০৯:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

ইচ্ছে পূরণ হচ্ছে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিন অবশেষে বিয়ের

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৭:২৪:৪৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ জুন ২০২২
  • / ৩৯৬ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

হাছান মাহমুদের বাড়ি সাভারে। সারগিনা হোসেন ত্রিমা গোপালগঞ্জ।

সাভার, গোপালগঞ্জ—দুই এলাকার যোগাযোগের ক্ষেত্রে বড় বাধা পদ্মা। কিন্তু এই বাধা আর নেই।

দুইদিনের মধ্যে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হবে। আপনি চাইলে কোনো বাধা ছাড়াই এই সেতু দিয়ে আসা-যাওয়া করতে পারেন

সবার দৃষ্টি এখন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিকে। হাসান ও ত্রিমার দিন গুনতে শুরু করেছে অনেক আগেই। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনটির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন তারা।

হাসান-ত্রিমার অপেক্ষার প্রেক্ষাপট জানতে আমাদের কয়েক দশক পিছিয়ে যেতে হবে। দুজনের মধ্যে পরিচয়ের পর মন দেওয়া-নেওয়া হয়।

প্রেমের সম্পর্কের একপর্যায়ে হাসান মজা করে ত্রিমাকে বলেন, ফেরি করে পদ্মা পাড়ি দিয়ে বিয়ে করা কঠিন হবে।

তারপর হাসান-ত্রিমার চোখের সামনে পদ্মার বুকে তৈরি হতে থাকে স্বপ্নের সেতু। একটা একটা করে স্প্যান বসানোর সময় হাসানের মাথায় একটা দারুণ ‘আইডিয়া’ এলো। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনই বিয়ে করবেন তিনি। ত্রিমাকে জানানো হলে তিনিও রাজি হন।

হাসান-ত্রিমার সম্পর্কের কথা দুই পরিবারই জানে। কবে বিয়ে হবে তা নিয়ে ধাওয়া করছিল দুই পরিবারের সদস্যরা। হাসান ও ত্রিমা তাদের বিয়ের পরিকল্পনার কথা পরিবারকে জানান। পরিকল্পনার কথা শুনে দুই পরিবারই অস্থির হয়ে ওঠে।

হাসান বলেন, “বাবা-মায়ের চাপ সত্ত্বেও আমি আমার পরিকল্পনায় অনড়। বলা যায় বিয়েটা শেষ করেছি। ত্রিমা আমাকে সমর্থন করে।”

“আমরা দুজনেই কিছু একটা ভেবেছিলাম,” ত্রিমা বলল। আমরা অনেক দূর এসেছি। তাই আমরা আমাদের বিয়েকে স্মরণীয় করে রাখতে বদ্ধপরিকর। ‘

পদ্মা সেতুর শেষ স্প্যানটি 10 ​​ডিসেম্বর, 2020 এ স্থাপন করা হয়েছিল। পদ্মার দুই তীর একটি স্প্যান দ্বারা সংযুক্ত। হাসান-ত্রিমা জুটির চোখে খুশির ঝিলিক। এখন আনুষ্ঠানিকভাবে দুজনের জীবনকে সংযুক্ত করার সময় এসেছে। পারিবারিক পর্যায়ে আনুষ্ঠানিকতা ধীরে ধীরে অগ্রসর হয়।

দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ঘোষণা আসে ২৪ মে। আগামী ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন। এই ঘোষণাই হয়ে গেল হাসান ও ত্রিমার বিয়ের তারিখ।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের প্রস্তুতি চলছে। হাসান-ত্রিমার বিয়ে ঘিরে এগিয়ে গেল সব আয়োজন।

১৪ জুন সন্ধ্যায় প্রথমবারের মতো আলোকিত হয় পুরো পদ্মা সেতু। হাসান গত ১৬ জুন সন্ধ্যায় মারা যান।

হাসানের ঘনিষ্ঠজন সজিব মিয়া ফেসবুকে গেহলুদের একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, হাসান ভাই পদ্মা সেতুতে গণপরিবহন না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন। পদ্মা সেতুর আলো জ্বলছে, এবার হাসান ভাইয়ের হলুদ সন্ধ্যার আলো! ‘

