১০:০৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

ইউক্রেন যুদ্ধের সময় রাশিয়া ৯ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার মূল্যের জ্বালানি রপ্তানি করেছে

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:৩৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ জুন ২০২২
  • / ৮৪৩ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

ইউক্রেনে রাশিয়ান অভিযানের প্রথম 100 দিনে, মস্কো জীবাশ্ম জ্বালানী রপ্তানি থেকে 9,300 মিলিয়ন ইউরো উপার্জন করেছে। এর বেশির ভাগই পাঠানো হয়েছে ইইউভুক্ত দেশগুলোতে। সোমবার ফিনিশ ভিত্তিক সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ার (সিআরইএ) প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। খবর এএফপি।

প্রতিবেদনটি এমন সময় এসেছে যখন পশ্চিমারা কিয়েভকে আর্থিকভাবে দুর্বল করার জন্য রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার আহ্বান জানিয়েছে। ইউরোপের দেশগুলো তেল আমদানির জন্য রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীল। এই মাসের শুরুতে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়া থেকে বেশিরভাগ তেল আমদানি স্থগিত করেছে।

CREA এর মতে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন যুদ্ধের প্রথম 100 দিনে রাশিয়া থেকে জীবাশ্ম জ্বালানি আমদানি করেছে, যা মস্কোর মোট রপ্তানির 61 শতাংশের জন্য দায়ী। এর মূল্য প্রায় ৫,৬০০ কোটি ইউরো।

চীন রাশিয়ার জ্বালানি আমদানিকারক দেশ। দেশটি ১ হাজার ২৬০ কোটি ইউরোর জ্বালানি কিনেছে। এর পরের অবস্থানে রয়েছে জার্মানি। দেশটি রাশিয়া থেকে 1.2 বিলিয়ন ইউরো মূল্যের জ্বালানি কিনেছে। আর ইতালি ৬০ কোটি ইউরোর জ্বালানি কিনেছে।

জীবাশ্ম জ্বালানি রপ্তানি থেকে রাশিয়ার আয়ের বেশিরভাগই আসে অপরিশোধিত তেল রপ্তানি থেকে। এর মাধ্যমে দেশটি আয় করেছে ৪ হাজার ৬০০ কোটি ইউরো। অবশিষ্ট জীবাশ্ম জ্বালানি আয় পাইপলাইন গ্যাস, তেল উৎপাদন, তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (LNG) এবং কয়লা বিক্রয় থেকে আসে।

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিভিন্ন দেশ ও কোম্পানি থেকে আমদানি বন্ধ করে দেওয়ায় মে মাসে রাশিয়ার রপ্তানি কমেছে। তবে রাশিয়ার রপ্তানি আয় রেকর্ড মাত্রায় বেড়েছে।

সিআরইএ-এর মতে, গত বছরের তুলনায় এ বছর রাশিয়ার গড় রপ্তানি মূল্য ৭০ শতাংশ বেশি। চীন, ভারত, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ফ্রান্স সহ বেশ কয়েকটি দেশ মস্কো থেকে তাদের কেনাকাটা বাড়িয়েছে।

এজেন্সির একজন বিশ্লেষক লরি মিলিভার্তা বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার উপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার চেষ্টা করায় ফ্রান্স বিশ্বের বৃহত্তম এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) ক্রেতা থেকে আমদানি বাড়িয়েছে।

তিনি আরও বলেন, চুক্তি বহির্ভূত কেনাকাটা দীর্ঘমেয়াদী চুক্তির চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। তবে, ফ্রান্স ইউক্রেনে মস্কো অভিযানের সময় রাশিয়ার শক্তি ব্যবহার করার একটি সচেতন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মিলিভার্তা রাশিয়ার জীবাশ্ম জ্বালানির উপর অবরোধের আহ্বান জানিয়েছে মুখের কথাকে কাজে লাগাতে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

