১০:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

আফগানিস্তানের সামনে শ্রীলঙ্কার অসহায় আত্মসমর্পণ

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৬:১২:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ অগাস্ট ২০২২
  • / ১১৭৪ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

দুই দল এর আগে একবার T20I তে মুখোমুখি হয়েছিল, 2016 T20I বিশ্বকাপে। সেবার শ্রীলঙ্কা খুব সহজ জয় পেয়েছিল। দ্বিতীয় লুকে অবশ্য তারা অন্য আফগানিস্তানকে দেখল। দুবাইয়ে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে আফগানিস্তান।

শক্তির বিচারে দুই দলই ছিল প্রায় সমান, ব্যাটিংয়ের কারণে হয়তো কিছুটা এগিয়ে ছিল শ্রীলঙ্কা। তবে দুবাইয়ে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে লড়াইটা একতরফা করে ফেলে আফগানিস্তান। প্রথমে ব্যাটিং বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কা। ফজল হক ফারুকীর গতি, মোহাম্মদ নবী ও মুজিব রহমানের স্পিনে শ্রীলঙ্কা মাত্র ১০৫ রানে গুটিয়ে যায়। দুই ওপেনার রহমানুল্লাহ গুরবাজের 18 বলে 40 এবং হজরতুল্লাহ জাজাইয়ের 28 বলে 37 রানের ইনিংসের পর, আফগানিস্তান 59 বল এবং 8 উইকেট বাকি থাকতে লক্ষ্য অতিক্রম করে।

রান তাড়া করতে গিয়ে দ্বিতীয় ওভারে গুরবাজ এলবিডব্লিউ হন, কিন্তু রিভিউ নিয়ে সেই পর্বে বেঁচে যান। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। গুরবাজ ও জাজাই প্রথম ৬ ওভারে ৮৩ রান করেন। পাওয়ার প্লেতে এটি ছিল আফগানিস্তানের সর্বোচ্চ স্কোর, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যেকোনো দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। হাসরাঙ্গার বলে বোল্ড হন গুরবাজ, তারপর নন-স্ট্রাইক প্রান্তে জাজাইয়ের শট স্টাম্প ভেঙে গেলে রান আউট হন ইব্রাহিম জাদরান। লঙ্কানদের আনন্দের উপলক্ষটা এখানেই শেষ। এর আগে, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দুই দলের মধ্যে দ্বিতীয় ম্যাচে আফগান অধিনায়ক নবী দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের তাজা পিচে টসে জিতে বোলিং করেন। ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ ২ বলে কুশল মেন্ডিস ও চরিত আসালঙ্কাকে ফেরত পাঠান বাঁহাতি পেসার ফজল হক ফারুকি। দুজনেই এলবিডব্লিউ, মেন্ডিসের উইকেট রিভিউ নিয়ে আফগানিস্তানে চলে যায়। পথুম নিসাঙ্কাকে পরের ওভারে নবীন-উল-হকের হাতে কেটে দেন, যদিও তার সিদ্ধান্ত বিতর্কিত হয়েছে। আম্পায়ার তাকে মাঠে আউট দেওয়ার পর নিসাঙ্কা রিভিউ নেন। কোন আল্ট্রা-এজ স্পাইক ছিল না, তবে মাঠের সিদ্ধান্তটি টেলিভিশন আম্পায়ার জয়রামন মদনগোপাল বহাল রাখেন। সেই সিদ্ধান্তে শ্রীলঙ্কার হতাশা ছিল স্পষ্ট।

৫ রানে ৩ উইকেট, এর আগে টি-টোয়েন্টিতে এত কম রানে এত উইকেট হারায়নি শ্রীলঙ্কা। দানুশকা গুনাতিলাকা এবং ভানুকা রাজাপাকসে সেই চাপ সামলানোর চেষ্টা করেছিলেন। চতুর্থ ওভারে প্রথম বাউন্ডারি পায় শ্রীলঙ্কা। ষষ্ঠ ওভারে রাজাপাকসে ও গুনাথিলাকার আক্রমণে আজমতুল্লাহ ওমরজাই, সেই ওভারে ২০ রান আসে, পাওয়ার প্লেতে শ্রীলঙ্কা ৪১ রান করে।

