০৮:০২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

অগ্নিপথ, অটল সরকার নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে তিনটি জনস্বার্থ মামলা

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ০৪:২৭:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০২২
  • / ১২০৪ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

ভারত বন্ধের পরের দিন মঙ্গলবার সারা দেশে অগ্নিপথ প্রকল্প নিয়ে বিক্ষোভ থমকে যায়। তবে সরকার প্রকল্পের ব্যাপারে অনড় এবং বাস্তবায়নের চেষ্টা করছে। আজ বিভিন্ন মহল থেকে বলা হচ্ছে, প্রকল্প পুনর্বিবেচনার প্রশ্নই আসে না।

যাইহোক, ভারতের সুপ্রিম কোর্টে একাধিক জনস্বার্থ মামলা দায়ের করায় কেন্দ্রীয় সরকার এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে একটি সতর্কতা দাখিল করেছে। এর মাধ্যমে কেন্দ্র সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়ে দিল, সরকারের বক্তব্য না শুনে কোনও আদেশ জারি করা চলবে না।

ভারতীয় সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীতে নতুন নিয়োগ নীতি দেশজুড়ে অস্থিরতার দাবানল জ্বালিয়েছে। রাজ্যের যুব সমাজ এই প্রকল্পের বিরোধিতা করেছে। গত কয়েক দিনে দেশজুড়ে সহিংস ঘটনাও ঘটেছে।

প্রকল্প অনুযায়ী, তিন বাহিনীতে সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষণের পর ৪৮ হাজার যুবককে নিয়োগ দেওয়া হবে। চার বছর পর ওই যুবকদের এক-চতুর্থাংশ স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেওয়া হবে। বাকিদের প্রায় ১২ লাখ টাকা দিয়ে পাঠানো হবে। এই নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, যেখানে বেকারদের জন্য পেনশন ব্যবস্থা থাকবে না। অন্য কোন সুযোগ সুবিধা থাকবে না।

এই নীতির বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই সুপ্রিম কোর্টে তিনটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছে। আবেদনে বলা হয়েছে, প্রকল্পটি অসাংবিধানিক। সংসদে কোনো আলোচনা ছাড়াই প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে বহু বছরের নিয়োগ প্রথা উপেক্ষিত হয়েছে। এতে সুশৃঙ্খল বাহিনীর মনোবল নষ্ট হবে। সারাদেশে অশান্তির আগুন জ্বলছে। তাই কেন্দ্রকে প্রকল্পটি আরও বিবেচনা করার নির্দেশ দেওয়া উচিত।

পিটিশনে বলা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের উচিত একটি কমিটি গঠন করা যার সদস্যরা সেনাবাহিনী ও জাতীয় নিরাপত্তার ওপর প্রকল্পের প্রভাব খতিয়ে দেখবেন। আরজিওকে দেশে অস্থিরতা ও সহিংসতার কারণ খতিয়ে দেখতে একটি বিশেষ তদন্ত দল গঠন করতে বলা হয়েছিল।

বিচারপতি সিটি রবিকুমার এবং সুধাংশু ধুলিয়ার অবসরপ্রাপ্ত বেঞ্চ গতকাল বলেছেন যে আইনজীবী হর্ষ অজয় ​​সিংয়ের আবেদনটি বিবেচনার জন্য প্রধান বিচারপতির বেঞ্চে পাঠানো হবে। তবেই তা বিবেচনা করা হবে। ওই আবেদনে প্রকল্পটি স্থগিত রাখার অনুরোধ করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার সতর্কতা জমা দেওয়ার পরে, তাদের এখন কেন্দ্রেও আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

