০৫:৪২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

আন্দোলনের একদিন পর আবারও হলের আসন থেকে ছাত্রকে ধাওয়া করে ছাত্রলীগ

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৯:৫৪:২৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ জুন ২০২২
  • / ১১৮৬ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আবদুল লতিফ হলে বসবাসরত এক শিক্ষার্থীর বিছানার চাদর ফেলে দিয়েছে ছাত্রলীগ। আবাসিক শিক্ষার্থীকে তাদের পছন্দের একজন শিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে হলের অন্য কক্ষে একটি বিছানা শেয়ার করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। হল প্রশাসন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে হল সভাপতির দাবি।

নিহতের নাম সজিব কুমার। তিনি 2019-20 শিক্ষাবর্ষের বাংলা বিভাগের ছাত্র। সে নবাব আব্দুল লতিফ হলের ২০৪ নম্বর কক্ষের আবাসিক ছাত্র। ওই কক্ষে একই শিক্ষাবর্ষের ছাত্রলীগের প্রিয় এক ছাত্রকে তুলে নেওয়া হয়েছে তার আসনে।

শিক্ষার্থীদের ছাত্রাবাসে আসন দখল ও আবাসিক শিক্ষার্থীদের হয়রানির প্রতিবাদে সোমবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তারা সেদিন বলেন, ছাত্রলীগ হলগুলোতে ভীতির সংস্কৃতি তৈরি করেছে। তারা হল থেকে বৈধ শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। ছাত্রলীগের নিপীড়নের শিকার হয়ে নীরবে হল ত্যাগ করেছেন এমন অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে। এভাবে বিশ্ববিদ্যালয় চলতে পারে না। শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের আন্দোলনের পরদিন সজিব কুমারকে কক্ষ থেকে বের করে দেওয়া হয়।

সজিব কুমার বুধবার সকালে প্রথম আলো</em>কে বলেন, তার বাড়ি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায়। তার বাবা সুনীল মন্ডল তিন বছর ধরে হৃদরোগে ভুগছেন। মা সুলাকি মণ্ডলও অসুস্থ। তিনিও পৃথিবীতে অনেক কিছু করতে পারেন না। তারা দুই ভাই। বড় ভাই সবুজ কুমার বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। সেখানে টিউশনি করে সংসার চালান। সজিবও রাজশাহীতে টিউশনি করে। এ কারণে তিনি মেসে থাকতে পারেননি। কয়েক মাস আগে তিনি হলটিতে আসনের জন্য আবেদন করেন। চার মাস তিনি তার বড় ভাইয়ের সাথে হলের 204 নম্বর কক্ষে ছিলেন। বড় ভাই চলে যাওয়ার পর কক্ষটি তার নামে বরাদ্দ করা হয়েছে বলে জানান হলের প্রশাসনিক কর্মকর্তা সজিব কুমার। সজিব আপত্তি জানালে তাকে হল ত্যাগ করতে বলা হয়। সজিব না গেলে তার (শামীমের) অনুসারীরা তাকে বহিষ্কারের হুমকি দেয়। সেখানে উপস্থিত তৌহিদ নামের এক ব্যক্তি বলেন, তোমাকে বের করে দিলে কী হবে? সর্বোচ্চ খবর থাকবে, কিন্তু আমাদের কিছুই হবে না। সজিব জানান, রাত সাড়ে ১১টার দিকে তার অনুপস্থিতিতে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরা তার বরাদ্দকৃত কক্ষে এসে সব বিছানার চাদর ফেলে দেয় এবং আরেকটি তুলে নেয়। পরে বিকেল ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করে অন্য বন্ধুর ঘরে ঘুমাতে যান। তিনি জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে অধ্যক্ষকে ফোন করে বিষয়টি জানান। সভাপতি তাকে ছাত্রলীগের দেখানো ৩৩২ নম্বর কক্ষে যেতে বলেন। চেয়ারম্যান উলটো বলেন, হল প্রশাসন চাইলে বাসভবন বাতিল করার ক্ষমতা রাখে। পরে তিনি ফোন কেটে দেন। সজিব তার বরাদ্দ রুম থেকে বাস করতে নামবে না বলে জানায়। কেন তার প্রতি এমন অবিচার করা হবে। তিনি নিয়ম অনুযায়ী উঠলে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শামীম হোসেনকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য মোবাইল ফোনে টেক্সট মেসেজ করেও কোনো সাড়া পাননি তিনি।

হলের অধ্যক্ষ এএইচএম মাহবুবুর রহমান প্রথম আলো</em>কে বলেন, ছাত্রীর বিছানা ফেলে দেওয়া হয়নি। আর রাতারাতি সমাধান হয়ে গেল। পরের বার তাকে আরও ভালো আসন দেওয়া হবে। আপাতত। নির্যাতিতা শিক্ষার্থীদের বিষয়ে শিক্ষক হিসেবে নিজের অবস্থান সম্পর্কে মন্তব্য করে মাহবুবুর বলেন, না, ছাত্রলীগের কারণে নয়। এটি নিজেই প্রত্নতাত্ত্বিক। এখানে (204 রুম) অন্য একটি ছেলে ছিল. এখন প্রভোস্ট যে কোনো সময় যে কাউকে বদল করতে পারেন। আমি আমার সুবিধার জন্য এটা করেছি. কোন সমস্যা নেই এবং সেখানে থাকুন। কোন সমস্যা হলে আমাকে জানান। তাকে ভালো আসন দেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আন্দোলনের একদিন পর আবারও হলের আসন থেকে ছাত্রকে ধাওয়া করে ছাত্রলীগ

