১২:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

একদিনে হাসপাতালে ২০১ জন ডেঙ্গু রোগী

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০২:৪৬:১১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ অগাস্ট ২০২২
  • / ৭৬৬ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

বাড়ছে ডেঙ্গুর সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ২০১ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। একই সঙ্গে কক্সবাজার জেলায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এ বছর ডেঙ্গুতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জনে দাঁড়িয়েছে।

গণমাধ্যমে পাঠানো স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের সর্বশেষ ডেঙ্গু পরিস্থিতির তথ্য অনুযায়ী, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২০১ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে রাজধানীর ৪৭টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ১৪৯ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। বাকি ৫২ জনকে দেশের বিভিন্ন সরকারি জেলা ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ডেঙ্গু ভাইরাস এডিস মশার মাধ্যমে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। বর্ষাকালে ঘরে পানি জমে থাকে এবং এই মশার বংশবৃদ্ধি বেশি হয়। 2000 সালে বাংলাদেশে প্রথম বড় ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ঘটে। মশা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে, পরবর্তী বছরগুলিতে এর প্রকোপ খুব বেশি ছিল না, তবে 2019 সালে, এটি ভয়াবহ মাত্রায় ছড়িয়ে পড়ে। ওই বছর দেশে ডেঙ্গুতে দেড় শতাধিক মানুষ মারা যায় এবং লাখ লাখ মানুষ এতে আক্রান্ত হয়।

প্রতি বছরের মতো এ বছরও বর্ষা শুরুর আগে রাজধানীতে মশা জরিপ চালায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। জরিপের ফলাফল অনুযায়ী, গত বছরের তুলনায় এ বছর একই সময়ে রাজধানীতে বেশি এডিস মশার লার্ভা দেখা গেছে। এরপর কীটতত্ত্ববিদ ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানান, এ বছর বর্ষা মৌসুমে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তারা আরও বলেন, বৃষ্টি থেমে গেলে অর্থাৎ একদিন বৃষ্টির পর কয়েকদিন নয়, আবার একদিনের জন্য হলে মশা বাড়বে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের কন্ট্রোল রুম জানুয়ারি থেকে ডেঙ্গু আক্রান্তের তথ্য দিয়ে আসছে। জানুয়ারি থেকে মে—এই পাঁচ মাসে ৩৫২ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। জুন মাসে 737 জনকে ভর্তি করা হয়েছিল। চলতি মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। পরের মাসে অর্থাৎ জুলাই মাসে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৫৭১ জন। চলতি মাসে ডেঙ্গুতে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর চলতি মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৩৩ জন। চলতি মাসে এ পর্যন্ত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

কক্সবাজারেও মৃত্যুর হার বেশি

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজার জেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কন্ট্রোল রুম। এ নিয়ে এ বছর কক্সবাজার জেলায় ডেঙ্গুতে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে রাজধানী ঢাকায়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর ৩৮টি জেলায় ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে। এদের বেশির ভাগই ঢাকায়। এ পর্যন্ত ঢাকায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪ হাজার ৬৯২ জন রোগী। এসব রোগীর বেশির ভাগই রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। 932 রোগী এই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গতকাল ভর্তি হয়েছে ৫৬ জন। তবে এ বছর এ হাসপাতালে কোনো ডেঙ্গু রোগী মারা যায়নি।

ঢাকার বাইরে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের জেলা কক্সবাজারে সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এ জেলায় এ পর্যন্ত ৫৫৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে, 60 জন হাসপাতালে ভর্তি, 483 জন সুস্থ হয়েছেন এবং 11 জন মারা গেছেন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরীন BD OPEN NEWS

কে বলেন, দেশে এখন মশার বংশবৃদ্ধি বা ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবের জন্য প্রয়োজনীয় পরিবেশ বিদ্যমান রয়েছে। তিনি আরও বলেন, এই সময়ে কোনো জ্বরকে অবহেলা করা উচিত নয়। জ্বর হলে, বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক ব্যক্তিদের একাধিক রোগে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