ত্রিমা গায়েহলুদ 24 জুন ঢাকায় থাকবেন। তার জন্য এখন প্রস্তুতি চলছে। প্রস্তুতি হিসেবে মঙ্গলবার বিকেলে হাসান তার ফেসবুক পেজে পোস্ট দেন। পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ২৫ জুন বিয়ের পরিকল্পনা করেছি। সবার কাছ থেকে দোয়া কামনা করছি। ‘

ফেসবুক পোস্টে নিজের বিয়ের কার্ড দিয়েছেন হাসান। কার্ড অনুযায়ী 25 জুন বিয়ে। 1 জুলাই বিয়ের রিসেপশন।

কার্ডের বাম পাশে একটি হাতে আঁকা পেইন্টিং। গ্রামীণ পরিবেশে বিয়ের ছবি এঁকেছেন ত্রিমা।

কার্ডটিতে লেখা আছে, “আমাদের যৌথ জীবনের জন্য শুধুমাত্র আশীর্বাদ এবং ভালবাসা কাম্য।”

কার্ডের নিচের অংশে দুই পাশে পদ্মা সেতুর প্রতীকী অলঙ্কার রয়েছে। হাসান বলেন, ‘আমার কাছে বিয়ের কার্ডের আইডিয়া আছে। আমি একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে একটি কার্ড তৈরি করেছি। আমি কার্ডে ঐতিহ্যবাহী জামদানি ব্যবহার করেছি। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনকে কেন্দ্র করে আমাদের বিয়ের পরিকল্পনা। এ কারণে পদ্মা সেতুর প্রতীকী অলংকরণ কার্ডে রাখা হয়েছে। এই কার্ড সেতুবন্ধনের বার্তা দেয়। ‘ হাসান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরিসংখ্যানে স্নাতক। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর করছেন। তিনি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগ থেকে স্নাতক শেষ করে একটি বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি করছেন ত্রিমা। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু যোগাযোগের মাধ্যম। এই সেতুটি সাহস, অধ্যবসায়, বিজয়ের প্রতীক। প্রেম থেকে বিয়ে পর্যন্ত দীর্ঘ যাত্রা সাহস, সংকল্প এবং বিজয়ের গল্প হতে চলেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ইচ্ছে পূরণ হচ্ছে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিন অবশেষে বিয়ের

আপডেট সময় ০৭:২৪:৪৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ জুন ২০২২

হাছান মাহমুদের বাড়ি সাভারে। সারগিনা হোসেন ত্রিমা গোপালগঞ্জ।

সাভার, গোপালগঞ্জ—দুই এলাকার যোগাযোগের ক্ষেত্রে বড় বাধা পদ্মা। কিন্তু এই বাধা আর নেই।

দুইদিনের মধ্যে পদ্মা সেতুর কাজ শুরু হবে। আপনি চাইলে কোনো বাধা ছাড়াই এই সেতু দিয়ে আসা-যাওয়া করতে পারেন

সবার দৃষ্টি এখন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিকে। হাসান ও ত্রিমার দিন গুনতে শুরু করেছে অনেক আগেই। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনটির জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন তারা।

হাসান-ত্রিমার অপেক্ষার প্রেক্ষাপট জানতে আমাদের কয়েক দশক পিছিয়ে যেতে হবে। দুজনের মধ্যে পরিচয়ের পর মন দেওয়া-নেওয়া হয়।

প্রেমের সম্পর্কের একপর্যায়ে হাসান মজা করে ত্রিমাকে বলেন, ফেরি করে পদ্মা পাড়ি দিয়ে বিয়ে করা কঠিন হবে।

তারপর হাসান-ত্রিমার চোখের সামনে পদ্মার বুকে তৈরি হতে থাকে স্বপ্নের সেতু। একটা একটা করে স্প্যান বসানোর সময় হাসানের মাথায় একটা দারুণ ‘আইডিয়া’ এলো। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনই বিয়ে করবেন তিনি। ত্রিমাকে জানানো হলে তিনিও রাজি হন।

হাসান-ত্রিমার সম্পর্কের কথা দুই পরিবারই জানে। কবে বিয়ে হবে তা নিয়ে ধাওয়া করছিল দুই পরিবারের সদস্যরা। হাসান ও ত্রিমা তাদের বিয়ের পরিকল্পনার কথা পরিবারকে জানান। পরিকল্পনার কথা শুনে দুই পরিবারই অস্থির হয়ে ওঠে।

