০৯:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

সরে দাঁড়ালেন আ.লীগের ‘বিদ্রোহী’ মেয়র প্রার্থী মাসুদ পারভেজ

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১২:১৩:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২
  • / ১২৩৭ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মাসুদ পারভেজ খান ইমরান। আজ বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার দিকে কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রি ভবন মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ঘোষণা দেন।

পরে মাসুদ পারভেজ খান বিকেল সাড়ে চারটায় নগরের ছোটরা এলাকার আঞ্চলিক সার্ভার স্টেশন কেন্দ্রে রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তরে গিয়ে নিজেই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। এর ফলে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের আর কোনো দলীয় বাধা রইল না।

মাসুদ পারভেজ খান আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটির সদস্য এবং ব্যবসায়ীদের সংগঠন কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি। তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বর্ষীয়ান নেতা প্রয়াত আফজল খানের বড় ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে মাসুদ পারভেজ খান বলেন, ‘দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম। আমি দলের সবাইকে নৌকার পক্ষে কাজ করার জন্য অনুরোধ করছি। একসময় কুমিল্লায় আওয়ামী লীগ বলতে আফজল খানকে বোঝাত। আমার বাবা আফজল খান দলের দুঃসময়ের নেতা ছিলেন। কুমিল্লায় আওয়ামী লীগকে তিনি আমৃত্যু ধরে রেখেছিলেন। দলের স্বার্থে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে ১৭ মে মাসুদ পারভেজ খান স্বতন্ত্র প্রার্থী হন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত রাজধানীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়ার বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে মাসুদের বোন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আঞ্জুম সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে কেন্দ্রীয় নেতারা মাসুদ পারভেজ খানকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ করেন। একই সঙ্গে তাঁকে দল আগামীতে দেখবে বলে আশ্বস্ত করা হয়। এরপর ২৬ মে নিজের সিদ্ধান্তের কথা জানাবেন বলে জানিয়েছিলেন মাসুদ পারভেজ খান। এর পরিপ্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন তিনি। মাসুদ পারভেজ খান বলেন, ‘আমিসহ আমার লোকজন সবাই নৌকার পক্ষে কাজ করব।’

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরী বলেন, ‘আজ (বৃহস্পতিবার) ছিল মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। মেয়র প্রার্থী মাসুদ পারভেজ খান বিকেল সাড়ে চারটায় আমার দপ্তরে এসে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।’

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ‘ইমরান (মাসুদ) মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়ায় তাঁকে ধন্যবাদ জানাই। দলের সবাই এক হয়ে মিলেমিশে কাজ করব। নৌকাকে বিজয়ী করব।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে এখন পাঁচজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগের আরফানুল হক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. রাশেদুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুল হক সাক্কু, কুমিল্লা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন এবং কুমিল্লা নাগরিক ফোরামের সভাপতি কামরুল হাসান বাবুল। আগামী ১৫ জুন এই নির্বাচনে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সরে দাঁড়ালেন আ.লীগের ‘বিদ্রোহী’ মেয়র প্রার্থী মাসুদ পারভেজ

আপডেট সময় ১২:১৩:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মাসুদ পারভেজ খান ইমরান। আজ বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার দিকে কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রি ভবন মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ঘোষণা দেন।

পরে মাসুদ পারভেজ খান বিকেল সাড়ে চারটায় নগরের ছোটরা এলাকার আঞ্চলিক সার্ভার স্টেশন কেন্দ্রে রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তরে গিয়ে নিজেই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। এর ফলে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের আর কোনো দলীয় বাধা রইল না।

মাসুদ পারভেজ খান আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটির সদস্য এবং ব্যবসায়ীদের সংগঠন কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি। তিনি কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বর্ষীয়ান নেতা প্রয়াত আফজল খানের বড় ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে মাসুদ পারভেজ খান বলেন, ‘দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম। আমি দলের সবাইকে নৌকার পক্ষে কাজ করার জন্য অনুরোধ করছি। একসময় কুমিল্লায় আওয়ামী লীগ বলতে আফজল খানকে বোঝাত। আমার বাবা আফজল খান দলের দুঃসময়ের নেতা ছিলেন। কুমিল্লায় আওয়ামী লীগকে তিনি আমৃত্যু ধরে রেখেছিলেন। দলের স্বার্থে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে ১৭ মে মাসুদ পারভেজ খান স্বতন্ত্র প্রার্থী হন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত রাজধানীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়ার বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে মাসুদের বোন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আঞ্জুম সুলতানা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে কেন্দ্রীয় নেতারা মাসুদ পারভেজ খানকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ করেন। একই সঙ্গে তাঁকে দল আগামীতে দেখবে বলে আশ্বস্ত করা হয়। এরপর ২৬ মে নিজের সিদ্ধান্তের কথা জানাবেন বলে জানিয়েছিলেন মাসুদ পারভেজ খান। এর পরিপ্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করে তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন তিনি। মাসুদ পারভেজ খান বলেন, ‘আমিসহ আমার লোকজন সবাই নৌকার পক্ষে কাজ করব।’

রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরী বলেন, ‘আজ (বৃহস্পতিবার) ছিল মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। মেয়র প্রার্থী মাসুদ পারভেজ খান বিকেল সাড়ে চারটায় আমার দপ্তরে এসে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।’

আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরফানুল হক বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ‘ইমরান (মাসুদ) মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়ায় তাঁকে ধন্যবাদ জানাই। দলের সবাই এক হয়ে মিলেমিশে কাজ করব। নৌকাকে বিজয়ী করব।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে এখন পাঁচজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগের আরফানুল হক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. রাশেদুল ইসলাম, স্বতন্ত্র প্রার্থী কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুল হক সাক্কু, কুমিল্লা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন এবং কুমিল্লা নাগরিক ফোরামের সভাপতি কামরুল হাসান বাবুল। আগামী ১৫ জুন এই নির্বাচনে ভোট অনুষ্ঠিত হবে।