কেন্দ্র প্রথম থেকেই বলে আসছে এই প্রকল্প কোনওভাবেই স্থগিত করা হবে না। পরিবর্তে তিন বাহিনীতে দমকল কর্মী নিয়োগের জোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। তিন বাহিনীর প্রধানরা বলেছেন, প্রতিরক্ষার স্বার্থে সংস্কার জরুরি। ফলে সৈন্যদের বয়স ৩৫ থেকে কমিয়ে ২৪-২৫ হবে। তা ছাড়া কেন্দ্রীয় সরকারকে বিশাল পেনশনের বোঝা বহন করতে হবে না। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালও গতকাল বলেছিলেন যে সরকার কোনও পরিস্থিতিতেই প্রকল্পটি পুনর্বিবেচনার পথে হাঁটবে না। এএনআই-এর সাথে একটি সাক্ষাত্কারে তিনি বলেছিলেন যে প্রকল্পটি ভারতীয় যোদ্ধাদের আরও প্রযুক্তি নির্ভর করে তুলবে।

তরুণদের মনে প্রশ্ন, চার বছর পর বাতিল হওয়া দমকলকর্মীদের ভবিষ্যৎ কী হবে? আধাসামরিক বাহিনী, কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী এবং আসাম রাইফেলস সহ বিভিন্ন রাজ্য ইতিমধ্যেই একটি অনিশ্চিত ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে তাদের পুলিশ বাহিনীতে অগ্নিনির্বাপক বাহিনী মোতায়েন করার ঘোষণা দিয়েছে। দেশের বিশিষ্ট শিল্পপতিরাও ফায়ারম্যান নিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। অনেক প্রাক্তন যোদ্ধা সরকারকে সতর্ক করেছেন যে তরুণদের মধ্যে আস্থা জাগানোর এই প্রচেষ্টা অনিবন্ধিত যুবকদের চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে বাধা হতে পারে। তারা বলেন, সবাই অগ্নিবীরকে সুযোগ দেওয়ার চেষ্টা করলে শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিতদের মধ্যে বেকারত্ব দূরীকরণে অন্য সমস্যা হবে।

এক সপ্তাহ আগে অগ্নিপথ প্রকল্প চালুর ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। একের পর এক বিক্ষোভের পর গত সোমবার সারাদেশে এ বনধ পালিত হয়। গতকাল থেকে বিক্ষোভ অনেকটাই থমকে গেছে

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

অগ্নিপথ, অটল সরকার নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে তিনটি জনস্বার্থ মামলা

আপডেট সময় ০৪:২৭:৪৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০২২

ভারত বন্ধের পরের দিন মঙ্গলবার সারা দেশে অগ্নিপথ প্রকল্প নিয়ে বিক্ষোভ থমকে যায়। তবে সরকার প্রকল্পের ব্যাপারে অনড় এবং বাস্তবায়নের চেষ্টা করছে। আজ বিভিন্ন মহল থেকে বলা হচ্ছে, প্রকল্প পুনর্বিবেচনার প্রশ্নই আসে না।

যাইহোক, ভারতের সুপ্রিম কোর্টে একাধিক জনস্বার্থ মামলা দায়ের করায় কেন্দ্রীয় সরকার এই প্রকল্পের বিরুদ্ধে একটি সতর্কতা দাখিল করেছে। এর মাধ্যমে কেন্দ্র সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়ে দিল, সরকারের বক্তব্য না শুনে কোনও আদেশ জারি করা চলবে না।

ভারতীয় সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীতে নতুন নিয়োগ নীতি দেশজুড়ে অস্থিরতার দাবানল জ্বালিয়েছে। রাজ্যের যুব সমাজ এই প্রকল্পের বিরোধিতা করেছে। গত কয়েক দিনে দেশজুড়ে সহিংস ঘটনাও ঘটেছে।

প্রকল্প অনুযায়ী, তিন বাহিনীতে সংক্ষিপ্ত প্রশিক্ষণের পর ৪৮ হাজার যুবককে নিয়োগ দেওয়া হবে। চার বছর পর ওই যুবকদের এক-চতুর্থাংশ স্থায়ীভাবে নিয়োগ দেওয়া হবে। বাকিদের প্রায় ১২ লাখ টাকা দিয়ে পাঠানো হবে। এই নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, যেখানে বেকারদের জন্য পেনশন ব্যবস্থা থাকবে না। অন্য কোন সুযোগ সুবিধা থাকবে না।

