১১:০৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

অগ্নিকাণ্ডের পর তিন দিনে চট্টগ্রামে ২২টি কনটেইনার ডিপো পরিদর্শন করেছে ফায়ার সার্ভিস।

নিজস্ব সংবাদ :
  • আপডেট সময় ১০:০৫:৫১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ জুন ২০২২
  • / ৭৩২ বার পড়া হয়েছে

bdopennews

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণের পর সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ। গত তিন দিনে চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা থেকে সীতাকুণ্ড পর্যন্ত মোট ২২টি কন্টেইনার ডিপো পরিদর্শন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এ সময় ডিপো কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সব ধরনের নথিপত্র সংগ্রহ করেছেন পরিদর্শন দলের সদস্যরা। ফায়ার সার্ভিস পরিদর্শনের জন্য সাতটি টিম গঠন করেছে।

গত ৪ জুন সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। দেড় ঘণ্টা পর বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জন ফায়ার সার্ভিসের সদস্য। দুই শতাধিক আহত হয়ে চট্টগ্রাম ও ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। দুর্ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শন ও লাইসেন্সিং যথাযথ ছিল কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এ জন্য চট্টগ্রামের সব কন্টেইনার ডিপো ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পরিদর্শনের উদ্যোগ নিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

মঙ্গলবার ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শন দল বিএম কন্টেইনার ডিপোসহ সীতাকুণ্ডের আরও চারটি ডিপো থেকে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও ফায়ার সার্ভিসের লাইসেন্সসহ সব ধরনের কাগজপত্র সংগ্রহ করে। টিমের নেতৃত্বে ছিলেন ফায়ার সার্ভিস চট্টগ্রামের পরিদর্শক ওমর ফারুক ভূঁইয়া।

ওমর ফারুক ভুঁইয়া প্রথম আলো</em>কে বলেন, ডিপোর ভেতরে কী কী পণ্য রাখা হয়, কীভাবে ম্যানেজ করা হয়, নিরাপত্তা ব্যবস্থা কী, তা খতিয়ে দেখার পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন নথিপত্র ও তথ্য সংগ্রহ করেছেন। যে ডিপোগুলিতে পর্যাপ্ত অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই সেগুলি বাস্তবায়নের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক চিঠিও দেওয়া হবে।

শ্রম আইনের অধীনে, একটি সংস্থার প্রতিটি বিভাগের কমপক্ষে 18 শতাংশ কর্মীকে অগ্নিনির্বাপণ, জরুরি উদ্ধার এবং প্রাথমিক চিকিৎসা এবং বহনযোগ্য অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ব্যবহারে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। প্রশিক্ষিত কর্মীদের মধ্য থেকে দমকলকর্মী, উদ্ধারকারী দল এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দল (প্রতিটি দলে ছয়জন) গঠন করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সীতাকুণ্ড ফায়ার হাইড্রেন্ট, নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ নেই তিনটি ডিপোতে

সীতাকুণ্ডের ছয়টি কন্টেইনার ডিপোর মধ্যে তিনটিতে ফায়ার হাইড্রেন্ট এবং বিশেষ নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ নেই। ডিপো পরিদর্শনে আসা ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই কোম্পানিগুলি হল বে লিঙ্ক, নেমসন কন্টেইনার ডিপো এবং বিএম কনটেইনার ডিপো। যাইহোক, কেডিএস লজিস্টিকস ডব্লিউএসি এবং পোর্টলিঙ্ক কন্টেইনার ডিপোতে ফায়ার হাইড্রেন্ট সিস্টেম এবং নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ রয়েছে। কিন্তু পরিদর্শন দল তাদের ছোট অগ্নি নির্বাপক যন্ত্রের পরিবর্তে বড় (25 কেজির বেশি) অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছে।

পরিদর্শক ওমর ফারুক ভূঁইয়া জানান, ন্যামসন কন্টেইনার ডিপোতে ফায়ার হাইড্রেন্ট ছিল না। তবে তাদের দুটি জলাশয় রয়েছে। বিএম কন্টেইনার ডিপো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাদের ডিপো খোলার আগে ফায়ার হাইড্রেন্ট চালু করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। নতুন ডিপো বে লিংককে ফায়ার হাইড্র্যান্ট ও নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ শেষ করে ডিপো কার্যক্রম শুরু করতেও বলা হয়েছে।

একটি অপরিকল্পিত রাসায়নিক ডিপো

সীতাকুণ্ডের ছয়টি কন্টেইনার ডিপোর মধ্যে শুধু পোর্ট লিংক কন্টেইনার ডিপোতেই ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শন দলের কাছে রাখা রাসায়নিকের কন্টেইনারের তথ্য রয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে কনটেইনারগুলো সেখানে রাখা হয়েছে বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শক জসিম উদ্দিন প্রধান। পরিকল্পিতভাবে ডিপোতে কন্টেইনার রাখার জন্য ডিপো কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেবেন বলে জানান তিনি। আপাতত তাদের মৌখিকভাবে সতর্ক করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, ডিপো ব্যবস্থাপনায় রাসায়নিক ভর্তি কনটেইনারগুলো অন্য কন্টেইনার থেকে আলাদা রাখতে হবে। এ জন্য দেয়াল নির্মাণ করতে হবে।

জসিম উদ্দিন প্রধান জানান, ডিপোতে গার্মেন্টসের কন্টেইনারের পাশাপাশি রাসায়নিকের কন্টেইনার রয়েছে। পাত্র আলাদা রাখার জন্য কোন প্রাচীর নেই। তাই তিনি কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