ইউক্রেন যুদ্ধের সময় রাশিয়া ৯ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার মূল্যের জ্বালানি রপ্তানি করেছে

আপডেট সময় ১০:৩৩:৩৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ জুন ২০২২

ইউক্রেনে রাশিয়ান অভিযানের প্রথম 100 দিনে, মস্কো জীবাশ্ম জ্বালানী রপ্তানি থেকে 9,300 মিলিয়ন ইউরো উপার্জন করেছে। এর বেশির ভাগই পাঠানো হয়েছে ইইউভুক্ত দেশগুলোতে। সোমবার ফিনিশ ভিত্তিক সেন্টার ফর রিসার্চ অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লিন এয়ার (সিআরইএ) প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। খবর এএফপি।

প্রতিবেদনটি এমন সময় এসেছে যখন পশ্চিমারা কিয়েভকে আর্থিকভাবে দুর্বল করার জন্য রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার আহ্বান জানিয়েছে। ইউরোপের দেশগুলো তেল আমদানির জন্য রাশিয়ার ওপর নির্ভরশীল। এই মাসের শুরুতে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়া থেকে বেশিরভাগ তেল আমদানি স্থগিত করেছে।

CREA এর মতে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন যুদ্ধের প্রথম 100 দিনে রাশিয়া থেকে জীবাশ্ম জ্বালানি আমদানি করেছে, যা মস্কোর মোট রপ্তানির 61 শতাংশের জন্য দায়ী। এর মূল্য প্রায় ৫,৬০০ কোটি ইউরো।

চীন রাশিয়ার জ্বালানি আমদানিকারক দেশ। দেশটি ১ হাজার ২৬০ কোটি ইউরোর জ্বালানি কিনেছে। এর পরের অবস্থানে রয়েছে জার্মানি। দেশটি রাশিয়া থেকে 1.2 বিলিয়ন ইউরো মূল্যের জ্বালানি কিনেছে। আর ইতালি ৬০ কোটি ইউরোর জ্বালানি কিনেছে।

জীবাশ্ম জ্বালানি রপ্তানি থেকে রাশিয়ার আয়ের বেশিরভাগই আসে অপরিশোধিত তেল রপ্তানি থেকে। এর মাধ্যমে দেশটি আয় করেছে ৪ হাজার ৬০০ কোটি ইউরো। অবশিষ্ট জীবাশ্ম জ্বালানি আয় পাইপলাইন গ্যাস, তেল উৎপাদন, তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (LNG) এবং কয়লা বিক্রয় থেকে আসে।

ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিভিন্ন দেশ ও কোম্পানি থেকে আমদানি বন্ধ করে দেওয়ায় মে মাসে রাশিয়ার রপ্তানি কমেছে। তবে রাশিয়ার রপ্তানি আয় রেকর্ড মাত্রায় বেড়েছে।

সিআরইএ-এর মতে, গত বছরের তুলনায় এ বছর রাশিয়ার গড় রপ্তানি মূল্য ৭০ শতাংশ বেশি। চীন, ভারত, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ফ্রান্স সহ বেশ কয়েকটি দেশ মস্কো থেকে তাদের কেনাকাটা বাড়িয়েছে।

এজেন্সির একজন বিশ্লেষক লরি মিলিভার্তা বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়ার উপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার চেষ্টা করায় ফ্রান্স বিশ্বের বৃহত্তম এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) ক্রেতা থেকে আমদানি বাড়িয়েছে।

তিনি আরও বলেন, চুক্তি বহির্ভূত কেনাকাটা দীর্ঘমেয়াদী চুক্তির চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। তবে, ফ্রান্স ইউক্রেনে মস্কো অভিযানের সময় রাশিয়ার শক্তি ব্যবহার করার একটি সচেতন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মিলিভার্তা রাশিয়ার জীবাশ্ম জ্বালানির উপর অবরোধের আহ্বান জানিয়েছে মুখের কথাকে কাজে লাগাতে।