এই নীতির বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই সুপ্রিম কোর্টে তিনটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছে। আবেদনে বলা হয়েছে, প্রকল্পটি অসাংবিধানিক। সংসদে কোনো আলোচনা ছাড়াই প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে বহু বছরের নিয়োগ প্রথা উপেক্ষিত হয়েছে। এতে সুশৃঙ্খল বাহিনীর মনোবল নষ্ট হবে। সারাদেশে অশান্তির আগুন জ্বলছে। তাই কেন্দ্রকে প্রকল্পটি আরও বিবেচনা করার নির্দেশ দেওয়া উচিত।

পিটিশনে বলা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের উচিত একটি কমিটি গঠন করা যার সদস্যরা সেনাবাহিনী ও জাতীয় নিরাপত্তার ওপর প্রকল্পের প্রভাব খতিয়ে দেখবেন। আরজিওকে দেশে অস্থিরতা ও সহিংসতার কারণ খতিয়ে দেখতে একটি বিশেষ তদন্ত দল গঠন করতে বলা হয়েছিল।

বিচারপতি সিটি রবিকুমার এবং সুধাংশু ধুলিয়ার অবসরপ্রাপ্ত বেঞ্চ গতকাল বলেছেন যে আইনজীবী হর্ষ অজয় ​​সিংয়ের আবেদনটি বিবেচনার জন্য প্রধান বিচারপতির বেঞ্চে পাঠানো হবে। তবেই তা বিবেচনা করা হবে। ওই আবেদনে প্রকল্পটি স্থগিত রাখার অনুরোধ করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকার সতর্কতা জমা দেওয়ার পরে, তাদের এখন কেন্দ্রেও আবেদনপত্র পাঠাতে হবে।

কেন্দ্র প্রথম থেকেই বলে আসছে এই প্রকল্প কোনওভাবেই স্থগিত করা হবে না। পরিবর্তে তিন বাহিনীতে দমকল কর্মী নিয়োগের জোর প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। তিন বাহিনীর প্রধানরা বলেছেন, প্রতিরক্ষার স্বার্থে সংস্কার জরুরি। ফলে সৈন্যদের বয়স ৩৫ থেকে কমিয়ে ২৪-২৫ হবে। তা ছাড়া কেন্দ্রীয় সরকারকে বিশাল পেনশনের বোঝা বহন করতে হবে না। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালও গতকাল বলেছিলেন যে সরকার কোনও পরিস্থিতিতেই প্রকল্পটি পুনর্বিবেচনার পথে হাঁটবে না। এএনআই-এর সাথে একটি সাক্ষাত্কারে তিনি বলেছিলেন যে প্রকল্পটি ভারতীয় যোদ্ধাদের আরও প্রযুক্তি নির্ভর করে তুলবে।

তরুণদের মনে প্রশ্ন, চার বছর পর বাতিল হওয়া দমকলকর্মীদের ভবিষ্যৎ কী হবে? আধাসামরিক বাহিনী, কেন্দ্রীয় সশস্ত্র পুলিশ বাহিনী এবং আসাম রাইফেলস সহ বিভিন্ন রাজ্য ইতিমধ্যেই একটি অনিশ্চিত ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে তাদের পুলিশ বাহিনীতে অগ্নিনির্বাপক বাহিনী মোতায়েন করার ঘোষণা দিয়েছে। দেশের বিশিষ্ট শিল্পপতিরাও ফায়ারম্যান নিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। অনেক প্রাক্তন যোদ্ধা সরকারকে সতর্ক করেছেন যে তরুণদের মধ্যে আস্থা জাগানোর এই প্রচেষ্টা অনিবন্ধিত যুবকদের চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে বাধা হতে পারে। তারা বলেন, সবাই অগ্নিবীরকে সুযোগ দেওয়ার চেষ্টা করলে শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিতদের মধ্যে বেকারত্ব দূরীকরণে অন্য সমস্যা হবে।

এক সপ্তাহ আগে অগ্নিপথ প্রকল্প চালুর ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। একের পর এক বিক্ষোভের পর গত সোমবার সারাদেশে এ বনধ পালিত হয়। গতকাল থেকে বিক্ষোভ অনেকটাই থমকে গেছে