এরপর আবারও আফগান স্পিনের কাছে হেরে যায় শ্রীলঙ্কা। মুজিব উর রহমানের বলে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে গুনাথিলাকাকে ক্যাচ দিলে রাজাপক্ষের সঙ্গে তার ৩২ বলে ৪৪ রানের জুটি ভেঙে যায়। গুনাথিলাকা করিম জনানের কাছে একটি ক্যাচ নেন, যিনি আগে কভারে ছেড়ে দিয়েছিলেন তার কাছ থেকে একটি সহজ ক্যাচ। পরের ওভারে ওয়ানিন্দু হাসরাঙ্গাকে ফেরান মুজিব, ইনিংসের অর্ধেক শেষ হওয়ার আগেই লঙ্কানরা ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে।

নবম ওভারে রশিদ খান প্রথমে বোলিং করতে আসলেও তাকে উইকেট দেয়নি শ্রীলঙ্কা। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় তারা। নবীর অফ স্টাম্পে ঘুষি মেরে ফেরেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দাসুন শানাকা। তবে এক ওভারের পর যা হলো, তাতে হয়তো রাতেই উঠে এসেছে শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং দুর্দশার চিত্র। শ্রীলঙ্কা পরপর 2 বলে 2 রানে রাজাপাকসে এবং মহেশ টিকসানার উইকেট হারায়, দুজনেই চামিকা করুণারত্নের সাথে ভুল বোঝাবুঝিতে ফিরে আসে।

মাথিশা পাথিরানা নবীর দ্বিতীয় শিকার হলে 75 রানে 9 উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন 82 রান ছিল লঙ্কানদের জন্য নজরকাড়া। এটি করুণারত্নের সৌজন্যে ছিল না, যিনি শেষ উইকেট জুটিতে দিলশান মাদুশঙ্কার সাথে 29 বলে 30 রান যোগ করেছিলেন। তবে সেই জুটিতে মাদুশঙ্কার অবদান 1 রান। ৩৮ বলে ৩১ রান করার পর ইনিংসে ২ বল বাকি থাকতেই করুণারত্নে ফারুকের তৃতীয় শিকার হন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আফগানিস্তানের সামনে শ্রীলঙ্কার অসহায় আত্মসমর্পণ

আপডেট সময় ০৬:১২:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ অগাস্ট ২০২২

দুই দল এর আগে একবার T20I তে মুখোমুখি হয়েছিল, 2016 T20I বিশ্বকাপে। সেবার শ্রীলঙ্কা খুব সহজ জয় পেয়েছিল। দ্বিতীয় লুকে অবশ্য তারা অন্য আফগানিস্তানকে দেখল। দুবাইয়ে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে আফগানিস্তান।

শক্তির বিচারে দুই দলই ছিল প্রায় সমান, ব্যাটিংয়ের কারণে হয়তো কিছুটা এগিয়ে ছিল শ্রীলঙ্কা। তবে দুবাইয়ে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে লড়াইটা একতরফা করে ফেলে আফগানিস্তান। প্রথমে ব্যাটিং বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কা। ফজল হক ফারুকীর গতি, মোহাম্মদ নবী ও মুজিব রহমানের স্পিনে শ্রীলঙ্কা মাত্র ১০৫ রানে গুটিয়ে যায়। দুই ওপেনার রহমানুল্লাহ গুরবাজের 18 বলে 40 এবং হজরতুল্লাহ জাজাইয়ের 28 বলে 37 রানের ইনিংসের পর, আফগানিস্তান 59 বল এবং 8 উইকেট বাকি থাকতে লক্ষ্য অতিক্রম করে।