হাসান বলেন, “বাবা-মায়ের চাপ সত্ত্বেও আমি আমার পরিকল্পনায় অনড়। বলা যায় বিয়েটা শেষ করেছি। ত্রিমা আমাকে সমর্থন করে।”

“আমরা দুজনেই কিছু একটা ভেবেছিলাম,” ত্রিমা বলল। আমরা অনেক দূর এসেছি। তাই আমরা আমাদের বিয়েকে স্মরণীয় করে রাখতে বদ্ধপরিকর। ‘

পদ্মা সেতুর শেষ স্প্যানটি 10 ​​ডিসেম্বর, 2020 এ স্থাপন করা হয়েছিল। পদ্মার দুই তীর একটি স্প্যান দ্বারা সংযুক্ত। হাসান-ত্রিমা জুটির চোখে খুশির ঝিলিক। এখন আনুষ্ঠানিকভাবে দুজনের জীবনকে সংযুক্ত করার সময় এসেছে। পারিবারিক পর্যায়ে আনুষ্ঠানিকতা ধীরে ধীরে অগ্রসর হয়।

দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ঘোষণা আসে ২৪ মে। আগামী ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন। এই ঘোষণাই হয়ে গেল হাসান ও ত্রিমার বিয়ের তারিখ।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের প্রস্তুতি চলছে। হাসান-ত্রিমার বিয়ে ঘিরে এগিয়ে গেল সব আয়োজন।

১৪ জুন সন্ধ্যায় প্রথমবারের মতো আলোকিত হয় পুরো পদ্মা সেতু। হাসান গত ১৬ জুন সন্ধ্যায় মারা যান।

হাসানের ঘনিষ্ঠজন সজিব মিয়া ফেসবুকে গেহলুদের একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, হাসান ভাই পদ্মা সেতুতে গণপরিবহন না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন। পদ্মা সেতুর আলো জ্বলছে, এবার হাসান ভাইয়ের হলুদ সন্ধ্যার আলো! ‘

ত্রিমা গায়েহলুদ 24 জুন ঢাকায় থাকবেন। তার জন্য এখন প্রস্তুতি চলছে। প্রস্তুতি হিসেবে মঙ্গলবার বিকেলে হাসান তার ফেসবুক পেজে পোস্ট দেন। পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ২৫ জুন বিয়ের পরিকল্পনা করেছি। সবার কাছ থেকে দোয়া কামনা করছি। ‘

ফেসবুক পোস্টে নিজের বিয়ের কার্ড দিয়েছেন হাসান। কার্ড অনুযায়ী 25 জুন বিয়ে। 1 জুলাই বিয়ের রিসেপশন।

কার্ডের বাম পাশে একটি হাতে আঁকা পেইন্টিং। গ্রামীণ পরিবেশে বিয়ের ছবি এঁকেছেন ত্রিমা।

কার্ডটিতে লেখা আছে, “আমাদের যৌথ জীবনের জন্য শুধুমাত্র আশীর্বাদ এবং ভালবাসা কাম্য।”

কার্ডের নিচের অংশে দুই পাশে পদ্মা সেতুর প্রতীকী অলঙ্কার রয়েছে। হাসান বলেন, ‘আমার কাছে বিয়ের কার্ডের আইডিয়া আছে। আমি একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে একটি কার্ড তৈরি করেছি। আমি কার্ডে ঐতিহ্যবাহী জামদানি ব্যবহার করেছি। পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দিনকে কেন্দ্র করে আমাদের বিয়ের পরিকল্পনা। এ কারণে পদ্মা সেতুর প্রতীকী অলংকরণ কার্ডে রাখা হয়েছে। এই কার্ড সেতুবন্ধনের বার্তা দেয়। ‘ হাসান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরিসংখ্যানে স্নাতক। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর করছেন। তিনি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগ থেকে স্নাতক শেষ করে একটি বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি করছেন ত্রিমা। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু যোগাযোগের মাধ্যম। এই সেতুটি সাহস, অধ্যবসায়, বিজয়ের প্রতীক। প্রেম থেকে বিয়ে পর্যন্ত দীর্ঘ যাত্রা সাহস, সংকল্প এবং বিজয়ের গল্প হতে চলেছে।