০৯:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

এ বার দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে হানা দিল সিবিআই

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৩:২৪:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২
  • / ২২১ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মনীশ সিসোদিয়ার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে ভারতের সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই)। শুক্রবার সকালে উপমুখ্যমন্ত্রীর বাড়িসহ সাতটি রাজ্যের মোট ২১টি জায়গায় তল্লাশি শুরু হয়। দিল্লি সরকারের নতুন আবগারি নীতিতে দুর্নীতির অভিযোগের কারণে এই অনুসন্ধান। দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর বিনয় কুমার সাক্সেনা সম্প্রতি সিবিআই-কে দুর্নীতির তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

আম আদমি পার্টি (এএপি) নেতা সিসোদিয়া রাজ্যের শিক্ষা ও আবগারি মন্ত্রকের দায়িত্বে রয়েছেন। যে ১৫ জনের বিরুদ্ধে সিবিআই মদের মামলায় এফআইআর দায়ের করেছে তাদের মধ্যে সিসোদিয়া এক নম্বরে। এর আগে পশ্চিমবঙ্গ সহ বিভিন্ন রাজ্যের বিরোধী নেতাদের বাড়িতে হানা দেয় সিবিআই।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে কোনও অনুসন্ধানই তাঁর সরকারকে ভাল কাজ করতে বাধা দেবে না। দেশের দরিদ্রদের কল্যাণের জন্য যা করা উচিত, আপ সরকার তা করবে, যত বাধাই সৃষ্টি করা হোক না কেন।

কেজরিওয়াল বলেছেন, “অতীতেও এরকম অনেক অনুসন্ধান চালানো হয়েছে।” কিছুই পাওয়া যায়নি. এবারও কিছু পাওয়া যাবে না। আমরা সিবিআইকে সম্পূর্ণ সহযোগিতা করব।’ আমি তাদের সহযোগিতা করব। তারা কিছুই পাবে না। তিনি আরও বলেছিলেন যে দিল্লি সরকার শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য উভয় ক্ষেত্রেই ভাল কাজ করছে। তাতেই ক্ষুব্ধ বিজেপি। তাই এ দুই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা মন্ত্রীদের টার্গেট করা হয়েছে।

কারাগারে দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন। রাজ্য সরকারের নতুন আবগারি নীতি নিয়ে হৈচৈ শুরু হলে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছিলেন যে এবার মণীশ সিসোদিয়া আগুনের মুখে পড়তে চলেছেন। 18 আগস্ট বৃহস্পতিবার প্রকাশিত “দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস”-এর প্রথম পৃষ্ঠায় একটি প্রতিবেদনের একটি ছবি প্রকাশ করে কেজরিওয়াল বলেন, “যেদিন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম সংবাদপত্রে দিল্লির শিক্ষাব্যবস্থার প্রশংসা করে প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছিল, সেদিনই বিক্ষুব্ধ বিজেপি সিবিআই তল্লাশির নির্দেশ দিয়েছে।” আমরা তাদের স্বাগত জানাই। এর আগেও অনুসন্ধান করা হয়েছে। কিছুই পায়নি এবারও পাবে না।

এএপি নেতা রাঘব চাড্ডাও সাংবাদিকদের বলেছেন, “এর আগে সিবিআই মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালের অফিসে তল্লাশি চালিয়েছিল।” চারটা মাফলার ছাড়া কিছুই পাইনি। এ বার বাড়ি থেকে পেন্সিল, নোটবুক আর জ্যামিতির বাক্স ছাড়া আর কিছুই পাবেন না সিসোদিয়া। দিল্লিতে আম আদমি পার্টির বিরোধিতা করছে কংগ্রেস। তবে, এই উপলক্ষে তারা বিজেপি এবং এএপি উভয়েরই সমালোচনা বন্ধ করেনি। দলের মুখপাত্র পবন খেরা বলেছেন, ‘বিরোধীদের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নিরলস অভিযান তাদের বিশ্বাসযোগ্যতাকে ক্ষুন্ন করেছে। এতটাই যে একটি সুষ্ঠু ও সঠিক তদন্ত এখন সন্দেহের মধ্যে দাঁড়িয়েছে।’ নতুন আবগারি নীতির মধ্যে দিল্লি সরকার মদের ব্যবসা থেকে সরে এসেছে। এই নীতিতে, দিল্লিকে 32টি জেলায় ভাগ করা হয়েছিল এবং একটি এলাকা নিলাম করা হয়েছিল। এই বেসরকারীকরণের মাধ্যমে সরকার 2000 কোটি টাকার অতিরিক্ত রাজস্ব সংগ্রহের কথা ভেবেছিল। রাজ্যের মুখ্য সচিব লেফটেন্যান্ট গভর্নরের কাছে একটি রিপোর্ট জমা দিয়েছেন, রাজ্যের নতুন আবগারি নীতি নিয়ে দিল্লি সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন। সেই রিপোর্টের ভিত্তিতেই কয়েকদিন আগে রাজ্যপাল সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন। 6 আগস্ট, সিসোদিয়া অভিযোগ করেন যে প্রাক্তন লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বৈজালকেও আবগারি নীতির তদন্তের আওতায় আনা উচিত। তারপর থেকেই সিবিআই তদন্তের জন্য প্রস্তুত ইউপি নেতৃত্ব। যা গতকাল সকালে বাস্তবায়িত হয়েছে।

