০৮:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

আজ বিদায় জানাতে পারলে ভালো হতো: সিইসি

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:৪৪:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ জুলাই ২০২২
  • / ১০০১ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

নির্বাচনের মাঠে তলোয়ার নিয়ে কারও বিরুদ্ধে বন্দুক নিয়ে দাঁড়ানোর পরামর্শকে তামাশা বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, আজ বিদায় জানাতে পারলে ভালো হতো।

সোমবার রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে ইসির সঙ্গে সংলাপে সিইসির তলোয়ার-বন্দুক বক্তব্যের বিষয়টি তুলে ধরেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির

সাইফুল হক। এ সময় সিইসি হাবিবুল আউয়াল এসব কথা বলেন। হতাশার সুরে বললেন, ‘আজকের অবস্থা, আজকে যদি বিদায় জানাতে পারতাম, ভালো হতো। কাগজে কলমে সবকিছু… কাগজ এটা করবে. আমি গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী।

কোন প্রেক্ষাপটে তিনি এ বিষয়ে কথা বলেছেন তা উল্লেখ করেন সিইসি। এনডিএম চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ অস্ত্রের বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, তখন আমি বলেছিলাম, আপনারাও এভাবে একজনের পাশে দাঁড়াবেন। যদি তারা তলোয়ার নিয়ে দাঁড়ায়, আপনি বন্দুক নিয়ে দাঁড়ান। এটা কি কখনো খনন করা হয়?’

হাবিবুল আউয়াল বলেন, একজন প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কি কোনো জ্ঞান নেই? যদি এটি সত্য হয়, আমি অস্ত্র আইনে দায়ী। পুলিশ আমাকে হাতকড়া পরিয়ে নিয়ে যাবে। এটা বোঝা উচিত, এটি হৃদয় থেকে বলা হয়, মজা করে বলা হয় না। দেশের কাগজের প্রধান খবর। একজন মানুষকে নিচে নামানোর জন্য। এরপর আর কাজ করার অনুপ্রেরণা থাকে না। আমিও চাই না।

গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা সমালোচনার কারণে ইউটিউব দেখা বন্ধ করে দেন বলে জানান সিইসি। তিনি বলেন, ‘আজ ইউটিউব বন্ধ করে দিয়েছি। যখনই আমার ছবি দেখি তখনই বুঝি গালাগালি শুরু হবে আমার বাবা-দাদার সঙ্গে। আমি এই জন্য এটা দেখতে না.’

একপর্যায়ে সিইসি তার মাইকের সুইচ বন্ধ করে দেন। কিছুক্ষণ চুপ থাকার পর আবার মাইক অন করলেন। তিনি বলেন, ‘প্রতি মুহূর্তে বলা হচ্ছে মেঝে ভেঙে গেছে। এটা ভাঙ্গা. তবে আমরা মিডিয়াকে অনেক সাপোর্ট করি। আমি তাদের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। আমরা চাই সবকিছু মিডিয়ার কাছে যাক। অনেক কিছু পাওয়ার আশায় নির্বাচন কমিশনে আসিনি। আমরা খুব আপ্রাণ চেষ্টা করছি। আমাদের অনেক প্রচেষ্টাই বৃথা যায়। আবার কিছু দরকারী. এটা কিছু লাগে না. তবে আমি কঠোর পরিশ্রম করছি।

সংলাপে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক অভিযোগ করেন, ইসি সরকারি দলকে বেশি আপন করে দিচ্ছে। অন্য অনেক দল ইসিতে ঢুকতে পারছে না। জবাবে সিইসি বলেন, ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। তিনি একটি দল নিয়ে এসেছেন। কিন্তু আমার ঘরে ঢুকতে পারেনি। তাকে পাশের ঘরে বসিয়ে তারপর এখানে আনা হয়।

হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমি তাকে (ওবায়দুর কাদের) স্যার সম্বোধন করতে ভুলে গেছি। এ নিয়ে সমালোচনার মুখেও পড়েছি। আগেই জেনেছি, আমি সবসময় স্যার বলেছি। তারপর জানলাম আপনি না স্যার বলতে পারবেন না। তিনি (কমিশনার মোঃ আলমগীরকে ইঙ্গিত করে) এ বিষয়ে আমাকে আলোকিত করেছেন।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিনকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দেন সিইসি। ওখান থেকে বারবার মেসেজ আসছে, বাহার সাহেব বিরক্ত করছেন। তারপর তড়িঘড়ি করে যখন তাকে তার এলাকা থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। তাড়াহুড়ো করা সিদ্ধান্তগুলি প্রায়ই খুব একগুঁয়ে বা ভুল সিদ্ধান্তের দিকে নিয়ে যায়।

পরে সমালোচনা শুরু হলে তিনি আইনটি পড়ে বলেন, সিইসি বলেছেন, কোনো সংসদ সদস্যকে তার ভাষণ থেকে বহিষ্কার করার অধিকার নির্বাচন কমিশনের নেই। হয়ত পুলিশ গ্রেফতার করতে পারে। সেটা আলাদা ব্যাপার।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

