১২:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

‘আল্লাহ যদি বাচ্চাটাকে বাঁচায়, আমি দত্তক নিতে চাই’

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৫:২৭:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ জুলাই ২০২২
  • / ২৮৯ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় ধানখেতে পড়ে ছিল একটি নবজাতক। উদ্ধারের পর রোববার দিবাগত রাতে চিকিৎসার জন্য নবজাতকটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। নবজাতকটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা ব্যক্তি বলেছেন, মেয়েশিশুটি বেঁচে গেলে তিনি দত্তক নিতে চান। নবজাতকটিকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসা মানিক মিয়া জানান, ২১ জুলাই হোমনার দড়িরচর এলাকার এক কৃষক জমিতে কাজ করতে গিয়ে নবজাতকটিকে পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর তাঁর ভাই আমির হোসেন শিশুটিকে উদ্ধার করেন। শিশুটির নাক ও মাথার পেছনের কিছু অংশ ইঁদুর ও পোকামাকড় কামড়িয়ে ক্ষত করে ফেলেছে। তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মানিক মিয়া বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ আশপাশের লোকজনকে জানানো হয়। পরে চেয়ারম্যানের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ জানতে পেরে হাসপাতালে গিয়ে নবজাতকটির খোঁজখবর নেয়।

এ সময় মানিক মিয়া বলেন, ‘আমার চার ছেলে রয়েছে। আল্লাহ যদি বাচ্চাটাকে বাঁচায়, তাহলে আমি দত্তক নিতে চাই।’

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, ‘নবজাতকটির অবস্থা c। ওজন ১ কেজি ৭০০ গ্রাম। আমাদের চিকিৎসকেরা প্রয়োজনীয় সব চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।’

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

‘আল্লাহ যদি বাচ্চাটাকে বাঁচায়, আমি দত্তক নিতে চাই’

আপডেট সময় ০৫:২৭:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ জুলাই ২০২২

কুমিল্লার হোমনা উপজেলায় ধানখেতে পড়ে ছিল একটি নবজাতক। উদ্ধারের পর রোববার দিবাগত রাতে চিকিৎসার জন্য নবজাতকটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। নবজাতকটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা ব্যক্তি বলেছেন, মেয়েশিশুটি বেঁচে গেলে তিনি দত্তক নিতে চান। নবজাতকটিকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসা মানিক মিয়া জানান, ২১ জুলাই হোমনার দড়িরচর এলাকার এক কৃষক জমিতে কাজ করতে গিয়ে নবজাতকটিকে পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর তাঁর ভাই আমির হোসেন শিশুটিকে উদ্ধার করেন। শিশুটির নাক ও মাথার পেছনের কিছু অংশ ইঁদুর ও পোকামাকড় কামড়িয়ে ক্ষত করে ফেলেছে। তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মানিক মিয়া বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ আশপাশের লোকজনকে জানানো হয়। পরে চেয়ারম্যানের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ জানতে পেরে হাসপাতালে গিয়ে নবজাতকটির খোঁজখবর নেয়।

এ সময় মানিক মিয়া বলেন, ‘আমার চার ছেলে রয়েছে। আল্লাহ যদি বাচ্চাটাকে বাঁচায়, তাহলে আমি দত্তক নিতে চাই।’

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, ‘নবজাতকটির অবস্থা c। ওজন ১ কেজি ৭০০ গ্রাম। আমাদের চিকিৎসকেরা প্রয়োজনীয় সব চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন।’