১০:৫৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক লোকদের মনে করিয়ে দিয়েছে যে তাদের কাছে থাকা অতিরিক্ত ডলার ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিক্রি করতে হবে।

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৪২:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ অগাস্ট ২০২২
  • / ৯৯৫ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, একজন বাংলাদেশি ব্যক্তি বিদেশ থেকে তার সঙ্গে আনা সর্বোচ্চ ১০,০০০ ডলার বৈদেশিক মুদ্রা নিজের কাছে বা অনুমোদিত ব্যাংক হিসেবে জমা করতে পারবেন। আপনি আপনার পরবর্তী বিদেশ ভ্রমণে এই কয়েনগুলি আপনার সাথে নিয়ে যেতে পারেন। বাংলাদেশী নাগরিকদের দেশে আসার এক মাসের মধ্যে একটি ব্যাংক বা লাইসেন্সপ্রাপ্ত মানি চেঞ্জারে 10,000 ডলারের অতিরিক্ত বৈদেশিক মুদ্রা বিক্রি বা জমা করা বাধ্যতামূলক। ফরেন এক্সচেঞ্জ রেগুলেশন অ্যাক্ট, 1947-এর অধীনে অতিরিক্ত ডলার রাখা একটি দণ্ডনীয় অপরাধ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এ ধরনের বৈদেশিক মুদ্রা থাকলে তা আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ব্যাংক বা লাইসেন্সধারী মানি চেঞ্জারের কাছে বিক্রি করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের পর কেউ অতিরিক্ত ডলারসহ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্যাংকের পাশাপাশি খোলা বাজারেও চলছে ডলার-সঙ্কট। ফলে খোলা বাজারে প্রতি ডলারের দাম সর্বোচ্চ ১২০ টাকায় উঠেছে, যা এখন ১০৫-১১০ টাকা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

এখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক লোকদের মনে করিয়ে দিয়েছে যে তাদের কাছে থাকা অতিরিক্ত ডলার ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিক্রি করতে হবে।

আপডেট সময় ০২:৪২:১৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ অগাস্ট ২০২২

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, একজন বাংলাদেশি ব্যক্তি বিদেশ থেকে তার সঙ্গে আনা সর্বোচ্চ ১০,০০০ ডলার বৈদেশিক মুদ্রা নিজের কাছে বা অনুমোদিত ব্যাংক হিসেবে জমা করতে পারবেন। আপনি আপনার পরবর্তী বিদেশ ভ্রমণে এই কয়েনগুলি আপনার সাথে নিয়ে যেতে পারেন। বাংলাদেশী নাগরিকদের দেশে আসার এক মাসের মধ্যে একটি ব্যাংক বা লাইসেন্সপ্রাপ্ত মানি চেঞ্জারে 10,000 ডলারের অতিরিক্ত বৈদেশিক মুদ্রা বিক্রি বা জমা করা বাধ্যতামূলক। ফরেন এক্সচেঞ্জ রেগুলেশন অ্যাক্ট, 1947-এর অধীনে অতিরিক্ত ডলার রাখা একটি দণ্ডনীয় অপরাধ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এ ধরনের বৈদেশিক মুদ্রা থাকলে তা আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ব্যাংক বা লাইসেন্সধারী মানি চেঞ্জারের কাছে বিক্রি করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের পর কেউ অতিরিক্ত ডলারসহ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ব্যাংকের পাশাপাশি খোলা বাজারেও চলছে ডলার-সঙ্কট। ফলে খোলা বাজারে প্রতি ডলারের দাম সর্বোচ্চ ১২০ টাকায় উঠেছে, যা এখন ১০৫-১১০ টাকা।