে সময় অনেক দেশ সোনার বিনিময়ে জ্বালানি তেল বিক্রি করত। আর যেহেতু ডলারের কারণে বিশ্ব মুদ্রাবাজারে অস্থিতিশীলতা রয়েছে, তাই ড