দিল্লি সরকার নতুন আবগারি নীতির মধ্যে মদের ব্যবসা থেকে সরে এসেছে এই নীতিতে, দিল্লিকে 32টি জেলায় ভাগ করা হয়েছিল এবং একটি এলাকা নিলাম করা হয়েছিল। এই বেসরকারীকরণের মাধ্যমে সরকার 2000 কোটি টাকার অতিরিক্ত রাজস্ব সংগ্রহের কথা ভেবেছিল। কিন্তু অভিযোগ, তা করতে গিয়ে রাজ্য সরকার গোটা দিল্লিকে ছয় বড় মদ ব্যবসায়ীর হাতে তুলে দিয়েছে, যারা বিপুল উদ্বৃত্ত লাভের একটা অংশ পার্টিকে দিয়েছিল। এই মডেলটি পাঞ্জাবেও আম আদমি পার্টির সরকার চালু করেছে। দিল্লিতে সিবিআই তল্লাশি নিয়ে চিন্তিত পাঞ্জাবের ইউপি সরকারও।

দিল্লির আবগারি নীতি নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ায় গত বছরের জুলাইয়ে এএপি সরকার পুরনো নীতিতে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। অর্থাৎ মদের ব্যবসায় যুক্ত হবে রাজ্য সরকার। নতুন নীতির অধীনে, দিল্লির মদের দোকানগুলি সুসজ্জিত আধুনিক বাজারে রূপান্তরিত হয়েছে। প্রতিযোগিতা বেড়ে যাওয়ায় মদের দাম কমেছে। পানকারীদের পছন্দও বেড়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

এ বার দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে হানা দিল সিবিআই

আপডেট সময় ০৩:২৪:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২

দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মনীশ সিসোদিয়ার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে ভারতের সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই)। শুক্রবার সকালে উপমুখ্যমন্ত্রীর বাড়িসহ সাতটি রাজ্যের মোট ২১টি জায়গায় তল্লাশি শুরু হয়। দিল্লি সরকারের নতুন আবগারি নীতিতে দুর্নীতির অভিযোগের কারণে এই অনুসন্ধান। দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর বিনয় কুমার সাক্সেনা সম্প্রতি সিবিআই-কে দুর্নীতির তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

আম আদমি পার্টি (এএপি) নেতা সিসোদিয়া রাজ্যের শিক্ষা ও আবগারি মন্ত্রকের দায়িত্বে রয়েছেন। যে ১৫ জনের বিরুদ্ধে সিবিআই মদের মামলায় এফআইআর দায়ের করেছে তাদের মধ্যে সিসোদিয়া এক নম্বরে। এর আগে পশ্চিমবঙ্গ সহ বিভিন্ন রাজ্যের বিরোধী নেতাদের বাড়িতে হানা দেয় সিবিআই।

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন যে কোনও অনুসন্ধানই তাঁর সরকারকে ভাল কাজ করতে বাধা দেবে না। দেশের দরিদ্রদের কল্যাণের জন্য যা করা উচিত, আপ সরকার তা করবে, যত বাধাই সৃষ্টি করা হোক না কেন।

কেজরিওয়াল বলেছেন, “অতীতেও এরকম অনেক অনুসন্ধান চালানো হয়েছে।” কিছুই পাওয়া যায়নি. এবারও কিছু পাওয়া যাবে না। আমরা সিবিআইকে সম্পূর্ণ সহযোগিতা করব।’ আমি তাদের সহযোগিতা করব। তারা কিছুই পাবে না। তিনি আরও বলেছিলেন যে দিল্লি সরকার শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য উভয় ক্ষেত্রেই ভাল কাজ করছে। তাতেই ক্ষুব্ধ বিজেপি। তাই এ দুই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা মন্ত্রীদের টার্গেট করা হয়েছে।