আজ বিদায় জানাতে পারলে ভালো হতো: সিইসি

আপডেট সময় ০৪:৪৪:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৮ জুলাই ২০২২

নির্বাচনের মাঠে তলোয়ার নিয়ে কারও বিরুদ্ধে বন্দুক নিয়ে দাঁড়ানোর পরামর্শকে তামাশা বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, আজ বিদায় জানাতে পারলে ভালো হতো।

সোমবার রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে ইসির সঙ্গে সংলাপে সিইসির তলোয়ার-বন্দুক বক্তব্যের বিষয়টি তুলে ধরেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির

সাইফুল হক। এ সময় সিইসি হাবিবুল আউয়াল এসব কথা বলেন। হতাশার সুরে বললেন, ‘আজকের অবস্থা, আজকে যদি বিদায় জানাতে পারতাম, ভালো হতো। কাগজে কলমে সবকিছু… কাগজ এটা করবে. আমি গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী।

কোন প্রেক্ষাপটে তিনি এ বিষয়ে কথা বলেছেন তা উল্লেখ করেন সিইসি। এনডিএম চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ অস্ত্রের বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, তখন আমি বলেছিলাম, আপনারাও এভাবে একজনের পাশে দাঁড়াবেন। যদি তারা তলোয়ার নিয়ে দাঁড়ায়, আপনি বন্দুক নিয়ে দাঁড়ান। এটা কি কখনো খনন করা হয়?’

হাবিবুল আউয়াল বলেন, একজন প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কি কোনো জ্ঞান নেই? যদি এটি সত্য হয়, আমি অস্ত্র আইনে দায়ী। পুলিশ আমাকে হাতকড়া পরিয়ে নিয়ে যাবে। এটা বোঝা উচিত, এটি হৃদয় থেকে বলা হয়, মজা করে বলা হয় না। দেশের কাগজের প্রধান খবর। একজন মানুষকে নিচে নামানোর জন্য। এরপর আর কাজ করার অনুপ্রেরণা থাকে না। আমিও চাই না।

গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা সমালোচনার কারণে ইউটিউব দেখা বন্ধ করে দেন বলে জানান সিইসি। তিনি বলেন, ‘আজ ইউটিউব বন্ধ করে দিয়েছি। যখনই আমার ছবি দেখি তখনই বুঝি গালাগালি শুরু হবে আমার বাবা-দাদার সঙ্গে। আমি এই জন্য এটা দেখতে না.’

একপর্যায়ে সিইসি তার মাইকের সুইচ বন্ধ করে দেন। কিছুক্ষণ চুপ থাকার পর আবার মাইক অন করলেন। তিনি বলেন, ‘প্রতি মুহূর্তে বলা হচ্ছে মেঝে ভেঙে গেছে। এটা ভাঙ্গা. তবে আমরা মিডিয়াকে অনেক সাপোর্ট করি। আমি তাদের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। আমরা চাই সবকিছু মিডিয়ার কাছে যাক। অনেক কিছু পাওয়ার আশায় নির্বাচন কমিশনে আসিনি। আমরা খুব আপ্রাণ চেষ্টা করছি। আমাদের অনেক প্রচেষ্টাই বৃথা যায়। আবার কিছু দরকারী. এটা কিছু লাগে না. তবে আমি কঠোর পরিশ্রম করছি।

সংলাপে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক অভিযোগ করেন, ইসি সরকারি দলকে বেশি আপন করে দিচ্ছে। অন্য অনেক দল ইসিতে ঢুকতে পারছে না। জবাবে সিইসি বলেন, ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। তিনি একটি দল নিয়ে এসেছেন। কিন্তু আমার ঘরে ঢুকতে পারেনি। তাকে পাশের ঘরে বসিয়ে তারপর এখানে আনা হয়।

হাবিবুল আউয়াল বলেন, আমি তাকে (ওবায়দুর কাদের) স্যার সম্বোধন করতে ভুলে গেছি। এ নিয়ে সমালোচনার মুখেও পড়েছি। আগেই জেনেছি, আমি সবসময় স্যার বলেছি। তারপর জানলাম আপনি না স্যার বলতে পারবেন না। তিনি (কমিশনার মোঃ আলমগীরকে ইঙ্গিত করে) এ বিষয়ে আমাকে আলোকিত করেছেন।’

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিনকে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দেন সিইসি। ওখান থেকে বারবার মেসেজ আসছে, বাহার সাহেব বিরক্ত করছেন। তারপর তড়িঘড়ি করে যখন তাকে তার এলাকা থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। তাড়াহুড়ো করা সিদ্ধান্তগুলি প্রায়ই খুব একগুঁয়ে বা ভুল সিদ্ধান্তের দিকে নিয়ে যায়।

পরে সমালোচনা শুরু হলে তিনি আইনটি পড়ে বলেন, সিইসি বলেছেন, কোনো সংসদ সদস্যকে তার ভাষণ থেকে বহিষ্কার করার অধিকার নির্বাচন কমিশনের নেই। হয়ত পুলিশ গ্রেফতার করতে পারে। সেটা আলাদা ব্যাপার।