অগ্নিকাণ্ডের পর তিন দিনে চট্টগ্রামে ২২টি কনটেইনার ডিপো পরিদর্শন করেছে ফায়ার সার্ভিস।

আপডেট সময় ১০:০৫:৫১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৫ জুন ২০২২

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ও বিস্ফোরণের পর সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ। গত তিন দিনে চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা থেকে সীতাকুণ্ড পর্যন্ত মোট ২২টি কন্টেইনার ডিপো পরিদর্শন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। এ সময় ডিপো কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সব ধরনের নথিপত্র সংগ্রহ করেছেন পরিদর্শন দলের সদস্যরা। ফায়ার সার্ভিস পরিদর্শনের জন্য সাতটি টিম গঠন করেছে।

গত ৪ জুন সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। দেড় ঘণ্টা পর বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জন ফায়ার সার্ভিসের সদস্য। দুই শতাধিক আহত হয়ে চট্টগ্রাম ও ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। দুর্ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শন ও লাইসেন্সিং যথাযথ ছিল কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এ জন্য চট্টগ্রামের সব কন্টেইনার ডিপো ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পরিদর্শনের উদ্যোগ নিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

মঙ্গলবার ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শন দল বিএম কন্টেইনার ডিপোসহ সীতাকুণ্ডের আরও চারটি ডিপো থেকে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ও ফায়ার সার্ভিসের লাইসেন্সসহ সব ধরনের কাগজপত্র সংগ্রহ করে। টিমের নেতৃত্বে ছিলেন ফায়ার সার্ভিস চট্টগ্রামের পরিদর্শক ওমর ফারুক ভূঁইয়া।

ওমর ফারুক ভুঁইয়া প্রথম আলো</em>কে বলেন, ডিপোর ভেতরে কী কী পণ্য রাখা হয়, কীভাবে ম্যানেজ করা হয়, নিরাপত্তা ব্যবস্থা কী, তা খতিয়ে দেখার পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন নথিপত্র ও তথ্য সংগ্রহ করেছেন। যে ডিপোগুলিতে পর্যাপ্ত অগ্নি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেই সেগুলি বাস্তবায়নের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক চিঠিও দেওয়া হবে।

শ্রম আইনের অধীনে, একটি সংস্থার প্রতিটি বিভাগের কমপক্ষে 18 শতাংশ কর্মীকে অগ্নিনির্বাপণ, জরুরি উদ্ধার এবং প্রাথমিক চিকিৎসা এবং বহনযোগ্য অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ব্যবহারে প্রশিক্ষণ দিতে হবে। প্রশিক্ষিত কর্মীদের মধ্য থেকে দমকলকর্মী, উদ্ধারকারী দল এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দল (প্রতিটি দলে ছয়জন) গঠন করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সীতাকুণ্ড ফায়ার হাইড্রেন্ট, নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ নেই তিনটি ডিপোতে

সীতাকুণ্ডের ছয়টি কন্টেইনার ডিপোর মধ্যে তিনটিতে ফায়ার হাইড্রেন্ট এবং বিশেষ নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ নেই। ডিপো পরিদর্শনে আসা ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শকদের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই কোম্পানিগুলি হল বে লিঙ্ক, নেমসন কন্টেইনার ডিপো এবং বিএম কনটেইনার ডিপো। যাইহোক, কেডিএস লজিস্টিকস ডব্লিউএসি এবং পোর্টলিঙ্ক কন্টেইনার ডিপোতে ফায়ার হাইড্রেন্ট সিস্টেম এবং নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ রয়েছে। কিন্তু পরিদর্শন দল তাদের ছোট অগ্নি নির্বাপক যন্ত্রের পরিবর্তে বড় (25 কেজির বেশি) অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছে।

পরিদর্শক ওমর ফারুক ভূঁইয়া জানান, ন্যামসন কন্টেইনার ডিপোতে ফায়ার হাইড্রেন্ট ছিল না। তবে তাদের দুটি জলাশয় রয়েছে। বিএম কন্টেইনার ডিপো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাদের ডিপো খোলার আগে ফায়ার হাইড্রেন্ট চালু করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। নতুন ডিপো বে লিংককে ফায়ার হাইড্র্যান্ট ও নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ শেষ করে ডিপো কার্যক্রম শুরু করতেও বলা হয়েছে।

একটি অপরিকল্পিত রাসায়নিক ডিপো

সীতাকুণ্ডের ছয়টি কন্টেইনার ডিপোর মধ্যে শুধু পোর্ট লিংক কন্টেইনার ডিপোতেই ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শন দলের কাছে রাখা রাসায়নিকের কন্টেইনারের তথ্য রয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে কনটেইনারগুলো সেখানে রাখা হয়েছে বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের পরিদর্শক জসিম উদ্দিন প্রধান। পরিকল্পিতভাবে ডিপোতে কন্টেইনার রাখার জন্য ডিপো কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেবেন বলে জানান তিনি। আপাতত তাদের মৌখিকভাবে সতর্ক করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, ডিপো ব্যবস্থাপনায় রাসায়নিক ভর্তি কনটেইনারগুলো অন্য কন্টেইনার থেকে আলাদা রাখতে হবে। এ জন্য দেয়াল নির্মাণ করতে হবে।

জসিম উদ্দিন প্রধান জানান, ডিপোতে গার্মেন্টসের কন্টেইনারের পাশাপাশি রাসায়নিকের কন্টেইনার রয়েছে। পাত্র আলাদা রাখার জন্য কোন প্রাচীর নেই। তাই তিনি কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করেছেন।