কারাগারে দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন। রাজ্য সরকারের নতুন আবগারি নীতি নিয়ে হৈচৈ শুরু হলে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছিলেন যে এবার মণীশ সিসোদিয়া আগুনের মুখে পড়তে চলেছেন। 18 আগস্ট বৃহস্পতিবার প্রকাশিত “দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস”-এর প্রথম পৃষ্ঠায় একটি প্রতিবেদনের একটি ছবি প্রকাশ করে কেজরিওয়াল বলেন, “যেদিন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম সংবাদপত্রে দিল্লির শিক্ষাব্যবস্থার প্রশংসা করে প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছিল, সেদিনই বিক্ষুব্ধ বিজেপি সিবিআই তল্লাশির নির্দেশ দিয়েছে।” আমরা তাদের স্বাগত জানাই। এর আগেও অনুসন্ধান করা হয়েছে। কিছুই পায়নি এবারও পাবে না।

এএপি নেতা রাঘব চাড্ডাও সাংবাদিকদের বলেছেন, “এর আগে সিবিআই মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়ালের অফিসে তল্লাশি চালিয়েছিল।” চারটা মাফলার ছাড়া কিছুই পাইনি। এ বার বাড়ি থেকে পেন্সিল, নোটবুক আর জ্যামিতির বাক্স ছাড়া আর কিছুই পাবেন না সিসোদিয়া। দিল্লিতে আম আদমি পার্টির বিরোধিতা করছে কংগ্রেস। তবে, এই উপলক্ষে তারা বিজেপি এবং এএপি উভয়েরই সমালোচনা বন্ধ করেনি। দলের মুখপাত্র পবন খেরা বলেছেন, ‘বিরোধীদের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নিরলস অভিযান তাদের বিশ্বাসযোগ্যতাকে ক্ষুন্ন করেছে। এতটাই যে একটি সুষ্ঠু ও সঠিক তদন্ত এখন সন্দেহের মধ্যে দাঁড়িয়েছে।’ নতুন আবগারি নীতির মধ্যে দিল্লি সরকার মদের ব্যবসা থেকে সরে এসেছে। এই নীতিতে, দিল্লিকে 32টি জেলায় ভাগ করা হয়েছিল এবং একটি এলাকা নিলাম করা হয়েছিল। এই বেসরকারীকরণের মাধ্যমে সরকার 2000 কোটি টাকার অতিরিক্ত রাজস্ব সংগ্রহের কথা ভেবেছিল। রাজ্যের মুখ্য সচিব লেফটেন্যান্ট গভর্নরের কাছে একটি রিপোর্ট জমা দিয়েছেন, রাজ্যের নতুন আবগারি নীতি নিয়ে দিল্লি সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করেছেন। সেই রিপোর্টের ভিত্তিতেই কয়েকদিন আগে রাজ্যপাল সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন। 6 আগস্ট, সিসোদিয়া অভিযোগ করেন যে প্রাক্তন লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বৈজালকেও আবগারি নীতির তদন্তের আওতায় আনা উচিত। তারপর থেকেই সিবিআই তদন্তের জন্য প্রস্তুত ইউপি নেতৃত্ব। যা গতকাল সকালে বাস্তবায়িত হয়েছে।

দিল্লি সরকার নতুন আবগারি নীতির মধ্যে মদের ব্যবসা থেকে সরে এসেছে এই নীতিতে, দিল্লিকে 32টি জেলায় ভাগ করা হয়েছিল এবং একটি এলাকা নিলাম করা হয়েছিল। এই বেসরকারীকরণের মাধ্যমে সরকার 2000 কোটি টাকার অতিরিক্ত রাজস্ব সংগ্রহের কথা ভেবেছিল। কিন্তু অভিযোগ, তা করতে গিয়ে রাজ্য সরকার গোটা দিল্লিকে ছয় বড় মদ ব্যবসায়ীর হাতে তুলে দিয়েছে, যারা বিপুল উদ্বৃত্ত লাভের একটা অংশ পার্টিকে দিয়েছিল। এই মডেলটি পাঞ্জাবেও আম আদমি পার্টির সরকার চালু করেছে। দিল্লিতে সিবিআই তল্লাশি নিয়ে চিন্তিত পাঞ্জাবের ইউপি সরকারও।

দিল্লির আবগারি নীতি নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ায় গত বছরের জুলাইয়ে এএপি সরকার পুরনো নীতিতে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। অর্থাৎ মদের ব্যবসায় যুক্ত হবে রাজ্য সরকার। নতুন নীতির অধীনে, দিল্লির মদের দোকানগুলি সুসজ্জিত আধুনিক বাজারে রূপান্তরিত হয়েছে। প্রতিযোগিতা বেড়ে যাওয়ায় মদের দাম কমেছে। পানকারীদের পছন্দও বেড়েছে।