আপডেট সময় ০৯:৫৪:২৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ জুন ২০২২

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আবদুল লতিফ হলে বসবাসরত এক শিক্ষার্থীর বিছানার চাদর ফেলে দিয়েছে ছাত্রলীগ। আবাসিক শিক্ষার্থীকে তাদের পছন্দের একজন শিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে হলের অন্য কক্ষে একটি বিছানা শেয়ার করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। হল প্রশাসন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে হল সভাপতির দাবি।

নিহতের নাম সজিব কুমার। তিনি 2019-20 শিক্ষাবর্ষের বাংলা বিভাগের ছাত্র। সে নবাব আব্দুল লতিফ হলের ২০৪ নম্বর কক্ষের আবাসিক ছাত্র। ওই কক্ষে একই শিক্ষাবর্ষের ছাত্রলীগের প্রিয় এক ছাত্রকে তুলে নেওয়া হয়েছে তার আসনে।

শিক্ষার্থীদের ছাত্রাবাসে আসন দখল ও আবাসিক শিক্ষার্থীদের হয়রানির প্রতিবাদে সোমবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তারা সেদিন বলেন, ছাত্রলীগ হলগুলোতে ভীতির সংস্কৃতি তৈরি করেছে। তারা হল থেকে বৈধ শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। ছাত্রলীগের নিপীড়নের শিকার হয়ে নীরবে হল ত্যাগ করেছেন এমন অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে। এভাবে বিশ্ববিদ্যালয় চলতে পারে না। শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের আন্দোলনের পরদিন সজিব কুমারকে কক্ষ থেকে বের করে দেওয়া হয়।

সজিব কুমার বুধবার সকালে প্রথম আলো</em>কে বলেন, তার বাড়ি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায়। তার বাবা সুনীল মন্ডল তিন বছর ধরে হৃদরোগে ভুগছেন। মা সুলাকি মণ্ডলও অসুস্থ। তিনিও পৃথিবীতে অনেক কিছু করতে পারেন না। তারা দুই ভাই। বড় ভাই সবুজ কুমার বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিদ্যা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। সেখানে টিউশনি করে সংসার চালান। সজিবও রাজশাহীতে টিউশনি করে। এ কারণে তিনি মেসে থাকতে পারেননি। কয়েক মাস আগে তিনি হলটিতে আসনের জন্য আবেদন করেন। চার মাস তিনি তার বড় ভাইয়ের সাথে হলের 204 নম্বর কক্ষে ছিলেন। বড় ভাই চলে যাওয়ার পর কক্ষটি তার নামে বরাদ্দ করা হয়েছে বলে জানান হলের প্রশাসনিক কর্মকর্তা সজিব কুমার। সজিব আপত্তি জানালে তাকে হল ত্যাগ করতে বলা হয়। সজিব না গেলে তার (শামীমের) অনুসারীরা তাকে বহিষ্কারের হুমকি দেয়। সেখানে উপস্থিত তৌহিদ নামের এক ব্যক্তি বলেন, তোমাকে বের করে দিলে কী হবে? সর্বোচ্চ খবর থাকবে, কিন্তু আমাদের কিছুই হবে না। সজিব জানান, রাত সাড়ে ১১টার দিকে তার অনুপস্থিতিতে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরা তার বরাদ্দকৃত কক্ষে এসে সব বিছানার চাদর ফেলে দেয় এবং আরেকটি তুলে নেয়। পরে বিকেল ৪টা পর্যন্ত অপেক্ষা করে অন্য বন্ধুর ঘরে ঘুমাতে যান। তিনি জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে অধ্যক্ষকে ফোন করে বিষয়টি জানান। সভাপতি তাকে ছাত্রলীগের দেখানো ৩৩২ নম্বর কক্ষে যেতে বলেন। চেয়ারম্যান উলটো বলেন, হল প্রশাসন চাইলে বাসভবন বাতিল করার ক্ষমতা রাখে। পরে তিনি ফোন কেটে দেন। সজিব তার বরাদ্দ রুম থেকে বাস করতে নামবে না বলে জানায়। কেন তার প্রতি এমন অবিচার করা হবে। তিনি নিয়ম অনুযায়ী উঠলে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শামীম হোসেনকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য মোবাইল ফোনে টেক্সট মেসেজ করেও কোনো সাড়া পাননি তিনি।

হলের অধ্যক্ষ এএইচএম মাহবুবুর রহমান প্রথম আলো</em>কে বলেন, ছাত্রীর বিছানা ফেলে দেওয়া হয়নি। আর রাতারাতি সমাধান হয়ে গেল। পরের বার তাকে আরও ভালো আসন দেওয়া হবে। আপাতত। নির্যাতিতা শিক্ষার্থীদের বিষয়ে শিক্ষক হিসেবে নিজের অবস্থান সম্পর্কে মন্তব্য করে মাহবুবুর বলেন, না, ছাত্রলীগের কারণে নয়। এটি নিজেই প্রত্নতাত্ত্বিক। এখানে (204 রুম) অন্য একটি ছেলে ছিল. এখন প্রভোস্ট যে কোনো সময় যে কাউকে বদল করতে পারেন। আমি আমার সুবিধার জন্য এটা করেছি. কোন সমস্যা নেই এবং সেখানে থাকুন। কোন সমস্যা হলে আমাকে জানান। তাকে ভালো আসন দেওয়া হবে।