একদিনে হাসপাতালে ২০১ জন ডেঙ্গু রোগী

আপডেট সময় ০২:৪৬:১১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ অগাস্ট ২০২২

বাড়ছে ডেঙ্গুর সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ২০১ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। একই সঙ্গে কক্সবাজার জেলায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এ বছর ডেঙ্গুতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জনে দাঁড়িয়েছে।

গণমাধ্যমে পাঠানো স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের সর্বশেষ ডেঙ্গু পরিস্থিতির তথ্য অনুযায়ী, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২০১ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে রাজধানীর ৪৭টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ১৪৯ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। বাকি ৫২ জনকে দেশের বিভিন্ন সরকারি জেলা ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ডেঙ্গু ভাইরাস এডিস মশার মাধ্যমে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে। বর্ষাকালে ঘরে পানি জমে থাকে এবং এই মশার বংশবৃদ্ধি বেশি হয়। 2000 সালে বাংলাদেশে প্রথম বড় ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ঘটে। মশা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে, পরবর্তী বছরগুলিতে এর প্রকোপ খুব বেশি ছিল না, তবে 2019 সালে, এটি ভয়াবহ মাত্রায় ছড়িয়ে পড়ে। ওই বছর দেশে ডেঙ্গুতে দেড় শতাধিক মানুষ মারা যায় এবং লাখ লাখ মানুষ এতে আক্রান্ত হয়।

প্রতি বছরের মতো এ বছরও বর্ষা শুরুর আগে রাজধানীতে মশা জরিপ চালায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। জরিপের ফলাফল অনুযায়ী, গত বছরের তুলনায় এ বছর একই সময়ে রাজধানীতে বেশি এডিস মশার লার্ভা দেখা গেছে। এরপর কীটতত্ত্ববিদ ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানান, এ বছর বর্ষা মৌসুমে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তারা আরও বলেন, বৃষ্টি থেমে গেলে অর্থাৎ একদিন বৃষ্টির পর কয়েকদিন নয়, আবার একদিনের জন্য হলে মশা বাড়বে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের কন্ট্রোল রুম জানুয়ারি থেকে ডেঙ্গু আক্রান্তের তথ্য দিয়ে আসছে। জানুয়ারি থেকে মে—এই পাঁচ মাসে ৩৫২ রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। জুন মাসে 737 জনকে ভর্তি করা হয়েছিল। চলতি মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। পরের মাসে অর্থাৎ জুলাই মাসে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৫৭১ জন। চলতি মাসে ডেঙ্গুতে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর চলতি মাসে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৩৩ জন। চলতি মাসে এ পর্যন্ত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

কক্সবাজারেও মৃত্যুর হার বেশি

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজার জেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কন্ট্রোল রুম। এ নিয়ে এ বছর কক্সবাজার জেলায় ডেঙ্গুতে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে রাজধানী ঢাকায়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর ৩৮টি জেলায় ডেঙ্গু শনাক্ত হয়েছে। এদের বেশির ভাগই ঢাকায়। এ পর্যন্ত ঢাকায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪ হাজার ৬৯২ জন রোগী। এসব রোগীর বেশির ভাগই রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। 932 রোগী এই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গতকাল ভর্তি হয়েছে ৫৬ জন। তবে এ বছর এ হাসপাতালে কোনো ডেঙ্গু রোগী মারা যায়নি।

ঢাকার বাইরে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের জেলা কক্সবাজারে সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এ জেলায় এ পর্যন্ত ৫৫৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে, 60 জন হাসপাতালে ভর্তি, 483 জন সুস্থ হয়েছেন এবং 11 জন মারা গেছেন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরীন BD OPEN NEWS

কে বলেন, দেশে এখন মশার বংশবৃদ্ধি বা ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবের জন্য প্রয়োজনীয় পরিবেশ বিদ্যমান রয়েছে। তিনি আরও বলেন, এই সময়ে কোনো জ্বরকে অবহেলা করা উচিত নয়। জ্বর হলে, বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক ব্যক্তিদের একাধিক রোগে আক্রান্ত হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।