রান তাড়া করতে গিয়ে দ্বিতীয় ওভারে গুরবাজ এলবিডব্লিউ হন, কিন্তু রিভিউ নিয়ে সেই পর্বে বেঁচে যান। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। গুরবাজ ও জাজাই প্রথম ৬ ওভারে ৮৩ রান করেন। পাওয়ার প্লেতে এটি ছিল আফগানিস্তানের সর্বোচ্চ স্কোর, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যেকোনো দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। হাসরাঙ্গার বলে বোল্ড হন গুরবাজ, তারপর নন-স্ট্রাইক প্রান্তে জাজাইয়ের শট স্টাম্প ভেঙে গেলে রান আউট হন ইব্রাহিম জাদরান। লঙ্কানদের আনন্দের উপলক্ষটা এখানেই শেষ। এর আগে, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে দুই দলের মধ্যে দ্বিতীয় ম্যাচে আফগান অধিনায়ক নবী দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের তাজা পিচে টসে জিতে বোলিং করেন। ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ ২ বলে কুশল মেন্ডিস ও চরিত আসালঙ্কাকে ফেরত পাঠান বাঁহাতি পেসার ফজল হক ফারুকি। দুজনেই এলবিডব্লিউ, মেন্ডিসের উইকেট রিভিউ নিয়ে আফগানিস্তানে চলে যায়। পথুম নিসাঙ্কাকে পরের ওভারে নবীন-উল-হকের হাতে কেটে দেন, যদিও তার সিদ্ধান্ত বিতর্কিত হয়েছে। আম্পায়ার তাকে মাঠে আউট দেওয়ার পর নিসাঙ্কা রিভিউ নেন। কোন আল্ট্রা-এজ স্পাইক ছিল না, তবে মাঠের সিদ্ধান্তটি টেলিভিশন আম্পায়ার জয়রামন মদনগোপাল বহাল রাখেন। সেই সিদ্ধান্তে শ্রীলঙ্কার হতাশা ছিল স্পষ্ট।

৫ রানে ৩ উইকেট, এর আগে টি-টোয়েন্টিতে এত কম রানে এত উইকেট হারায়নি শ্রীলঙ্কা। দানুশকা গুনাতিলাকা এবং ভানুকা রাজাপাকসে সেই চাপ সামলানোর চেষ্টা করেছিলেন। চতুর্থ ওভারে প্রথম বাউন্ডারি পায় শ্রীলঙ্কা। ষষ্ঠ ওভারে রাজাপাকসে ও গুনাথিলাকার আক্রমণে আজমতুল্লাহ ওমরজাই, সেই ওভারে ২০ রান আসে, পাওয়ার প্লেতে শ্রীলঙ্কা ৪১ রান করে।

এরপর আবারও আফগান স্পিনের কাছে হেরে যায় শ্রীলঙ্কা। মুজিব উর রহমানের বলে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে গুনাথিলাকাকে ক্যাচ দিলে রাজাপক্ষের সঙ্গে তার ৩২ বলে ৪৪ রানের জুটি ভেঙে যায়। গুনাথিলাকা করিম জনানের কাছে একটি ক্যাচ নেন, যিনি আগে কভারে ছেড়ে দিয়েছিলেন তার কাছ থেকে একটি সহজ ক্যাচ। পরের ওভারে ওয়ানিন্দু হাসরাঙ্গাকে ফেরান মুজিব, ইনিংসের অর্ধেক শেষ হওয়ার আগেই লঙ্কানরা ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে।

নবম ওভারে রশিদ খান প্রথমে বোলিং করতে আসলেও তাকে উইকেট দেয়নি শ্রীলঙ্কা। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় তারা। নবীর অফ স্টাম্পে ঘুষি মেরে ফেরেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দাসুন শানাকা। তবে এক ওভারের পর যা হলো, তাতে হয়তো রাতেই উঠে এসেছে শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং দুর্দশার চিত্র। শ্রীলঙ্কা পরপর 2 বলে 2 রানে রাজাপাকসে এবং মহেশ টিকসানার উইকেট হারায়, দুজনেই চামিকা করুণারত্নের সাথে ভুল বোঝাবুঝিতে ফিরে আসে।

মাথিশা পাথিরানা নবীর দ্বিতীয় শিকার হলে 75 রানে 9 উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন 82 রান ছিল লঙ্কানদের জন্য নজরকাড়া। এটি করুণারত্নের সৌজন্যে ছিল না, যিনি শেষ উইকেট জুটিতে দিলশান মাদুশঙ্কার সাথে 29 বলে 30 রান যোগ করেছিলেন। তবে সেই জুটিতে মাদুশঙ্কার অবদান 1 রান। ৩৮ বলে ৩১ রান করার পর ইনিংসে ২ বল বাকি থাকতেই করুণারত্নে ফারুকের তৃতীয় শিকার হন।